মঙ্গলবার, ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

তারেক ফিরে এলে সর্বদলীয় সরকার কি করবে?

Tarekপ্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিরোধীদলীয় নেতা বেগম খালেদা জিয়াকে পছন্দসই মন্ত্রণালয় দেয়ার প্র¯ত্মাব দিয়ে তার সর্বদলীয় সরকারে যোগ দেয়ার আহবানের পরও কোনো সাড়া মিলছে না। প্রধানমন্ত্রীর এমন সাড়া লুফে নিয়েছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ থেকে শুরু করে বাম ঘরানার নেতা ও উপদেষ্টারা। একটি অর্থবহ নির্বাচন করাই এখন তাদের কাছে বড় চ্যালেঞ্জ। মহাজোটের অনেক নেতা আশা করছেন, বিএনপি নির্বাচনে আসবে এবং তারা অনেকটা আক্ষেপ করছেন কেনো এখনো বিএনপির পক্ষ থেকে সাড়া পাওয়া যাচ্ছে না।

 

বিএনপি প্রধানমন্ত্রীর এমন আহবানে সাড়া দিলে রাজনৈতিক সংকট কাটাতে বরফ গলা থেকে শুরু করে চাঞ্চল্যকর ঘটনাও ঘটতে পারে। ধরা যাক, বিএনপি সর্বদলীয় সরকারে তারেক জিয়াকে নিতে হবে এমন প্র¯ত্মাব দিয়ে বসলে মহাজোট সরকার কি করবে? রাজনীতিতে শেষ কথা বলে কিছু নেই। যে তারেক জিয়ার বিরুদ্ধে অনেক কাঠ খড় পুড়িয়ে দুর্নীতির অভিযোগ প্রমাণ করা সম্ভব হয়নি সেই তারেক জিয়া সর্বদলীয় সরকারে মন্ত্রী হিসেবে যোগ দিলে তা বাংলাদেশের রাজনীতিকে নাটকীয় পট পরিবর্তন এনে দিতে পারে। সবাই চান নির্বিঘেœ নির্বাচন হোক। হরতাল, জ্বালাও পোড়াও বিরোধীদলের আন্দোলন অবরোধ থেমে যাক, নির্বাচনে উৎসব মুখর হয়ে উঠুক। তো তারেক জিয়া দেশে ফিরে এসে সর্বদলীয় সরকারে যোগ দিলে বিরোধীদল আন্দোলন ফেলে উৎসবে মেতে উঠবে। মহাজোট সরকার বিষয়টি খুব গুরুত্বের সঙ্গে ভাবতে বাধ্য কারণ সংলাপ নিয়ে উভয় পক্ষ এতটাই কাছাকাছি যেন রবীন্দ্রনাথের ছোট গল্প, ‘শেষ হয়ে হইল না শেষের মত’।

 

তারেক জিয়া দেশে সময়মত ফিরে আসবেন এটা বিএনপির নেতারা আগে বলেছেন। কিন্তু নির্বাচনের আগেই যদি তারেক জিয়া ফিরে আসতে চান, তাহলে মহাজোট সরকার বা সর্বদলীয় সরকার বিষয়টিকে কিভাবে নেবেন এটা সাধারণ মানুষের মনেও প্রশ্ন জাগে। অবশ্য তারেক জিয়া ফিরে আসুক, রাজনীতিতে যোগদান করুক, নির্বাচনে তার দলকে সাহায্য করুক এমন অভিপ্রায় এখনো সরকারি দলের কোনো নেতারা বলেননি। যদি তাদের কারো মুখ ফসকে তারেক জিয়াকে ফিরিয়ে আনার প্র¯ত্মাব কোনো অনুষ্ঠানে শোনা যায় তাহলে নির্বাচনী রাজনীতি নতুন মোড় নিতে বাধ্য।

 

প্রধানমন্ত্রীর ছেলে ও তথ্য উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় দেশে এসে সক্রিয়ভাবে রাজনীতি না করলেও নির্বাচনে তার দলকে সাহায্য করছেন। সেদিক থেকে তারেক জিয়া অনেক এগিয়ে আছেন। বস্তুত তারেক জিয়া যখন থেকে তৃণমূল পর্যায়ে বিএনপির নেতাকর্মীদের সংগঠিত করতে শুরু করেন, তখন থেকে হাওয়া ভবনের বিরুদ্ধে আন্দোলন ও ব্যাপক প্রচারণা শুরু হয়। এরপরের ঘটনা প্রবাহ সবাই জানেন। ভারতে রাহুল গান্ধী যেভাবে আগামী দিনে দেশটির নেতৃত্ব দেবেন বলে নিজেকে গড়ে তুলছেন, তাকে তার দল সাহায্য করছে, এমনটি তারেক জিয়া ও সজীব ওয়াজেদ জয়ের ভাগ্যে মেলেনি।

 

তবে এই নির্বাচনের আগে তারেক জিয়া এলে রাজনৈতিক পট পরিবর্তন ঘটবে তাতে কোনো সন্দেহ নেই। দেশের মানুষ সবসময় নতুন কিছু চায়। রাজনৈতিক নেতাদের প্রতি তাদের আস্থার ঘাটতি যেমন আছে তেমনি উৎসাহের কমতি নেই। কিন্তু সত্যিই বাংলাদেশকে এগিয়ে নিতে যদি রাজনীতিকরা চান তাহলে সহনশীল পরিবেশের কোনো বিকল্প নেই।

 

