সোমবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

দলের ৫ মন্ত্রী-উপদেষ্টাকে বহিষ্কার করছেন এরশাদ!

Bohiskerনির্বাচনকালীন সরকারের মন্ত্রিসভায় নিজেই দলের সাতজনের নাম প্র¯ত্মাব করেছিলেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। তাঁর কথা মত ছয়জনকে মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী ও একজনকে প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা করা হয়। কিন্তু এখন দলের সিদ্ধান্ত না মানায় পাঁচজন মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী ও একজন উপদেষ্টকে দল থেকে বহিষ্কার করতে যাচ্ছেন এরশাদ। জাপার ঘনিষ্ঠ একটি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র ঢাকাটাইমস টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, নির্বাচনে না যাওয়ার ব্যাপারে এরশাদ যে সিদ্ধাšত্ম নিয়েছেন দলের মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী ও উপদেষ্টারা তা পাশ কাটিয়ে চলছেন। তারা গোপনে সরকারের সঙ্গে আঁতাত করে নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন। মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগে লেখা চিঠি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে ডাকযোগে পাঠানোর পর মন্ত্রিসভার বৈঠকে যোগ দিচ্ছেন দুয়েক জন মন্ত্রী। এসব দিক বিবেচনায় এরশাদ দলের সিদ্ধান্ত অমান্যকারীদের বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এর মধ্যে রয়েছেন, জাতীয় পার্টির সিনিয়র প্রেসিডিয়াম সদস্য ও স্ত্রী রওশন এরশাদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য ও ভাই জিএম কাদের, আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু, মুজিবুল হক চুন্নু ও সালমা ইসলাম।

এরশাদের ঘনিষ্ঠ সূত্র জানায়, এরশাদ তাঁর ঘনিষ্ঠদের কাছে বলেছেন সরকার এক তরফা নির্বাচনে জাতীয় পার্টিকে জোর করে নেয়ার জন্য তাকে চিকিৎসার নামে হাসপাতালে আটকে রেখেছে। এই সুযোগে জাতীয় পার্টির অন্যদের ক্ষমতার লোভ দেখিয়ে নির্বাচনে নিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু এরশাদ নিজে এখনও দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ না নেয়ার সিদ্ধান্তেই আছেন। তিনি চান না তার অবর্তমানে কেউ জাতীয় পার্টির নাম ব্যবহার করে রাজনৈতিক স্বার্থ হাসিল করুক। এসুযোগ না দেয়ার জন্যই দলের অবাধ্যদের বহিষ্কার করতে যাচ্ছেন তিনি। তবে নির্বাচনকালীন সরকারের মন্ত্রিসভায় যাওয়া দলের মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার এখনও এরশাদের সিদ্ধান্তের ওপর আছেন। এরশাদও এই দুঃসময়ে রুহল আমিন হাওলাদারের ওপর আস্থা রাখছেন বলে জানা গেছে।

এদিকে গত কয়েকদিন ধরে শোনা যাচ্ছে চিকিৎসার জন্য এরশাদ বিদেশে যাবেন। তবে দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী ফিরোজ রশিদ বুধবার সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, এরশাদ দেশেই আছেন। তিনি কোথাও যাবেন না।

গত ১২ ডিসেম্বর রাতে বারিধারার প্রেসিডেন্ট পার্ক থেকে র‌্যাব সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদকে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে নিয়ে যায়। এরশাদ ও তার দলের অনেক নেতার দাবি র‌্যাব তাকে আটক করেছে। তবে র‌্যাব তরফে দাবি করা হয়েছে, এরশাদ অসুস্থ বোধ করায় তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঢাকাটাইমস