বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

রাজনীতিতে নয়া মোড়

hasina & Khদশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বাকি আর মাত্র দুই দিন। এই অবস্থায় বর্তমান নির্বাচন বাতিল করার বিষয়ে আলোচনা হচ্ছে। কুটনীতিকরা এনিয়ে কাজ করছেন। তারা সবদলের অংশ গ্রহণে একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচন চাইছেন। আর সে লক্ষেই উদ্যোগ নিয়েছেন। আলোচনাও করছেন। এনিয়ে রাজনীতি নয়া মোড় নিয়েছে। বিএনপির সঙ্গে মার্কিন রাষ্ট্রদূত ও যুক্তরাজ্যের হাইকমিশনারও বৈঠক করেছেন। ইউরোপীয় ইউনিয়নের নেতারাও বৈঠক করবেন। তারা চাইছেন সমঝোতা ও বাংলাদেশে স্থিতিশীলতা। যত দ্রুত সম্ভব সংলাপ করার কথাও বলেছেন তারা। চলমান অবস্থায় তারা হতাশ।

সূত্র জানায়, নতুন করে আলোচনা অনুযায়ী বিএনপির মত হচ্ছে ৫ জানুয়ারীর নির্বাচন বাতিল করতে হবে। এরপর ২৪ এপ্রিলের মধ্যে দশম সংসদ নির্বাচন পুনরায় হবে। মার্চেও নির্বাচন হতে পারে। ৫ জানুয়ারীর নির্বাচন বাতিল হলে শেখ হাসিনার প্রধানমন্ত্রী হিসাবে ক্ষমতা খর্ব করে রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমতা দেয়া হলে হাসিনাকে প্রধানমন্ত্রী মেনে নির্বাচনে যাবে বিএনপি। বিএনপি এখন যে কোন ভাবেই নির্বাচনে যেতে চাইছে। নির্বাচন ছাড়া তাদের সামনে আর কোন পথ নেই। এই কারণে তারা পূর্বের অনঢ় অবস্থান থেকে এখন কিছুটা সড়ে এসেছে। তারা সরকার প্রধান নির্দলীয় হতে হবে এমন কথা বলে আসলেও এখন জাতিসংঘের তারানকোর যে প্রস্তাব দিয়েছিলেন তাতে তারা রাজি।

এদিকে সূত্র জানায়, শেখ হাসিনা দশম নির্বাচন বাতিল করতে রাজি নন। তিনি যথা সময়ে দশম সংসদ নির্বাচন করে প্রয়োজনে এপ্রিলের মধ্যে একাদশ নির্বাচন করতে রাজি। তিনি নির্বাচনকালীন সরকারের প্রধান হিসাবে যখন থাকবেন তখন তার ক্ষমতা কর্তন করা হলেও তাতে তার আপত্তি নেই। তবে তিনি দশম নির্বাচন কোন ভাবেই বাতিল করতে চাইছেন না। সূত্র জানায়, শেখ হাসিনা দশম নির্বাচন বাতিল করতে রাজি না হওয়ায় এখানেই আটকে রয়েছে সমঝোতা। এর আগে কয়েক দফা এনিয়ে দুই দলের মধ্যে আলোচনা হলেও সমঝোতা হয়নি। আর সমঝোতা না  হওয়ার কারণে আবারও কুটনীতিকরা তৎপর হয়ে উঠেছেন। তারা কোন ভাবেই বাংলাদেশে চলমান রাজনৈতিক অস্থিরতা ও সহিংসতাকে মেনে নিতে পারছেন না। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, জাপান, অস্ট্রেলিয়া, জার্মান, রাশিয়া, চীন ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন সবাই চাইছে আগামী নির্বাচন সব দলের অংশ গ্রহণে সবার কাছে গ্রহণযোগ্য ও সুষ্ঠু হোক। এই জন্য দুই দলের প্রধানদের সঙ্গে আলোচনাও করেছেন। এখন বিএনপি চেয়ারপারসনের সঙ্গে আলোচনা করছেন। আর আওয়ামী লীগের ব্যাপারে সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের সঙ্গে আলোচনা করছেন। মঙ্গলবার বৃটিশ হাইকমিশনার রবার্ট গিবসন তার সঙ্গে দেখা করেছেন। এনিয়ে আলোচনাও হয়েছে। দুই দলের মধ্যে যত দ্রুত সম্ভব সমঝোতা করে সব দলের অংশগ্রহণে একটি গ্রহনযোগ্য নির্বাচন করার জন্যই বলেছেন।

