বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

দৃষ্টি এখন খালেদার সংবাদ সম্মেলনে

khaled-2সবার দৃষ্টি এখন বিএনপি চেয়ারপারসন ও বিরোধী দলীয় নেতা বেগম খালেদা জিয়ার সংবাদ সম্মেলনের দিকে। নির্দলীয় সরকার ও ঘোষিত তফসিল বাতিলের দাবিতে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দল যখন চূড়ান্ত আন্দোলনে তখন দশম সংসদ নির্বাচন নিয়ে ব্যস্ত ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। এ অবস্থার মধ্যেই দেশের সার্বিক পরিস্থিতি ও চলমান সংকট নিয়ে আজ মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলন করছেন তিনি।

আগামী ৫ জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন। সময় বাকি মাত্র ১২ দিন। দেশব্যাপী চলছে সড়ক, রেল ও নৌ পথ অবরোধ। আজ মঙ্গলবার বিকেল পাঁচটায় অবরোধ শেষ হওয়ার পরপরই গুলশানে নিজের রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করবেন খালেদা জিয়া।

বিএনপি নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সংবাদ সম্মেলনে খালেদা জিয়া নির্দলীয় সরকারের দাবিতে আন্দোলনের প্রেক্ষাপট ও যৌক্তিকতা, জনমত উপেক্ষা করে একরতফা নির্বাচন নিয়ে প্রধানমন্ত্রী ও সরকার দলীয় নেতাদের বক্তব্যের জবাব দিতে পারেন। এছাড়া নির্বাচন বন্ধে সরকারকে আবারো শেষ মুহূর্তের আলটিমেটাম দেয়ার পাশাপাশি সব শ্রেণী পেশার মানুষকে নির্বাচনে সহযোগিতা বন্ধের আহ্বান জানিয়ে ‘অসহযোগ’ আন্দোলনের ডাক দিতে পারেন তিনি। আবার বলা হচ্ছে ‘ঢাকা অবরোধে’র ডাকও দিতে পারেন তিনি।

একই সঙ্গে সেনাবাহিনীকে সরকারের পক্ষে কাজ না করে জনগণের পক্ষে থাকারও আহ্বান জানাতে পারেন তিনি। পাশাপাশি সংকট নিরসণে জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক মহলের উদ্যগে সংলাপের চেষ্টা ব্যর্থ হওয়ার বিষয়েও কথা বলতে পারেন খালেদা জিয়া।

এছাড়া ভোটারদের ‘প্রহসনের’ নির্বাচন বর্জনের ডাক দিয়ে বিএনপির নির্বাচনে অংশ না নেয়ারও ব্যাখ্যা দেয়া হবে সংবাদ সম্মেলনে। আর নির্বাচনের দিন কেন্দ্রভিত্তিক সংগ্রাম কমিটিকে নির্বাচন প্রতিহতে মাঠে থাকারও নির্দেশনা থাকতে পারে বিএনপি প্রধানের বক্তব্যে।

দলীয় সূত্রে আরো জানা যায়, খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের বড় দিন উপলক্ষে ২৫ ডিসেম্বর কর্মসূচি না থাকলেও শুক্রবারের আগে  চলতি সপ্তাহে বাকি দিন কর্মসূচি নাও থাকতে পারে। তবে এই সময়ের মধ্যে নির্বাচন বন্ধে সরকারকে নির্দিষ্ট সময়ের আলটিমেটাম দিয়ে পরবর্তীতে ‘অসহযোগ বা গণকারফিউ’র ঘোষণা দেয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এ কর্মসূচি ২৮ ডিসেম্বর অথবা ১লা জানুয়ারি থেকে শুরু করে ৪ তারিখ পর্যন্ত চলতে পারে।

এদিকে সোমবার দুপুরে সবশেষ করণীয় ঠিক করতে খালেদা জিয়ার বাসায় দলের স্থায়ী কমিটির সদস্যসহ শীর্ষ কয়েকজন নেতার বৈঠক করেন।রাতে চেয়ারপারসনের সঙ্গে আরো কয়েকজন শীর্ষ নেতা বৈঠক করতে পারেন বলে জানা গেছে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খানের কাছে সোমবার বিকেলে দলের চেয়াপারসনের সংবাদ সম্মেলনের বিষয় জানতে চাইলে তিনি বলেন, “চেয়ারপারসন কী বক্তব্য দিবেন তা তিনিই ভালো জানেন। তবে সবার আগে সাংবাদিকরা জানবে।”

এ বিষয়ে কিছু জানানো হয়নি উল্লেখ করে স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য লে. জেনারেল অব. মাহবুবুর রহমান  নতুন বার্তা ডটকমকে বলেন, “পরিস্থিতি যেখানে গিয়ে ঠেকেছে, তাতে বিএনপির আর পেছন ফিরে তাকানোর সুযোগ নেই। সমঝোতার সব পথ এখন রুদ্ধ। দাবি আদায়ে একটিই উন্মুক্ত পথ তাহলো- আন্দোলন এবং আন্দোলন।”

তিনি আরো বলেন, “যেহেতু সময় খুব বাকি নেই, তাই সংবাদ সম্মেলনেই সব পরিষ্কার হবে।”