বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

কে হচ্ছেন প্রথম বাংলাদেশি আইডল

Idol২০১৩ সালের ২৮ জুন বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল এসএটিভি’তে যাত্রা করে সঙ্গীতশিল্পী নির্বাচনের শীর্ষস্থানীয় ও সফলতম টিভি শো ‘আইডল’র বাংলাদেশি সংস্করণ ‘বাংলাদেশি আইডল’।

বিভিন্ন রাউন্ডে তীব্র প্রতিযোগিতার লড়াইয়ে শেষ পর্যন্ত টিকে যান সেরা তিন প্রতিযোগী। সৌভাগ্যবান ও মেধাবী এই তিন প্রতিযোগী হলেন মৃন্ময় সিংহ মন্টি, আরিফ রহমান জয় ও মং উ চিং মারমা। এবার অপেক্ষার পালা- এই তিন জনের মধ্যে সেরার মুকুট পরবেন কে? কে হবেন ‘বাংলাদেশি আইডল’? এসব প্রশ্নের উত্তর জানতে চোখ রাখতে হবে এসএটিভিরই পর্দায়, আগামী শুক্রবার (১৩ ডিসেম্বর) রাত ৮টায় অনুষ্ঠেয় গ্র্যান্ড ফিনালে’তে।

সোমবার দুপুরে সেরা তিন প্রতিযোগীকে নিয়ে এসএটিভির গুলশানস্থ কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন এসএটিভির ব্যবস্থাপনা পরিচালক সালাহউদ্দিন আহমেদ, উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক সেলিনা আক্তার, এসএটিভি’র সিইও সৈয়দ সালাউদ্দিন জাকী, ডেল্টা বে’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক মঈনুল হোসেন মুকুল প্রমুখ।

সংবাদ সম্মেলনে ‘বাংলাদেশি আইডল’ প্রসঙ্গে প্রথমে বক্তব্য রাখেন সালাহউদ্দিন আহমেদ।

তিনি বলেন, আমি ৩০ বছর ধরে দেশের মানুষের সেবা করার চেষ্টা করছি। দেশের বিভিন্ন স্থানে এসএ কুরিয়ার ও পার্শ্বেল সার্ভিস’র ব্যবসার মাধ্যমে আমার ব্যবসায়িক পথ চলা শুরু। এরই ধারাবাহিকতায় এসএটিভি।

‘বাংলাদেশি আইডল’ আয়োজন ও প্রচারের জন্য যারা বিভিন্নভাবে পৃষ্ঠপোষকতা করেছেন তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও অভিনন্দন জানিয়ে সালাহউদ্দিন আহমেদ বলেন, অনেক স্বপ্ন নিয়ে আমি এই অনুষ্ঠান প্রচারে আসি। আমি মনে করি, চূড়ান্ত প্রতিযোগিতায় অবর্তীর্ণ হওয়া এই তিনজনই ‘বাংলাদেশি আইডল’।

তিনি আরও বলেন, এ প্রতিযোগিতা থেকে চূড়ান্ত বিজয়ী ঘোষণা হওয়ার পর আমি তাদের প্রথমে বিভাগীয় শহরগুলোতে ও পরে বিশ্বের বিভিন্ন জায়গায় কনসার্টের জন্য নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করবো। একদিন তারাই দেশের নাম আলোকিত করবে।

সংবাদ সম্মেলনে এসএটিভি মানসম্মত বিনোদনমূলক অনুষ্ঠানের পাশাপাশি যেন বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ উপহার দিতে পারে সে বিষয়ে গুরুত্ব দেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, গ্র্যান্ড ফিনালেতে ‘বাংলাদেশি আইডল’ নির্বাচিত হওয়া বিজয়ী পাবেন একটি নিউ ব্র্যান্ড গাড়ি, ১০ লাখ টাকার চেক, উচ্চতর সংগীত প্রশিক্ষণের ব্যয়ভারসহ সর্বমোট এক কোটি টাকা মূল্যমানের পুরস্কার।

এছাড়া, বাংলাদেশি আইডলের সেরা শিল্পীদের নিয়ে বিশ্বভ্রমণসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে কনসার্টের আয়োজন করা হবে।

এক নজরে তিন ‘বাংলাদেশি আইডল’ :