এদিকে সোমবার তিনি অবরুদ্ধ বেগম খালেদা জিয়ার বাসায় দেখা করেছেন। তিনি দুই নেতার সঙ্গে দেখা করার পর এখনও মিডিয়ার কাছে মুখ খোলেননি। মঙ্গলবার মার্কিন রাষ্ট্রদূত ড্যান ডব্লিউ মজিনা দেখা করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসনের সঙ্গে। সেখানে দেখা করে তিনি কোন কথা না বললেও বিবৃতিতে জানিয়েছেন চলমান অবস্থা নিরসন করে সংলাপ করে সমঝোতা করতে হবে। সব দলের মত প্রকাশের অধিকার রয়েছে ও তা থাকতে হবে বলেও মনে করেন তিনি।

সূত্র জানায়, আওয়ামী লীগ ও বিএনপি দুই দল অনড় অবস্থানে থাকার কারণে জাতিসংঘ ও কুটনীতিকরা একটা সমাধান চাইছেন। এই জন্য তারা  চাইছেন ৫ জানুয়ারীর এই নির্বাচন বাতিল করে ২৪ জানুয়ারী সংসদ ভেঙ্গে দিয়ে একটি নতুন সরকার গঠন করা হবে। সংবিধানের প্রথম বিধান হচ্ছে সংসদের মেয়াদ শেষ হওয়ার ৯০ দিন পূর্বে নির্বাচন করার। সরকারও সেই ভাবে করছিল। কিন্তু এই নির্বাচনে বিএনপি না আসায় এখন জাতিসংঘ ও বিদেশী কুটনীতিকরা চাইছেন সংবিধানের দ্বিতীয় অপশন হিসাবে সুযোগ রয়েছে সংসদ ভেঙ্গে দেয়ার ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচন করার। সেই অপশনটি বেছে নিতে বলছেন। সেই হিসাবে ২৪ জানুয়ারী থেকে ২৪ এপ্রিলের জন্য একটি সরকার গঠন করা হবে। ওই সরকারের প্রধান থাকবেন শেখ হাসিনা। তিনি প্রধানমন্ত্রী থাকলে এখন প্রধানমন্ত্রীর যে ক্ষমতা তখন এতটা কর্তৃত্ব পরায়ন থাকবে না। তার ক্ষমতা খর্ব করা হবে। ক্ষমতা খর্ব করেই এরপর তার ওই সময়ে সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষমতাগুলো রাষ্ট্রপতির হাতে দেয়া হবে। নির্বাচনকালীন সরকারের গুরত্বপূর্ন সিদ্ধান্ত নেবেন রাষ্ট্রপতি। সূত্র জানায়, আলোচনা অনুযায়ী বর্তমান সংসদের মেয়াদ ২৪ জানুয়ারী শেষ হওয়ার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাষ্ট্রপতিকে সংসদ ভেঙ্গে দেয়ার অনুরোধ করবেন। ওই অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে রাষ্ট্রপতি সংসদ ভেঙ্গে দিবেন। সংসদ ভেঙ্গে দেয়ার পর রাষ্ট্রপতি শেখ হাসিনাকে বলবেন প্রধানমন্ত্রী থাকার জন্য। আর প্রধানমন্ত্রী থেকেই তিনি সরকার পরিচালনা করবেন। তিনি মন্ত্রিসভা গঠন করবেন। নতুন মন্ত্রীরা শপথ নিবেন। ওই মন্ত্রী পরিষদে বিএনপির সদস্যদেরও রাখবেন। সরকার রুটিন কাজ করবে। ওই রুটিন কাজের পাশাপাশি নির্বাচন কমিশন নিবাচন করবে।

