মঙ্গলবার, ২৯শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

যে কারণে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ডিসিকে ইসির নোটিশ

Election commissionসোমবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেল‍া প্রশাসক ও জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা নূর মোহাম্মদ মজুমদারকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

জাতীয় পার্টির (জাপার) প্রার্থী রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়ার পক্ষ থেকে তাকে প্রতীক বরাদ্দ না দেওয়ার অভিযোগে ইসিতে আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এ নোটিশ দেওয়া হয়।

এনিয়ে জেলাব্যাপী চলছে তুমুল আলোচনা ও সমালোচনা।

জেলা প্রশাসককে ইসির নোটিশ দেওয়ার কারণ খতিয়ে দেখতে দিয়ে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে জানা তথ্য।

জানা যায়, দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ সময় ছিল গত ১৩ ডিসেম্বর বিকেল ৫টা। ওইদিন সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং কর্মকর্তা নূর মোহাম্মদ মজুমদার সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ (সদর-বিজয়নগর) আসন থেকে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী র আ ম উবায়দুল মোক্তাদির চৌধুরী তার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেছেন। (সাংবাদিকদের কাছে এ বক্তব্যের ভিডিও রেকর্ড রয়েছে)

কিন্তু ডিসি পরদিন বলেন ভিন্ন কথা। তিনি জানান, স্বাক্ষর না মেলায় উবায়দুল মোক্তাদির চৌধুরীর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের আবেদন গৃহীত হয়নি।

কিন্তু একই আসনের প্রার্থী জাপার রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়ার প্রত্যাহারের আবেদন না করার পরও তার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার কিভাবে গৃহীত হলো এ নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

অন্যদিকে, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসন (সরাইল-আশুগঞ্জ) থেকে জাপার প্রার্থী অ্যাডভোকেট জিয়াউল হক মৃধা মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নিয়েছেন বলেও সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন ডিসি। কিন্তু পরদিন তিনি সাংবাদিকদের বলেন, জিয়াউল হক মৃধার প্রত্যাহার আবেদন গৃহীত হয়নি।

প্রত্যাহার নিয়ে এমন নাটকীয়তার পর অবশেষে উবায়দুল মোক্তাদির চৌধুরীকে নৌকা ও জিয়াউল হক মৃধাকে লাঙ্গল প্রতীক বরাদ্দ দিয়েছেন এই রিটার্নিং কর্মকর্তা।

স্থানীয়দের ধারণা ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী উম্মে ফাতেমা নাজমা বেগম শিউলী আজাদ হেভিওয়েট না হওয়ায় সেখানে জাপার প্রার্থীকে ঠিক রেখে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ আসনের আওয়ামী লীগের প্রার্থী উবায়দুল মোক্তাদির চৌধুরীর মনোনয়ন বহাল রাখার উদ্দেশ্য চরিতার্থ করতে রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়ার মনোনয়ন প্রত্যাহারের তথ্য দিয়েছেন ডিসি।

এ বিষয়ে রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া সাংবাদিকদের বলেন, বিকেল ৫টার পর তো মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের কোনো সুযোগ নেই, তাহলে আমি কখন মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করলাম। আর যদি রাত ৯টায় প্রত্যাহারের আবেদন করে থাকি তাহলে তা কি করে গৃহীত হলো?