তবে এই সহনশীল পরিবেশে যারা রাজনীতি থেকে ফায়দা লুটতে পারবেন না তারা তারেক জিয়ার আগমনের বিষয়টির বিরোধীতা করতে পারেন। তারা মনে করেন, তারেক জিয়া এলে বিএনপির নেতৃত্বে গণজোয়ার সৃষ্টি হবে। আওয়ামী লীগ নেতা তোফায়েল আহমেদ, রাশেদ খান মেনন, আমীর হোসেন আমু এক বছর আগেও মহাজোট সরকারের মন্ত্রী হবার প্র¯ত্মাব ফিরিয়ে দিলেও এখন তা লুফে নিয়েছেন। নির্বাচনে জয়লাভ করবেন কী না এ বিবেচনা তাদেরকে বিলম্ব ঘটাতে দেয়নি। তারা হয়ত মনে করছেন সর্বদলীয় সরকারের মেয়াদ দীর্ঘ দিন হতে পারে। তা মনে করলে তারেক জিয়া এধরনের সরকারে যোগ দিন তা কি তারা চাইবেন। গণতন্ত্রের স্বার্থে, এক সঙ্গে সংসদে রাজনীতি করার সুবাদে, সংসদকে কার্যকর করার অভিপ্রায়ে তারা হয়ত চাইতেও পারেন তারেক জিয়া দেশে ফিরে আসুক।    

 

তবে তারেক জিয়া এ মুহুর্তে দেশে ফিরে আসুক আর নাই আসুক সর্বদলীয় সরকারে যাতে আরো অনেক রাজনীতিবিদ যোগ দেয় সেজন্যে বিরোধীদলের নেতাদের দ্বারে দ্বারে করাঘাত চলছে। তাতে কাজ হবে আবার কাজ হবেও না। কেউ যোগ দেবেন, কেউ যোগ দেবেন না। ৭০’এর নির্বাচনের সময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বলেছিলেন, গরু ছাগলের মাথা কেনা যায়, মানুষের মাথা কেনা যায় না। হাসানুল হক ইনু, ওবায়দুল কাদের বিএনপিকে সর্বদলীয় মন্ত্রীপরিষদে যোগ দিতে আহ্বান জানিয়েছেন। কিন্তু কেন তারা বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সকল মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করে তাকে সর্বদলীয় মন্ত্রী পরিষদে যোগ দানের নিশ্চয়তা দিচ্ছেন না।

 

রাজনীতিবিদরা যখন দেশের ও মানুষের কল্যাণে তাদের ভবিষ্যৎ বিনির্মানের জন্যে কথা বলেন, তখন মানুষ তা বিশ্বাস করতে চায়। আস্থা রাখতে চায়। কিন্তু তারা বারবার ভগ্ন হৃদয়ে দেখতে পান রাজনীতি তাদের স্বার্থে কাজ করছে না। রাজনৈতিক বিবেচনায় দলীয় নেতা, কর্মী ও সমর্থকরা ব্যাংক, বিমা, বিশ্ববিদ্যালয়, মেডিকেল কলেজ, মাছ ধরার ট্রলার, টেলিযোগাযোগ ব্যবসা থেকে শুরু করে টেলিভিশন, রেডিও সবকিছু পেয়ে যান। তারপর তারা লাইসেন্স বিক্রি করেন কোটি টাকা দরে। ব্যাংক থেকে ঋণ নেয়ার পর কোটি টাকার সুদ মওকুফ হয়ে যায়। খেটে খাওয়া মানুষ তখন হিসেব মিলাতে পারেন না। আগামী নির্বাচন হলে তাদের এ হিসেব সহজে মিলবে এ আশাও তারা করেন না। শুধু তারা যে নিজের চেষ্টায় কিছু করতে চান, তাতে বাধা না পড়লে তাতেই তারা নিজেদের সৌভাগ্যবান মনে করেন। তা সে হরতাল হোক, চাঁদাবাজী হোক, সন্ত্রাস হোক, দুর্নীতি হোক এগুলোর তো আবার সময়ের সঙ্গে সঙ্গে রং বদলে যায়। তারা যখন ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখতে শুরু করেন, তখন ঢাকার বাইরে মোডেমে ইন্টারনেট লাইন না পেলে মেজাজ ঠিক রাখতে না পেরে খি¯িত্ম খেউড় করে ওঠেন।

 

তাই এবার তারেক জিয়া দেশে ফিরে এলে যদি বাংলাদেশে সবাই মিলে মিশে রাজনীতি করে জাতীয় স্বার্থ নিশ্চিত করতে পারেন তাহলে নির্বাচন উপলক্ষে দলে ভেড়ানোর যে রাজনীতি শুরু হয়েছে তাও পূর্ণতা পায়। নির্বাচনের সময় কে কালো, কে সাদা তা রাজনীতিবিদরা চোখে দেখেন না। পোস্টারে, বিলবোর্ডে মোনাজাতে রত এমন ছবি ছাপাতে কার্পণ্য করেন না। যত ঘৃণাই থাকুক, তারা হেসে সেই ঘৃণার মানুষটিকে বুকে টেনে নেন। আশায় বুক বাঁধেন ফের ক্ষমতায় আসতে। এমন দিন যখন শুরু হয়েছে, আর যে কোনো মন্ত্রণালয় দেয়ার উদাত্ত আহবান জানানো হচ্ছে তাহলে দেয়া নেয়ার রাজনীতি মনে হয় তারেক জিয়াকে দিয়েই শুরু করা যায়। বাকিটা কি ঘটে তা দেখতে ভোটারদের কোনো কার্পণ্য নেই, থাকবেও না।