বিএনপির একজন ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, এখন এমনটাই আলোচনা চলছে। এই রকম পরিকল্পনা নিয়েই এখন দুই দলের মধ্যে রাজনৈকি সমঝোতার চেষ্টা চলছে কুটনীতিকদের তরফ থেকে। তবে এই প্রস্তাবে রাজি নন শেখ হাসিনা। তিনি চাইছেন যে কোন মূল্যে তার দশম সংসদ নির্বাচন করতেই হবে। তিনি নির্বাচন করবেনই। এই নির্বাচন করার পর তা বিএনপিকে মেনে নিতে হবে। এরপর একাদশ নির্বাচন হবে। বিএনপি সমঝোতা করলে ২৪ এপ্রিলের মধ্যেও নির্বাচন হতে পারে। এর আগেও হতে পারে।

বিএনপির একজন গুরুত্বপূর্ন নেতা বলেন, এখন আলোচনা হচ্ছে দশম নির্বাচন নিয়ে। এই পর্যন্ত নির্বাচন নিয়ে যা হয়েছে তা বাতিল করতে হবে। যত দ্রুত সম্ভব তা বাতিল করেই নতুন করে দশম নির্বাচন দিতে হবে। আমরা নিদর্লীয় সরকারের দাবি করেছিলাম। এখনও সেই দাবি আছে। তবে দেশের স্বার্থে ও জনগনের স্বার্থে এবং গণতান্ত্রিক স্বৈরাচার সরকারের হাত থেকে দেশকে রক্ষা করার জন্য আমরা সমঝোতা করতে রাজি। সরকার এই নির্বাচন বাতিল করে নতুন করে দশম নির্বাচন দিতে রাজি হলে শেখ হাসিনাকে আমরা নির্বাচনকালীণ সরকারের প্রধান মেনে নিতেও রাজি । তবে তার ক্ষমতা কর্তন করা হবে। ক্ষমতা কর্তন করে ওই ক্ষমতা রাষ্ট্রপতির হাতে দিতে হবে।  তিনি গুরুত্বপূর্ন সিদ্ধান্ত নিবেন।

সূত্র জানায়, বিএনপির তরফ থেকে আওয়ামী লীগের কাছে নির্বাচনকালীণ সরকার, দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন কখন কেমন করে হবে এই ব্যাপারে প্রস্তাব দেয়া হয়। আওয়ামী লীগ নেতা সৈয়দ আশরাফ বলেছিলেন যে তিনি তার দলের নীতি নির্ধারিনী ফোরামে তা আলোচনা করে জানাবেন। আর কিছুই জানাননি। আমরা অপেক্ষায় থাকলাম। তাদের সঙ্গে দশম সংসদ নির্বাচন নিয়ে আলোচনা হলে সরকারের মন্ত্রী ও নেতারা বলেন, এই নির্বাচন নিয়ে আর আলোচনা ও বিএনপির এই নির্বাচনে আসার সুযোগ নেই। আমরা ট্রেন ফেল করেছি। এটা তো হতে পারে না। আমরাতো দশম সংসদ নির্বাচন নিয়েই আলোচনা করলাম।

জাতিসংঘের মহাসচিবের বিশেষ দূত তারানকোও দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়েই আলোচনা করেছেন। কিন্তু ওই আলোচনা আর এগুলো না। সরকার সমঝোতা চাইছেই না। বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বলেন, আমরা আওয়ামী লীগের চার নেতার কাছে প্রস্তাব দিয়েছিলাম এই সংসদ নির্বাচন কেমন করে সব দলের অংশ গ্রহণে হবে তা নিয়ে। কিন্তু তারা আলোচনা করে জানাবেন, আবারও আলোচনায় বসবেন বললেও আর বসেননি। তারা নির্বাচন করবেনই এমন মনোভাব নিয়ে এগুচ্ছেন। এটাতো ঠিক হলো না। সমঝোতার চেষ্টায় আলোচনা চলছিল সেটা শেষ করা দরকার ছিল। সরকার তা করলো না। তারা আমাদের প্রস্তাব জানার পর নিজেরাই সিদ্ধান্ত নিয়ে নিল নির্বাচন করার। এটাতো ঠিক না। সরকারের এমন ইচেছই যদি ছিল তাহলে তারা আমাদের সঙ্গে দশম নির্বাচন নিয়ে আলোচনা করলেন কেন। সূত্র জানায়, বিএনপির মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর যখন আলোচনা করছিলেন তখন তোফায়েল আহমেদ বলেন, আপনারা দশম জাতীয় সংসদ নিয়ে আলোচনা করছেন সেটা হবে না। একাদশ নির্বাচন নিয়ে আলোচনা হতে পারে। তখন মির্জা ফখরুল তাকে উদ্দেশ্য করে বলেন, তোফায়েল ভাই আপনাকে আজকে অনেক অচেনা লাগছে। ছাত্র রাজনীতি করার সময়ে আপনাকে যেমনটা দেখেছি, আপনি এখন আর তেমনি নেই। থাকলে দশম বাদ দিয়ে একাদশ নির্বাচন নিয়ে কথা বলতে বলতেন না।

