বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

হাইওয়ে রেঁস্তরা বন্ধ, শ্রমিকরা বেকার

hotelযারা বাহারি সব খাবারে প্লেট সাজিয়ে অন্যদের খাওনোয় ব্যস্ত সময় কাটান, টানা অবরোধের কারণে আজ তাদেরই পেট চালানো ‘মুশকিল’ হয়ে পড়েছে। এ অবস্থা আশুগঞ্জের হাইওয়ে রেঁস্তোরাগুলোর। খদ্দেরের অভাবে এগুলো এখন খা খা করছে।

 
অবরোধে মহাসড়কে যাত্রীবাহী গাড়ি চলাচল না করায় রেস্তোরাগুলোতেও কোনো খদ্দের নেই। চেয়ার-টেবিলগুলো উল্টে আছে। গালে হাত দিয়ে বসে আছে মালিক-শ্রমিক।  
 
সরেজমিনে দেখা গেছে,  অবরোধের কারণে সব ধরনের যানচলাচল বন্ধ থাকায় ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের আশুগঞ্জ সোনারামপুর এলাকায় গড়ে উঠা হাইওয়ে রেঁস্তোরা উজান ভাটি,  হোটেল রাজমনি ও বগইর এলাকার হোটেল নিরাপদ ইন বন্ধ রয়েছে। এতে দৈনিক গড়ে প্রায় পাঁচ লক্ষাধিক টাকা ক্ষতি হচ্ছে। এসব রেঁস্তোরায় কাজ করে প্রায় সাত শতাধিক শ্রমিক। তারাও বাড়তি আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।
 
একদিকে জমি ভাড়া, বিদ্যুৎ, গ্যাস বিলে টানাটানি, অন্যদিকে কর্মচারিদের বেতন-ভাতা, আরো আছে নানা খরচ, এসব মেটাতে এখন চোখে অন্ধকার দেখছেন অনেক রেঁস্তোরা মালিক। স্বল্প বেতনের সাত শতাধিক কর্মচারি গ্রাহকের কাছ থেকে বকশিস হিসাবে পান জনপ্রতি দুই থেকে আড়াইশ’ টাকা। এখন তারাও বাড়তি আয় থেকে বঞ্চিত।
 
উজান ভাটি, রাজমনি হোটেল বয় মো. সোহেল, মিজান, গিয়াস ও সুজন বলেন, ‘আমাদের মাসিক বেতন অত্যন্ত কম, গ্রাহকের বকশিসই আয়ের অন্যতম উৎস। রেঁস্তোরা চালু থাকলে প্রতিদিন  দুই থেকে তিনশ’ টাকা বকশিস পাওয়া যায়। এখন আমাদের বড় দুর্দিন যাচ্ছে। আমাদের মতো খেটে খাওয়া মানুষের কথা বিবেচনা করে রাজনৈতিক দলগুলোর উচিত হরতাল বা অবরোধের বিকল্প ভাবা’।
 
হোটেল রাজমনির পরিচালক হাজ্বী জামালউদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘হরতাল অবরোধ কখনও কাম্য নয়, এতে দেশের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। আমরাও আর্থিকভাবে মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি’।
 
হোটেল উজান ভাটি ও হোটেল রাজমনির চেয়ারম্যান একেএম লুৎফর রহমান বাংলামেইলকে বলেন, ‘হাইওয়ে রোডে চলাচলকারী সব পরিবহনের যাত্রীই আমাদের গ্রাহক। হরতাল বা অবরোধে পরিবহন চলাচল বন্ধ থাকলে গ্রাহক থাকেনা। মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি। হরতালের বিকল্প ভাবা উচিত’।