শনিবার, ২৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

আজ রাতেই ফাঁসি কাদের মোল্লার?

kader molla-12একাত্তরে মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধকারী কাদের মোল্লার ফাঁসির রায় গত মঙ্গলবার রাত বারোটা এক মিনিটে কার্যকর করতে সরকারের সব প্রস্তুতি ছিল। ঘোষিত সময়ের দেড় ঘণ্টা আগে মঙ্গলবার রাত সাড়ে দশটার দিকে তার ফাঁসির কার্যক্রম স্থগিত হয়। ফাঁসির রায় পুনর্বিবেচনার আবেদন আজ বৃহস্পতিবার খারিজ করে দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্ট। ফাঁসি কার্যকরের সব প্রস্তুতি আছে সরকারের। প্রশ্ন আসছে, আজ রাতেই কি কার্যকর হচ্ছে ফাঁসি?

অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম  মুঠোফোনে বলেন, ‘এই আদেশের পর মৃত্যুদণ্ড কার্যকরে আইনগত আর কোন বাধা থাকল না। এখন যে কোনো সময় এটি কার্যকর করা যেতে পারে। আইসিটি আইন অনুযায়ী এই সাজা বাস্তবায়নে জেলকোড প্রযোজ্য হবে না।’

কারাগারের সূত্র জানায়, ‘কাদের মোল্লার ফাঁসির মঞ্চ আগে থেকেই প্রস্তুত। আজ বৃহস্পতিবার তার ফাঁসির রায় পুনর্বিবেচনার আবেদন খারিজ হওয়ায় পরবর্তী করণীয় জানতে কারা কর্তৃপক্ষ সরকারের উচ্চপর্যায়ে যোগাযোগের চেষ্টা করছে। কারাগারের আশপাশ এলাকায় এর মধ্যে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। অতিরিক্ত পুলিশও মোতায়েন করা হয়েছে। কারা কর্তৃপক্ষ ধরে নিয়েছে, আজ রাতেই ফাঁসি কার্যকর হতে পারে।’

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, ‘আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের সারাদেশে সর্তক অবস্থান নেয়া, সহিংসতা প্রতিরোধে প্রস্তুতি নেয়ার লক্ষ্যে আজ দুপুরে নির্দেশ দেয়া হয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে। দুপুরের পর স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী, আইন প্রতিমন্ত্রী এ বিষয়ে বৈঠকে বসবেন। তবে কাদের মোল্লার ফাঁসির রায় কখন কার্যকর হচ্ছে, এ বিষয়ে মন্ত্রণালয় থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্তও পুলিশের শীর্ষ কোনো কর্মকর্তাকে জানানো হয়নি।’

জামায়াতের সহকারি সেক্রেটারি জেনারেল কাদের মোল্লার ফাঁসির ক্ষণ প্রিয় দেশ ডটনেট’র কাছে বলতে রাজি হচ্ছেন না কোনো মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী। তারা বলছেন, ‘যে কোনো সময় ফাঁসি কার্যকর হবে।’

তথ্যমতে, এর আগে গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নির্বাচনকালীন সরকারের আইন প্রতিমন্ত্রী কামরুল ইসলাম, স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শামসুল হক টুকু প্রথা ভেঙে সংবাদ সম্মেলন করে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের সময় জানিয়ে দিয়েছিলেন। তাদের ঘোষণার পর কাদের মোল্লার আইনজীবীরা আপিল বিভাগের চেম্বার বিচারপতির বাসায় গিয়ে রায় বাস্তবায়নের কার্যক্রম স্থগিতের আবেদন করলে আদালত রাষ্ট্রপক্ষের অনুপস্থিতিতে আবেদন মঞ্জুর করেন। ফাঁসি কার্যকরের মতো স্পর্শকাতর বিষয়ে দুই প্রতিমন্ত্রীর ঢাকঢোল পেটানোর পর কার্যকর করার সিদ্ধান্ত নিয়েও তা বাস্তবায়ন করতে পারেনি সরকার।

কাদের মোল্লার পরিবারের সদস্যদের অভিযোগ, ‘সরকার নিয়ম না মেনে তড়িঘড়ি করে এই মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার চেষ্টা করছে।’ তবে তার মামলায় আসামীপক্ষ থেকে রিভিউ দায়েরের কথা বলা হলেও সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় রিভিউ দায়েরের কোনো সুযোগ নেই।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় কারা কর্তৃপক্ষ কাদের মোল্লার ফাঁসির রায় কার্যকরের সিদ্ধান্ত নেয়। রাত বারোটা এক মিনিটে এ ফাঁসি কার্যকর হওয়ার কথা ছিল। রাত সাড়ে দশটায় কাদের মোল্লার আইনজীবীদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বুধবার সকাল সাড়ে দশটা পর্যন্ত মৃত্যুদণ্ড স্থগিত করা হয়। গত ৮ ডিসেম্বর রোববার কাদের মোল্লার মৃত্যু পরোয়ানা জারি করেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল।

এর আগে গত ৫ ফেব্রুয়ারি মানবতাবিরোধী অপরাধে কাদের মোল্লাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২। রায়ে বলা হয়, ‘আসামি আবদুল কাদের মোল্লার বিরুদ্ধে প্রসিকিউশনের ছয়টি অভিযোগের মধ্যে পাঁচটি অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে।’ এর মধ্যে তিনটি অভিযোগে তাকে পনের বছর করে কারাদণ্ড, দু’টি অভিযোগে তাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হয়।

এ জাতীয় আরও খবর