তিনি বলেন, বিএনপি সব সময় সমঝোতা করতে চায়। এই জন্য আলোনায়ও বসতে চায়। এখনও সরকার এই নির্বাচন বাতিল করে দিলেই নতুন করে মার্চের মধ্যেই দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন হতে পারে। সংবিধানের বর্তমান বিধানের দ্বিতীয় অপশনটি মেনে নিয়েই। সেটাও আমরা করতে চাই। কিন্তু সরকার এই নির্বাচন করে একাদশ নিয়ে আলোচনা করার কথা বলছে এটাতো ঠিক না। তিনি বলেন, এখন সরকার যে নির্বাচন করছে তা কেউ গ্রহণ করছে না। ভারত ছাড়া বিদেশী সকল রাষ্ট্র এর বিপক্ষে। তারা চায় সব দলের অংশগ্রহণে নির্বাচন। এই নির্বাচন সরকার বাতিল করে নতুন করে নির্বাচন না দিলে ওই নির্বাচন করে যে সরকার গঠন করা হবে যে মন্ত্রী পরিষদ শপথ নিবে ওই শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানেও ওই সব দেশের হাইকমিশনার ও রাষ্ট্রদূতরা যাবেন না। এর আগে ইউরোপীয় ইউনিয়ন ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসে শহিদ স্মৃতি সৌধে যাওয়ার অনুষ্ঠান বর্জন করেছে।

এদিকে সূত্র জানায়, বিদেশী সকল দেশের রাষ্ট্রদূত ও হাইকমিশনাররা ব্যস্ত ছিলেন তাদের বড় দিনের উৎসব উদযাপন করা নিয়ে। অনেকেই ঢাকায় নেই তারা বড় দিন উদযাপন করতে তাদের দেশে গেছেন। তারা ফিরে আসার পর এই ব্যাপারে একটি সিদ্ধান্ত দিতে পারে। রাজনীতির জন্য আগামী তিন দিন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ন দিন বলেও মনে করছেন কুটনীতিকরা। এদিকে জাতিসংঘ কঠোর সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে। এই জন্য সিকিউরিটি কাউন্সিলের বৈঠকও ডাকা হতে পারে।  সেখানে বাংলাদেশের ব্যাপারেও সিদ্ধান্ত হতে পারে।

 

এ জাতীয় আরও খবর

যাত্রী বেশি হলে বিমানবন্দরে ল্যাব বাড়ানো হবে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

করোনায় আরও ৩ মৃত্যু, শনাক্ত ২৬১

ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রীর কাছে ক্ষমা চাইল সেই ব্যাংক

মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সে বোমা আতঙ্ক, যেভাবে চলে অভিযান

মেয়র জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে এবার নওগাঁর আদালতে মামলা

আমিনবাজারে ৬ ছাত্র হত্যা : ১৩ জনের মৃত্যুদণ্ড ও ১৯ জনের যাবজ্জীবন

ওমিক্রন আতঙ্কে ভারত : ঝুঁকিপূর্ণ দেশের তালিকায় আবারও বাংলাদেশ

সারাদেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকবে, লঘুচাপটি শক্তিশালী হচ্ছে

নিয়ম ভেঙে তুলে নেওয়া হয় ৩৬৮৭ কোটি টাকা

এইচএসসিতে বসেছে প্রায় ১৪ লাখ শিক্ষার্থী

৬ ছাত্রকে পিটিয়ে হত্যা : ১৩ জনের মৃত্যুদণ্ড

কথা দিয়ে কথা রাখুন : কাদের