বৃহস্পতিবার, ১১ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নির্বাচনে পর্যবেক্ষক পাঠাবে না ইইউ

UEবাংলাদেশে নিযুক্ত ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) রাষ্ট্রদূত উইলিয়াম হানা বলেছেন, বাংলাদেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে তারা উদ্বিগ্ন। এ অবস্থার মধ্যে নির্বাচন হলে ইইউ নির্বাচনে পর্যবেক্ষক পাঠাবে না।

 

রেবিবার নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে কমিশনারদের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন প্রভাবশালী এই কূটনীতিক। হানার এই অনুষ্ঠানিক ঘোষণাকে আওয়ামী লীগ সরকারের জন্য কূটনৈতিক বিপর্যয় হিসেবেই দেখছে পর্যবেক্ষক মহর। এতে মহাজোট ও জোটের অংশীদারদের নিয়ে গঠিত সর্বদলীয় সরকারের অধীনে আগামী ৫ জানুয়ারির নির্বাচন নিয়ে অনিশ্চয়তার সৃষ্টি হলো।

 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিরোধীদলের প্রতি ক্রমাগত বিভিন্ন মন্ত্রণালয় সহ এমনকি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বভার দেয়ার আহবান জানিয়ে আন্দোলন রেখে নির্বাচনে ফিরে আসার তাগিদ দিলেও নির্বাহী ক্ষমতার বিন্দুমাত্র ত্যাগ করতে স্বীকার হচ্ছেন না। এর ফলে সংবিধান অনুযায়ী নিরঙ্কুশ ক্ষমতার অধিকারী থেকে এবং নিজে নির্বাচনে অংশ নেয়ার পরিকল্পনায় বিরোধীদল তার উপর আস্থা রাখতে পারছেনা। ফলে সংকট ও সংঘাত ক্রমশ বাড়ছে।

 

২৮ সদস্য বিশিষ্ট বিশ্বের অন্যতম প্রভাবশালী জোট ইউরোপীয় ইউনিয়ন বাংলাদেশের প্রধান বাণিজ্যিক অংশীদার। বাংলাদেশের মোট তৈরি পোশাকের ৬০ ভাগেরও বেশি আমদানি করে ইইউ।

 

সাংবাদিকদের উইলিয়াম হানা বলেন, ‘বাংলাদেশে সব দলের অংশগ্রহণে একটি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হলে তাতে সহযোগিতা করতে চায় ইইউ। কিন্তু বর্তমানে যেভাবে সহিংসতা চলছে তাতে পর্যবেক্ষকদের নিরাপত্তা নিয়ে তারা শঙ্কিত। তাই এ অবস্থা বহাল থাকলে ইইউ আগামী নির্বাচনে কোনো পর্যবেক্ষক পাঠাবে না।’

 

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, আওয়ামী লীগ সরকারের প্রতি দুর্বল প্রতিবেশি ভারত বিতর্কিত অবস্থান নিলেও বাংলাদেশের আগামী সংসদ নির্বাচন নিয়ে ইইউ, যুক্তরাষ্ট্র, জাতিসংঘসহ বিশ্বের প্রায় সব দেশই একই নীতি অনুসরণ করছে। তাদের সবার দাবি সব দলের অংশগ্রহণে একটি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন।

 

ইউরোপীয় ইউনিয়ন পর্যবেক্ষক না পাঠালে পশ্চিমা অন্যান্য দেশ বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্র ও জাতিসংঘ যে নির্বাচনে পর্যবেক্ষক পাঠাবে না তা প্রায় নিশ্চিত। আর এসব দেশ ও সংস্থা পর্যবেক্ষক না পাঠালে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে সেই নির্বাচন কোনো গ্রহনযোগ্যতা পাবে না। এর ফলে নির্বাচন হলেও আšত্মর্জাতিক বিশ্ব থেকে বাংলাদেশ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

 

এেিদক দেশে বিরোধী দলের নজিরবিহীন আন্দোলন এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রত্যাখানের মধ্যে নির্বাচন করা সরকারের জন্য শুধু কঠিন নয়, অসম্ভব হয়ে পড়েছে। রাষ্ট্রপতি এখন পর্যšত্ম সরকারের কাছে বা বিরোধীদলের কাছে কোনো আলোচনার আহবান জানানি। রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ অভিভাবক হিসেবে সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতায় তার ভূমিকা নিয়ে সুশীল সমাজ প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন।

 

বাংলাদেশে নির্বাচন পর্যবেক্ষণে সবচেয়ে বেশি পর্যবেক্ষক পাঠিয়ে থাকে ই্ইউ। ২০০৮ সালে সংসদ নির্বাচনে প্রায় ২০০ আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষক ছিলেন। এর মধ্যে ১০০ জনের মতো এসেছিলেন ইইউ থেকে। নির্বাচন পর্যবেক্ষক না পাঠাতে হানার আনুষ্ঠানিক ঘোষণার আগে শনিবারই আসন্ন নির্বাচনে পর্যবেক্ষক না পাঠানোর ইঙ্গিত দেয় ইইউ।

 

হরতালে সহিংসতা এবং রাজনৈতিক ও মানবাধিকার নেতৃবৃন্দকে গ্রেপ্তারে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্রনীতি বিষয়ক প্রধান ক্যাথেরিন অ্যাশটন।

 

শনিবার সংস্থাটির সদর দফতর ব্রাসেলস থেকে দেয়া এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘২০০৮ সালের নির্বাচনের মতো ইউরোপীয় ইউনিয়ন নির্বাচনী পর্যবেক পাঠাতে প্রস্তুত ছিল। কিন্তু এটি নির্ভর করবে বাংলাদেশের রাজনৈতিক ও নিরাপত্তা পরিস্থিতির ওপর।’

 

এ ক্ষেত্রে সহিংসতার অবসান এবং সংলাপের মাধ্যমে শান্তিপূর্ণ, অংশগ্রহণমূলক, স্বচ্ছ ও বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচনের জন্য রাজনৈতিক সমাধান জরুরি বলে মন্তব্য করেন অ্যাশটন।

 

তিনি বলেন, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি বাংলাদেশে সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে বলে ঘোষণার পরও নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে বড় রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে চলমান এ সংঘাতময় পরিস্থিতিতে ইইউ উদ্বিগ্ন।

 

সংঘাত বন্ধের আহবান জানিয়ে বিবৃতিতে ইইউর বৈদেশিক নীতিবিষয়ক প্রধান বলেন, ‘সহিংসতা ছড়াতে পারে এমন ধরনের পদক্ষেপ থেকে বিরত থাকার জন্য আমরা সব রাজনৈতিক নেতাদের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি। হরতালে সহিংসতা ও সংঘাত এবং রাজনীতিবিদ ও মানবাধিকার কর্মীদের গ্রেপ্তারের ঘটনায় ইইউ উদ্বিগ্ন।’

 

তিনি বলেন, মানবাধিকার এবং মৌলিক গণতান্ত্রিক অধিকার রক্ষায় বাংলাদেশকে এগিয়ে আসতে হবে। গণতান্ত্রিক অধিকার রায় মৌলিক ভূমিকা পালনে সুশীলস মাজের প্রতিনিধিদের সুযোগ নিশ্চিত করতে হবে।

 

বিবৃতিতে মানবাধিকার ও গণতান্ত্রিক রীতির প্রতি শ্রদ্ধাশীল হতে এবং কারাবন্দীদের অধিকার সমুন্নত রাখার জন্য বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।