বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

জার্মানীতে বিদেশী শিক্ষার্থীদের জন্য স্কলারশিপ

Study-in-Germany-300x167বিদেশে উচ্চশিক্ষার জন্য জার্মানীর কদর বাড়ছে দিন দিন। বাংলাদেশ থেকে প্রচুর শিক্ষার্থী প্রতিবছর যাচ্ছেন সেখানে। এর মধ‌্যে অনেকেই যাচ্ছেন ফুল স্কলারশিপ নিয়ে।

জার্মানিতে পড়াশোনার জন্য টিউশন ফি লাগে না ৷ কিন্তু বাড়িভাড়া, খাবার-দাবার, পোশাক-আশাক এসব বাবদ খরচ কম পড়ে না ৷ বিশেষ করে বিদেশি ছাত্র-ছাত্রীরা এটা ভালো করেই টের পান ৷

বিভিন্ন ফাউন্ডেশনের সহায়তা

এক্ষেত্রে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেয় বেশ কিছু ফাউন্ডেশন ৷ তবে প্রতি বছর আড়াই লাখ বিদেশি ছাত্র-ছাত্রী ও ২৩০০০ ডক্টরেটের গবেষক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন ৷ এঁদের মধ্যে মাত্র ২৫ শতাংশ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে বৃত্তি পেয়ে থাকেন ৷

কোলন ইউনিভার্সিটির আন্তর্জাতিক বিষয়ক দপ্তরের মুখপাত্র কার্ল হাইনৎস কর্নের কাছে ব্যাপারটা তেমন বিস্ময়কর নয় ৷ কেননা বৃত্তির জন্য আবেদনের প্রক্রিয়াটা বেশ জটিল ৷

সিদ্ধান্ত পেতে পেতে বছরও গড়িয়ে যেতে পারে ৷ ফাউন্ডেশন গুলি ভালো করে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার পরেই স্থির করে কাকে তারা সাহায্য করবে৷

গুরুত্বপূর্ণ ফাউন্ডেশন ডিএএডি

এর মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ একটি ফাউন্ডেশন হলো ‘ডিএএডি’ বা জার্মান ছাত্র বিনিময় কর্মসূচি ৷ বর্তমানে ৪৫,০০০ বিদেশি ছাত্র-ছাত্রীকে আর্থিক সহায়তা দিচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি ৷

বৃত্তি ভোগীদের ৭০ শতাংশই আসেন বিদেশ থেকে ৷ এজন্য ডিএএডি-র নানা ধরনের কর্মসূচি রয়েছে ৷ ব্যাচেলর কোর্সের ছাত্র-ছাত্রীরা মাসে ৬৫০ ইউরো, মাস্টার্সের ছাত্র-ছাত্রীরা ৭৫০ ইউরো আর ডক্টরেটের গবেষকরা ১০০০ ইউরো পান ৷

শিক্ষার্থীরা যেভাবে বসবাস করেন:

অনিশ্চয়তা: নতুন সেমিস্টার শুরু হয়েছে, কিন্তু হোস্টেল গুলোতে জায়গা নেই ৷ এখন শিক্ষার্থীরা কি করবে? মাথা গোঁজার একটা ঠাঁই তো চাই! একটা ব্যবস্থা তো করতেই হবে! মিউনিখ এবং ফ্রাংকফুর্ট সবচেয়ে ব্যয়বহুল শহর ৷

বাভারিয়া রাজ্য একটি ঘর ভাড়া গড়ে ৪৯৩ ইউরো আর ফ্রাংকফুর্টে ৪২১ ইউরো ৷ স্নাতকের ছাত্রছাত্রীদের জন্য বৃত্তি পাওয়া সবচেয়ে কঠিন৷ কেননা পরীক্ষায় ভালো ফলাফলের ওপর ভিত্তি করেই বৃত্তি দেওয়া হয়৷ ব্যাচেলরের ছাত্র-ছাত্রীদের বেলায় এটা নির্ণয় করা সহজ নয় ৷

অন্যদিকে, মাস্টার্স ও ডক্টরেটের ছাত্র-ছাত্রীরা ব্যাচেলর পরীক্ষায় ভালো ফলাফল দেখাতে পারলে বৃত্তি পাওয়াও সহজ হয় ৷ ডিএএডির বৃত্তি সম্পর্কে ছাত্র-ছাত্রীরা নিজ নিজ দেশেই বিস্তারিত জানতে পারেন ৷ স্থানীয় বিশ্ববিদ্যালয় গুলিতে এ সম্পর্কে তথ্যাদি পাওয়া যায়৷

বিদেশি ছাত্রদের জন্য সুলভ মূল্যে বাড়ি পাওয়াটা রীতিমত সমস্যাজনক ৷ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিদেশি দপ্তরের কাছ থেকে কিছু পরামর্শ পাওয়া গেলেও আসল কাজটা ছাত্র-ছাত্রীদের নিজেদেরই করতে হয় ৷

ক্যাশ টাকা সাথে রাখতে হয়:  বৃত্তি নিয়ে জার্মানিতে পাড়ি দিলেও অবশ্যই কিছু ক্যাশ টাকা সাথে রাখতে হয় বিদেশি শিক্ষার্থীদের। কারণ ইউনিভার্সিটিতে নাম লেখানো ও নিজস্ব ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খোলার পরই ফাউন্ডেশনের তরফ থেকে মাসে মাসে টাকা আসতে শুরু করে ৷

আর কেবল তাহলেই জার্মানিতে একটি বাসা ভাড়া করা যায় ৷ ‘‘প্রথম তিন সপ্তাহ বিদেশি ছাত্রদের জন্য বলা যায় এক ‘সাংস্কৃতিক শক”’, বলেন কার্ল হাইনৎস কর্ন৷ ‘‘তারা ভাবতেই পারেন না যে, অনেক কিছুর সুরাহা নিজেদেরই করতে হয়৷”

তবে বিদেশি ছাত্র-ছাত্রীদের সাহায্যের জন্য নানা রকম সমিতি ও গ্রুপ রয়েছে৷ যেমন ইন্টারনেশনাল ইউনিভার্সিটি গ্রুপ কিংবা ইউনিভার্সিটি কমিউনিটি ৷

এই সব গ্রুপে স্বদেশিদের সঙ্গে মিলিত হতে পারেন বিদেশ থেকে আসা ছাত্রছাত্রীরা৷ তারা বাসা পেতে সাহায্য করেন, জার্মানির সাংস্কৃতিক বৈশিষ্ট্য তুলে ধরেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের পথঘাট খুঁজে পেতে সহায়তা করেন৷

বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাথলিক কিংবা প্রটেস্ট্যান্ট গির্জা কমিউনিটিতে সক্রিয় হলে অতিরিক্ত কিছু সুবিধাও পাওয়া যায়৷ যেমন কোনো কোনো কমিউনিটিতে বিদেশি ছাত্রদের জন্য সংরক্ষিত কক্ষ পেতে পারেন তারা৷

কার্ল হাইনৎস কর্ন জানান, ‘‘ইউনিভার্সিটির বিভিন্ন গ্রুপে সক্রিয় হলে জার্মানি তথা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজ জীবনে খাপ খাওয়ানো সহজ হয় ৷

শুধু পরীক্ষার ভালো রেজাল্টই নয়, সামাজিক কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ত হওয়াটাও অনেক ফাউন্ডেশনের জন্য বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ ৷