বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

হাওড়ের ধান চালের বাজার ক্রেতাশূন্য

Asugonj Riceটানা অবরোধ আর হরতালের কারণে ক্রেতাশূন্য হয়ে পড়েছে দেশের অন্যতম দ্বিতীয় বৃহৎ ধান চালের বাজার।

হাওড়ের বাজারখ্যাত আশুগঞ্জে ব্যবসায়ীরা মাথায় হাত দিয়ে কেবলই লোকসান গুনছেন। মোটা অঙ্কের আর্থিক ক্ষতি তারা কীভাবে পুষিয়ে নেবেন তা জানা নেই।
দেশের পূর্বাঞ্চলের সিলেট এবং চট্টগ্রাম বিভাগের অধিকাংশ চালের অভ্যন্তরীণ যোগান দেয়া হয় আশুগঞ্জ বাজার থেকে। হাওড় অঞ্চলের ব্যবসায়ীরা প্রতিদিন বিভিন্ন ধরনের ধান নিয়ে আসেন দেশের অন্যতম বৃহৎ এ বাজারে। এ ব্যবসা কেন্দ্র করে আশুগঞ্জে গড়ে উঠেছে প্রায় ৪ শতাধিক চালকল। এসব চালকলে ক্রাশিংয়ের মাধ্যমে ধান থেকে চাল উৎপাদন করে পাঠানো হয় দেশের বিভিন্ন প্রান্তে।
কিন্ত কয়েক সপ্তাহ ধরে টানা অবরোধের কারণে নাশকতার আশঙ্কায় আশুগঞ্জ থেকে চালবাহী ট্রাক যাচ্ছে না দেশের কোনো প্রান্তেই। ফলে আর্থিকভাবে ক্ষতির স্বীকার হচ্ছেন ব্যবসায়ীরা।
আশুগঞ্জ চালকল মালিক সমিতির সভাপতি জিয়াউল কবীর খান সাজু বলেন, ‘একের পর এক হরতাল অবরোধের কারণে যানবাহনে অগ্নিসংযোগ করা হচ্ছে। এতে পরিবহন মালিক শ্রমিকরা ধান চাল পরিবহনে অস্বীকৃতি জানাচ্ছে। বেড়ে গেছে পরিবহন ভাড়াও। ফলে গুদামে পরে আছে টনের পর টন চাল। এ অবস্থা চলতে থাকলে ভোক্তরা কোথাও চাল পাবে না’।
 
ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি মহিলা কলেজের অর্থনীতি বিভাগের সহকারি অধ্যাপক কাজী জালালউদ্দীন বলেন, ‘হরতাল অবরোধের কারণে আশুগঞ্জ থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানে চাল সরবরাহ বন্ধ থাকায় চালের বাজার অস্থিতিশীল হয়ে পড়েছে। এ অবস্থায় কোথাও চালের দর বেড়ে যাচ্ছে আবার কোথাও কমে যাচ্ছে। ফলে একই দেশে ভিন্ন বাজার দর সৃষ্টি হচ্ছে। যা অর্থনীতির জন্য ক্ষতিকারক’।
 
অবিলম্বে হরতাল অবরোধ বন্ধ না করা হলে শুধু ধান চালের বাজারই নয় দেশের সামগ্রিক অর্থনীতির ক্ষেত্রে বিরূপ প্রভাব পরবে বলে মনে করেন এ অর্থনীতিবিদ।