বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

আশুগঞ্জের চাতাল শ্রমিকদের মানবেতর জীবন

rice milআশুগঞ্জ উপজেলার অন্তর্গত ৪ শতাধিক চাতালকলের প্রায় ২৫ হাজার শ্রমিক পালন করছে মানবেতর জীবন।

দিনরাত পরিশ্রম করেও ঘোরাতে পারেন না ভাগ্যের চাকা। ২৪ ঘণ্টা কাজ করলেও নেই তাদের জন্য কোনো বেতন কাঠামো।
 
হাড়ভাঙা পরিশ্রম করেও অর্ধাহারে অনাহারে মানবেতর জীবনযাপন করছে আশুগঞ্জের চাতাল শ্রমিকরা।
 
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, প্রায় ২৫ হাজারেরও বেশি শ্রমিক কাজ করেন আশুগঞ্জের ৪ শতাধিক চাতাল কলে। চাতাল শ্রমিকদের মজুরি নির্ধারণ করা হয় মাঠ হিসাবে। ধান উৎপাদনকারীর কাছ থেকে মিলে এনে চাল উৎপাদন করা পর্যন্ত সময়কে বলা হয় মাঠ।
 
একটি মাঠ উঠতে সময় লাগে প্রায় ৪/৫ দিন। আবার প্রতিকূল আবহাওয়াতে লেগে যায় ৮/৯ দিন। মাঠ থেকে একজন শ্রমিক পান ৫০/৬০ টাকা। সেই হিসাবে দৈনিক একজন শ্রমিক পায় ৮/১০ টাকা সঙ্গে প্রায় ৩ কেজি চাল। এই আয়ে তাদের সংসার কোনোভাবেই চলে না।
 
উপযুক্ত পারিশ্রমিক না পেয়ে মালিকদের কাছ থেকে নেয়া দাদনের টাকা ফেরত দিতে পারছে না এই চাতাল শ্রমিকরা।
 
অন্যদিকে, দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির কারণে মজুরি কম হওয়ার মালিকদের কাছে শ্রমিকদের দাদনও বৃদ্ধি পাচ্ছে। দাদনের কারণে জর্জরিত হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে চাতাল শ্রমিকরা। অনাহারে অর্ধাহারে থাকতে হয় এই শ্রমজীবী মানুষগুলোকে।
 
চান বকস রাইস মিলের শ্রমিক সুজন জানান, এই অল্প বেতনে আমরা কোনোভাবেই চলতে পারছি না। এখন জিনিসপত্রের দাম অনেক বেশি। বাজারে গিয়ে দাম শুনলে ভয় লাগে। যে বেতন পাই তাতে সংসার চলে না। আমাদের  দিকে যদি মালিক পক্ষরা একটু তাকাতেন তাহলে তিনবেলা খেয়ে বেঁচে থাকতে পারতাম।
 
রাইসমিল মালিক মো. হেবজু মিয়া জানান, শ্রমিকদের মজুরি নিয়ে আমরাও চিন্তা করছি খুব শিগগিরই তাদের ন্যায্য দাবিগুলোপূরণ করা হবে।
 
ব্রয়লার রাইসমিল শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক মো. নূরুল ইসলাম জানান, আমরা কিছুদিন আগে ৬ দফা দাবিতে কর্ম বিরতি পালন করেছি। উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ মালিকরা আমাদের আস্বস্থ করেছেন আমাদের ন্যায্য দাবিগুলো মানা হবে।