মঙ্গলবার, ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সরকারি অবরোধে ঢাকা বিচ্ছিন্ন

bus stop-2প্রধানবিরোধীদল বিএনপির নেতৃত্বে ১৮ দলীয় জোটের আগামীকাল রোববার ঢাকায় সমাবেশকে সামনে রেখে সরকারি অবরোধে রাজধানীর সাথে দেশের বাকি অংশের সড়ক ও লঞ্চ চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, বিরোধীদলের ওই কর্মসূচি তার ভাষায় ধংসযজ্ঞ পরিচালনার কর্মসূচি।

সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির নেতা এনায়েতউল্লাহ এবং কফিল উদ্দিন বিবিসিকে জানিয়েছেন. সিদ্ধান্ত নিয়ে বাস চলাচল বন্ধ করা হয় নি। তবে তারা বলছেন, স্থানীয়ভাবে নিরাপত্তার কারণে কোথাও বাস চলাচল বন্ধ হয়ে থাকলে তা তাদের জানা নেই।

উত্তরাঞ্চলের বগুড়া শহর থেকে সাংবাদিক মিলন রহমান জানাচ্ছেন, শুক্রবার দুপুরের পর থেকেই নিরাপত্তা কারণ দেখিয়ে বগুড়া এবং উত্তরের অন্য জেলাগুলো থেকে ঢাকা অভিমুখে বাস যাওয়া বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। দক্ষিণের বরিশাল থেকেও ঢাকাগামী বাস ও লঞ্চ চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। সেখানকার সাংবাদিক শাহিনা আজমিন জানাচ্ছেন শুধুমাত্র অভ্যন্তরীণ রুটগুলোয় বাস চলছে, আর ঢাকাগামী লঞ্চগুলো ছাড়ার প্রস্তুতি নিলেও শেষ পর্যন্ত যাত্রা বাতিল করে। লঞ্চ মালিকরাও বলছেন, নিরাপত্তার কারণেই ঢাকাগামী লঞ্চ চলাচল বন্ধ রেখেছেন তারা।

বিএনপি নেতৃত্বাধীন বিরোধীজোটের নেতারা অভিযোগ করেছেন, রোববার ঢাকায় তাদের ডাকা সমাবেশ কর্মসুচিতে যাতে সারাদেশ থেকে কর্মী-সমর্থকরা আসতে না পারে সেজন্যেই সরকার যানচলাচলে বিঘœ সৃষ্টি করছে। এর আগে বিরোধীদলের সারাদেশে টানা অবরোধের সময় যৌথ বাহিনীর সহায়তায় সড়ক ও  রেলপথে যানবাহন চলাচল নির্বিঘœ রাখতে সরকার উদ্যোগ নিলেও এখন সরকার তার উল্টো করছে। আর এটা করা হচ্ছে ঢাকায় ‘গণতন্ত্রের অভিযাত্রা’ কর্মসূচিকে সামনে রেখে। ৫ জানুয়ারি নির্বাচন বাতিল ও তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে সকল দলের অংশগ্রহণের মধ্যে দিয়ে নির্বাচনের দাবিতে এ কর্মসূচি দেয়া হয়।  

তবে যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ করে দেয়ার অভিযোগ সরকার অস্বীকার করেছে। সড়ক বা নৌ-যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যাবার পেছনে সরকারের কোন নির্দেশ নেই, বিবিসি বাংলাকে এক সাক্ষাতকারে বলেছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু।

এর আগে ১৮-দলীয় বিরোধী জোট সারাদেশ থেকে তাদের কর্মীদের রাজধানীর দিকে অভিযাত্রা করে আগামি রোববার ঢাকায় একটি সমাবেশ করার অনুমতি চাইতে কর্তৃপক্ষ তা প্রত্যাখ্যান করে। নিরাপত্তার কারণেই ওই অনুমতি দেয়া হয় নি বলে পুলিশের একজন মুখপাত্র জানিয়েছেন। পুলিশের ওই মুখপাত্র মাসুদুর রহমান জানিয়েছেন, সন্মানিত ঢাকার নাগরিকবৃন্দ ও নগরের নিরাপত্তার স্বার্থে বিরোধীদল ২৯ শে ডিসেম্বর যে প্রোগ্রামটি করতে চেয়েছিল, সেক্ষেত্রে আমরা অনুমতি দেইনি। বিরোধীদলের এ কর্মসূচির বিরুদ্ধে  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা থেকে শুরু করে সরকারি দলের অনেক নেতা তাদের কঠোর অবস্থানের কথা তুলে ধরে আসছেন।

এ প্রেক্ষিতে বিরোধীদলীয় নেত্রী ও বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া এক ভিডিও বার্তায় ‘সব প্রতিবন্ধকতা মোকাবিলা করে’ ঢাকায় এসে কর্মসূচি সফল করার জন্য সারাদেশে তার সমর্থকদের আহ্বান জানান। তবে এর আগে থেকেই ঢাকার সাথে অন্য জেলাগুলোর বাস ও লঞ্চ চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। রাজধানী ঢাকায় বাস চলাচল প্রায় বন্ধ রয়েছে। সরকারি পরিবহন সংস্থা বিআরটিসি’র বাস চলাচল করছে না। ফলে শনিবার সকালে অফিসগামী লোকজন রাত্মায় বের হয়ে বিপাকে পড়েছেন। অন্যদিকে রিকশাওয়ালারা সুযোগ বুঝে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছে।

এ জাতীয় আরও খবর

মেসির হাতে উঠলো সপ্তম ব্যালন ডি’অর

ওমিক্রন রোধে বেনাপোল বন্দরে সর্বোচ্চ সতর্কতা

এসএসসি পাস ছাড়া বিমা পেশায় ঢোকার পথ বন্ধ

‘মাইনু আয়, তোরে ভালো কলেজে ভর্তি করামু’

কুমিল্লায় কাউন্সিলর হত্যা: দুই আসামি ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত

পদত্যাগ করলেন টুইটারের প্রধান নির্বাহী জ্যাক ডরসি

মা-বাবার পরে চেয়ারম্যান হলেন মেয়ে

যুক্তরাষ্ট্রে যাচ্ছেন বুবলিও

খালেদা জিয়ার জন্য বিদেশ থেকে চিকিৎসক আনতে পারবে : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

সিনহা হত্যা মামলা : ৮ম দফায় প্রথম দিনেও তদন্তকারী কর্মকর্তার জেরা অসমাপ্ত

ওমিক্রন : ভারতের উচ্চ ঝুঁকির তালিকায় বাংলাদেশ

বিএনপির শেখানো কথা বলছেন চিকিৎসকরা : তথ্যমন্ত্রী