মঙ্গলবার, ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

কাদের মোল্লার মৃত্যু পরোয়ানা যাচ্ছে কারাগারে

xnqre-fz1220131208162448ঢাকা: মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে ফাঁসির দণ্ডাদেশপ্রাপ্ত জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল আব্দুল কাদের মোল্লার মৃত্যু পরোয়ানা তৈরি হয়েছে। এ পরোয়ানা ট্রাইব্যুনালের রেজিস্ট্রার কার্যালয় হয়ে পাঠানো হচ্ছে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে।
রোববার বিকেল চারটা ৫ মিনিটে কাদের মোল্লার মৃত্যু পরোয়ানা নিয়ে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের ডেপুটি রেজিস্ট্রার অরুণাভ চক্রবর্তী। এর অনুলিপি তিনি পৌঁছে দেবেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও ঢাকা জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের কাছেও।  
আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২ এ মৃত্যু পরোয়ানা তৈরি করেছেন। কাদের মোল্লাকে ফাঁসির আদেশ দিয়ে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের চূড়ান্ত রায়ের ভিত্তিতে রোববার দুপুরে এ পরোয়ানা তৈরি করেন ট্রাইব্যুনালের তিন বিচারপতি চেয়ারম্যান ওবায়দুল হাসান, বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলাম।
পরে বিচারপতিরা মৃত্যু পরোয়ানায় স্বাক্ষর করে ট্রাইব্যুনালের রেজিস্ট্রার দফতরে পাঠিয়ে দেন। 
ট্রাইব্যুনালের রেজিস্ট্রার এ কে এম নাছির উদ্দিন সাংবাদিকদের জানান, সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের চূড়ান্ত পূর্ণাঙ্গ রায়ের কপি পাওয়ার পরেই সেটি তিনি ট্রাইব্যুনালের তিন বিচারপতির কাছে পাঠিয়ে দেন। তারা এটি যাচাই-বাছাই শেষে আইন অনুসারে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের পরোয়ানা তৈরি করে তাতে স্বাক্ষর করেন। এরপর সেটি রেজিস্ট্রারের দফতরে এসে পৌঁছালে কারা কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। এর অনুলিপি যাচ্ছে জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে।
ট্রাইব্যুনালের রেজিস্ট্রার জানান, আসামির বিরুদ্ধে মৃত্যু পরোয়ানার সঙ্গে অন্যান্য কাগজপত্রও রয়েছে।
এর আগে রোববার বেলা ১২টায় ট্রাইব্যুনালের রেজিস্ট্রার এ কে এম নাছির উদ্দিনের কাছে আপিল বিভাগের রায়ের কপি হস্তান্তর করা হয়। একটি জলপাই রঙের ট্রাঙ্কে রাখা রায়ের কপি তার কাছে হস্তান্তর করেন সুপ্রিম কোর্টের কর্মচারীরা।
সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার একেএম শামসুল ইসলাম জানান, রায়ের অনুলিপি ট্রাইব্যুনালের রেজিস্ট্রার ছাড়াও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, ঢাকা জেলা ম্যাজিস্ট্রেট, কারা মহাপরিদর্শক (আইজি-প্রিজন) ও অ্যাটর্নি জেনারেলের কার্যালয়ে পাঠানো হয়েছে। কনডেম প্রিজনারের পক্ষে রায়ের অনুলিপি গ্রহণ করেছেন আসামিপক্ষের অ্যাডভোকেট অন রেকর্ডস জয়নাল আবেদিন।
কাদের মোল্লাকে ফাঁসির দণ্ড দিয়ে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের চূড়ান্ত এ পূর্ণাঙ্গ রায়টি প্রকাশিত হয়েছে গত বৃহস্পতিবার। ৭৯০ পৃষ্ঠার এ রায়ে ট্রাইব্যুনালের দেওয়া যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ বাড়িয়ে ফাঁসির দণ্ডাদেশ দেন সর্বোচ্চ আদালত।
এদিকে জেল কোড অনুযায়ী মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামির রায়ের সত্যায়িত কপি হাতে পাওয়ার পর সাজা কার্যকরের ক্ষেত্রে ২১ দিনের আগে নয়, আবার ২৮ দিনের পরে নয় সংক্রান্ত যে বিধান রয়েছে, তা কাদের মোল্লার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে না বলে দাবি করছেন রাষ্ট্রপক্ষ। কারণ হিসেবে তারা বলছেন, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল আইনের ২০ (৩) ধারায় বলা হয়েছে, ট্রাইব্যুনালের দেওয়া সাজা কার্যকর করবে সরকার। তাই এক্ষেত্রে সরকারের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত বলে গণ্য হবে।
আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর জেয়াদ আল মালুম বাংলানিউজকে বলেন, রায়ের কপি ট্রাইব্যুনালের রেজিস্ট্রর গ্রহণ করেছেন। রায় কার্যকর  করার জন্য মৃত্যুদণ্ড পরোয়ানায় বিচারপতিরা স্বাক্ষর করবেন। সেই কপি ট্রাইব্যুনালের রেজিস্ট্রার পাঠাবেন ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার কর্তৃপক্ষ, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং ঢাকা জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে।
