বৃহস্পতিবার, ১১ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মাথা গোজারও ঠাঁই নেই নৌ-কমান্ডো ফজলুল হকের

Photoউদ্দেশ্য একটাই, পাকিস্তানিদের অস্ত্র আর খাবারের বড় জাহাজগুলো উড়িয়ে দেওয়া। ব্যস, পেটে ‘লিমপেট মাইন’ গামছা দিয়ে বেঁধে নদীতে ঝাঁপিয়ে পড়েন। তারপর কয়েক কিলোমিটার সাঁতরে গিয়ে আঘাত হানেন পাকিস্তানি জাহাজগুলোতে। জাহাজগুলি ডুবার সঙ্গে সঙ্গেই গোটা বিশ্ব জেনে যায় বীর বাঙালির কৃতিত্ব। বলছিলাম অপারেশন ‍‍‍‍‌‌জ্যাকপটের এক অপারেশনের কথা।

‘আমাদের গোপন সিগন্যাল ছিল সন্ধ্যা মুখোপাধ্যায়ের সেই বিখ্যাত গানের প্রথম কলি আমার পুতুল আজকে প্রথম যাবে শ্বশুরবাড়ি। আমাদের প্রত্যেককে একটা করে কাফনের কাপড় দেওয়া হয়েছিল সহযোদ্ধার মৃত্যু হলে যেন কাফনের কাপড় মুড়িয়ে তাকে কবর দেওয়া যায়।” এভাবেই মুক্তিযোদ্ধা ফজলুল হক ভূঁইয়া ৭১-এর মহান মুক্তিযুদ্ধে ইস্পাতকঠিন সংকল্প আর মনোবলের কথা বর্ণনা করেন।

পাকিস্তান হানাদার বাহিনীকে এদেশ থেকে বিতাড়িত করার জন্য নিজের জীবন বাজি রেখে পেটে মাইন বেঁধে একাধিকবার শত্রুসেনার জাহাজ উড়িয়ে দিয়েছিলেন ফজলুল হকের মতো মুক্তিযোদ্ধারা। সে সময় লিমপেট মাইন দিয়ে বড় বড় জাহাজ উড়িয়ে দিয়েছিলেন বলেই পাকিস্তানের মনোবল অনেকটা ভেঙে যায়। বিশ্ববাসী জানতে পারে, বাংলাদেশে কিছু একটা হয়েছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার বাসুদেব ইউনিয়নের কোড্ডা গ্রামে ফজলুল হক ভূঁইয়ার (৭৫) জন্ম। তিনি ছিলেন একজন চৌকস নৌ-কমান্ডো। মাতৃভূমিকে শত্রুমুক্ত করতে ১৯৭১ সালের ১৩ মে ভারতের মুর্শিদাবাদ জেলার আম্রকাননে সুইসাইডাল স্কোয়াডে নাম লিখিয়েছিলেন। প্রশিক্ষণ শেষে তিনি নারায়ণগঞ্জ নদীবন্দর অপারেশন এবং জামালপুর ফেরিঘাট অপারেশনে অংশ নেন। মিত্রবাহিনীর সঙ্গে একটি ব্রিজও ধ্বংস করেন।

অথচ এই চৌকস নৌকমান্ডো মুক্তিযোদ্ধার এখন দিন কাটছে অনাহারে-অর্ধাহারে। নেই মাথা গোজার এতটুকু স্থান। আখাউড়া পৌরশহরের বড় বাজারে তিতাস নদীর পাড় ঘেষে একখণ্ড পতিত জায়গায় একটি ছোট ছাপড়া ঘর। সেই ঘরেই মুক্তিযোদ্ধা ফজলুল হক ভূঁইয়া দুই মেয়ে ও এক ছেলেকে নিয়ে গাদাগাদি করে থাকেন। একমাত্র ছেলে কুলির কাজ করে সংসার চালায়।  

ফজলুল হক বলেন, আমি আগে ঠেলাগাড়ি চালাতাম। অসুস্থ হয়ে পড়ায় এখন আর পারি না। শরীরে রোগও বাসা বেঁধেছে। মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে আমার কোনো আক্ষেপ নেই। এই স্বাধীন দেশে পরিবারকে নিয়ে থাকার জন্য শুধু একটু মাথা গোজার ঠাঁই চাই।

যে দেশের জন্য জীবন বাজী রেখেছিলেন হাজারো ফজলুল হক সেই স্বাধীন দেশে কি তাদের মাথা গোজার ঠাঁইও হবে না?