বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

তারানকো মিশনে সমাধানের লক্ষণ নেই

Taranko-2নির্বাচনকালীন সরকারের প্রধানমন্ত্রী কে থাকবেন এই ইস্যুতে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি যার যার অবস্থানে অনড়। কেউই কাউকে ছাড় দিতে চাচ্ছে না। ফলে ঢাকায় সফররত জাতিসংঘের সহকারী মহাসচিব অস্কার ফার্নান্দেজ তারানকো মিশন ব্যর্থ হওয়ার পথে।

আওয়ামী লীগ স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে, নির্বাচনকালীন সররকারের প্রধান থাকবেন শেখ হাসিনা। এই বিষয়ে তারা কোনো আলোচনা করতে রাজি নয়। অন্যদিকে বিএনপি প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শেখ হাসিনাকে কোনোভাবেই মানতে রাজি নয়। এ বিষয়টি দুই দলই তারানকোকে বলে দিয়েছে।

আরেকটি বিষয় ছিল দশম জাতীয় সংসদের তফসিল পেছানো। এ দাবি বিএনপি ও জাতীয় পার্টির। আওয়ামী লীগ বলেছে, এটা নির্বাচন কমিশনের এখতিয়ার। নির্বাচন কমিশন যদিও প্রকাশ্যে বলছে, দুই দলের সমঝোতা হলেও অনেক কিছুই সম্ভব, কিন্তু ভেতরের খবর হলো তারা তারানকোকে জানিয়ে দিয়েছে বিষয়টি জটিল।

তাছাড়া ইসি ইতিমধ্যে প্রমাণ করেছে সরকারের সিদ্ধান্তের বাইরে তারা কিছু করবেন না বা করতে পারবেন না। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ৩৩ জন আওয়ামী লীগ নেতা ‘নির্বাচিত’ হওয়ায় নতুন তফসিল ঘোষণার বিষয়টি নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে।  ইতিমধ্যেই আওয়ামীপন্থী আইনজীবী ও বুদ্ধিজীবীরা বলতে শুরু করেছেন, এখন আর তফসিল পেছানোর সুযোগ নেই। নির্বাচন কমিশনও নির্বাচনের পুরো প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে।

জানা গেছে, ভোটার আসবে কি আসবে না, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি মোকাবেলা কিভাবে করা হবে তা নিয়ে ভাবছে না নির্বাচন কমিশন। তাদের মনোভাব হলো, যা করার সরকার করবে।

কী হচ্ছে, কোনো সুখবর আছে কি-এটা সবার প্রশ্ন। কিন্তু কেউই এই প্রশ্নের আশাব্যঞ্জক জবাব দিতে পারছেন না। তারানকো সোমবার প্রথমবারের মতো সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বলেছেন, সদিচ্ছা থাকলে সমঝোতা সম্ভব। কিন্তু সেই সদিচ্ছার আভাস কি দেখা যাচ্ছে কোনো দলের মধ্যে। আজই শেষ হচ্ছে তারানকো মিশন। এই মিশনও ব্যর্থ হওয়ার পথে। এরপর কি ভয়াবহ অনিশ্চয়তা ও সংঘাতের দিকে যাচ্ছে জাতি-প্রশ্ন সচেতন নাগরিকদের।

নতুন বার্তা/এসএফ/জবা