এরপর জেল কৃর্তৃপক্ষ জেলকোড ৯৯১ অনুযায়ী আসামীকে জিজ্ঞেস করবেন তিনি রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা চাইবেন কিনা। রাষ্ট্রপতি অতি দ্রুত তার সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেবেন।
তবে এর আগে রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার বিষয়ে কাদের মোল্লার বড় ছেলে হাসান জামিল বাংলানিউজকে বলেছেন, তারা রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা চাইবেন না।
গত ১৭ সেপ্টেম্বর প্রধান বিচারপতি মো. মোজাম্মেল হোসেনর নেতৃত্বে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের ৫ বিচারপতির বেঞ্চ সংখ্যাগরিষ্ঠ মতের ভিত্তিতে (৪:১) আব্দুল কাদের মোল্লাকে ফাঁসির দণ্ড দেন। বেঞ্চের অপর বিচারপতিরা হচ্ছেন, বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা, বিচারপতি আব্দুল ওয়াহহাব মিঞা, বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন ও বিচারপতি এএইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরী।
গত ৫ ফেব্রুয়ারি যুদ্ধাপরাধের বিচারে গঠিত আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২ জামায়াত নেতা কাদের মোল্লাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন। এরপর রাজধানীর শাহবাগে গণজাগরণ মঞ্চ তারসহ সকল যুদ্ধাপরাধীর সবোর্চ্চ শাস্তির দাবিতে আন্দোলন করে আসছিলো। এ আন্দোলনের মুখে সরকার আইন পরিবর্তন করে কাদের মোল্লার বিরুদ্ধে আপিল করে। আপিল শুনানি শেষে সুপ্রিম কোর্ট ১৭ সেপ্টেম্বর ট্রাইব্যুনালের দেওয়া যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের সাজা বাড়িয়ে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেন।
যাবজ্জীবন থেকে ফাঁসির আদেশ
গত ৫ ফেব্রুয়ারি ট্রাইব্যুনাল-২ এর দেওয়া রায়ে ৬টি অভিযোগের মধ্যে নিজামীকে ৫টি অপরাধে দায়ী করে দু’টিতে যাবজ্জীবন ও তিনটিতে ১৫ বছর করে কারাদণ্ডাদেশ দেওয়া হয়। একটি অভিযোগ রাষ্ট্রপক্ষ (প্রসিকিউশন)  সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ করতে পারেননি উল্লেখ করে ওই অভিযোগ থেকে তাকে খালাস দেওয়া হয়।
প্রমাণিত অভিযোগগুলোতে সর্বোচ্চ শাস্তি ফাঁসির দণ্ডাদেশ না দেওয়ায় এবং একটি অপরাধের অভিযোগ থেকে খালাস দেওয়ায় সাজা বাড়ানোর লক্ষ্যে এ রায়ের বিরুদ্ধে গত ৩ মার্চ আপিল করেন রাষ্ট্রপক্ষ। আপিলে ওই ৫টি অভিযোগে দেওয়া সাজা অপর্যাপ্ত বলে দাবি করে এবং খালাসের আদেশ বাতিল চেয়ে সর্বোচ্চ দণ্ড ফাঁসির আরজি জানানো হয়।
অন্যদিকে ৪ মার্চ প্রমাণিত সকল অভিযোগ থেকে খালাসের আবেদন জানিয়ে আপিল করেন আব্দুল কাদের মোল্লা।
গত ১ এপ্রিল থেকে শুরু করে ২৩ জুলাই পর্যন্ত আপিল শুনানি ও আমিকাস কিউরিদের মতামত প্রদানের জন্য ৩৯ কার্যদিবস সময় লেগেছে আপিল বিভাগে। এর মধ্যে ১৫ কার্যদিবসে রাষ্ট্রপক্ষ ও ১৮ কার্যদিবসে আসামিপক্ষ শুনানি করেন। আদালত মনোনীত ৭ জন অ্যামিকাস কিউরি তাদের মতামত দিয়েছেন ৬ কার্যদিবসে।
আপিল বিভাগের ১৭ সেপ্টেম্বরের চূড়ান্ত রায়ে কাদের মোল্লার বিরুদ্ধে ৬ নম্বর অভিযোগে সপরিবারে হযরত আলী লস্করকে হত্যার দায়ে ফাঁসির আদেশ দেওয়া হয়েছে। এ অভিযোগটিতে অবশ্য বিভক্ত রায় দিয়েছেন আপিল বিভাগ। ৪ বিচারপতি কাদের মোল্লাকে ফাঁসির রায় দিলেও ১ জন বিচারপতি এতে দ্বিমত প্রকাশ করেছেন। অর্থাৎ, সংখ্যাগরিষ্ঠ বিচারপতির মতের ভিত্তিতে মৃত্যুদণ্ডাদেশ হয়েছে তার।
এছাড়া ৪ নম্বর অভিযোগে ঘাটারচর গণহত্যার দায়ে তার যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ হয়েছে, যে অভিযোগ থেকে ট্রাইব্যুনাল তাকে খালাস দিয়েছিলেন। অন্য অভিযোগগুলোতে ট্রাইব্যুনালের রায় বহাল রেখেছেন আপিল বিভাগ। এর মধ্যে মিরপুরের আলোকদী (আলুব্দী) গ্রামে গণহত্যার দায়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ পেয়েছেন কাদের মোল্লা।
এছাড়া প্রথম অভিযোগ, মিরপুর বাঙলা কলেজের ছাত্র পল্লবকে গুলি করে হত্যার নির্দেশ দেওয়া, দ্বিতীয় অভিযোগ কবি মেহেরুননিসা, তার মা এবং দুই ভাইকে হত্যা এবং তৃতীয় অভিযোগে সাংবাদিক খন্দকার আবু তালেবকে হত্যার দায়ে প্রত্যেকটিতে কাদের মোল্লার বিরুদ্ধে ১৫ বছর করে কারাদণ্ডাদেশ দেওয়া হয়।
ট্রাইব্যুনাল ৫টি অপরাধ প্রমাণিত বললেও অপিল বিভাগের রায়ে ৬টি অভিযোগের প্রত্যেকটি প্রমাণিত হওয়ার কথা বলা হয়েছে।

এ জাতীয় আরও খবর