যে তিনজনের দিকে এখন এসএটিভির সঙ্গে পুরো দেশের মানুষ চেয়ে আছে এবার আসা যাক তাদের প্রসঙ্গে।

মৌলভীবাজারের মৃন্ময় সিংহ মন্টি পুরো সিলেট বিভাগেরই গর্ব। কমলগঞ্জ এমএল হাই স্কুল থেকে মাধ্যমিক (এসএসসি) পাশ করে কমলগঞ্জ কলেজেই উচ্চমাধ্যমিক (এইচএসসি) পড়েছেন তিনি। বর্তমানে বিবিএস পড়ছেন কমলগঞ্জ সরকারি কলেজে।

‘বাংলাদেশি আইডল’র দর্শকরা বলে থাকেন, মন্টি যখন গান করেন তখন তার রেশমি চুলগুলো গানের ছন্দে ছন্দেই দোলে।

মন্টি সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘বাংলাদেশি আইডল’র প্লাটফর্মে এসে এখন আমি বলতে পারি, আমার স্বপ্ন অনেকটাই সত্যি হয়েছে। আমি কখনো ভাবতেই পারিনি, এমন একটা পর্যায়ে আসতে পারবো। আমি এসএটিভিসহ সবার কাছে কৃতজ্ঞ।

শৈশবে পিসি সাধনা সিনহার গান শোনা মন্টি গুরু কৃষ্ণধন সিনহার কাছে ক্লাসিক্যাল শিখেছেন। এখনও মনিপুরী ললিতকলা একাডেমিতে গান শিখছেন। তার লক্ষ্য এবার বিজয়ী হয়ে ঘরে ফেরা।

ঢাকার ছেলে আরিফ রহমান জয়। মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শেষ করেছেন খিলগাঁও গভঃমেন্ট হাইস্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে। বর্তমানে হিসাববিজ্ঞান পড়ছেন বাংলাদেশ ওপেন ইউনিভার্সিটিতে।

আরিফ সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘বাংলাদেশি আইডল’-এ এসে আমার স্বপ্নের জায়গাটা অনেক বড় হলো। এমন একটি প্রতিযোগিতা বাংলাদেশে আসুক, এটাই মনে মনে চেয়েছিলাম। আমি এসএটিভি কর্তৃপক্ষ, বিচারকসহ গণমাধ্যমসংশ্লিষ্ট সবার কাছে কৃতজ্ঞ।

এ প্রতিযোগিতায় আসার পেছনে পরিবারের পাশাপাশি আরিফকে উত্সাহ যুগিয়েছেন প্রিয় বন্ধুরা। ‘প্রিজনারস’ নামে গানের একটি দলও রয়েছে আরিফ ও তার বন্ধুদের। ২০০৬ সালের দিকে পাঁচ বন্ধু মিলে দলটির যাত্রা করেছিলেন। এখন অপেক্ষা করছেন প্রথম ‘বাংলাদেশি আইডল’ হিসেবে নিজেকে বিজয়ীর আসনে দেখার।

বান্দরবানের ছেলে মং উচিং মারমা। ‘রাঙামাটি অডিশন’র মাধ্যমে ‘বাংলাদেশি আইডল’-এর সেরা হওয়ার প্রতিযোগিতায় নামেন তিনি। বান্দরবান গভঃমেন্ট হাইস্কুল থেকে মাধ্যমিক ও বান্দরবান গভঃমেন্ট কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিক শেষ করেছেন মং উচিং।

প্রতিযোগিতার পর্বগুলোয় নিজের প্রতিভার স্বাক্ষর রেখে এখন তিনিও নামছেন গ্র্যান্ড ফিনালের স্টেজে। লক্ষ্য বিজয়ীর মুকুট পরা।

বান্দরবানের সাংস্কৃতিক সংগঠন মারমা শিল্পীগোষ্ঠীর ‘চিম্বুক’ নামে একটি গানের দলের সদস্য তিনি। গান গাওয়ার পাশাপাশি খুব ভালো ছবি আঁকেন মং উচিং। দুর্গম পাহাড়ে বেড়ে ওঠা মং উচিং চান ‘বাংলাদেশি আইডল’র মুকুট পরে পাহাড়িদের আনন্দে মাতিয়ে তুলতে।