সোমবার, ৩রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৮ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

এরশাদের জাপা ভাঙছে কাল

Ershad-শেষ রক্ষা করতে পারলেন না জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। নির্বাচনে যোগ দেয়ায় তার দলের একটা বড় অংশ যোগ দিতে যাচ্ছে বিএনপিতে। হাসপাতালে অসুস্থ জাপা নেতা কাজী জাফর আহমেদকে দেখতে যেয়ে এরশাদ অনেক অনুনয় বিনয় করেও ভাঙন রোধ করতে পারলেন না। এরশাদ বিএনপিকে এও বলে নসিহত করেছিলেন, ঢিল মারলে পাটকেল খেতে হয়। এরশাদ নিজেও জানেন, প্রত্যেকটি ক্রিয়ার একটি বিপরীত প্রতিক্রিয়া আছে। বিএনপিকে ছাড়া নির্বাচনে যোগ দিলে লোকে তাকে বেঈমান বলবে এমন মšত্মব্য করার দুদিনের মাথায় তিনি যোগ দেন নির্বাচনকালীন সর্বদলীয় সরকারে। বাগিয়ে নেন ৬ মন্ত্রিত্ব। এখন তার দল টিকিয়ে রাখাই দায় হয়ে উঠছে।

 

এখন নির্বাচনকালীন সরকারের যোগ দেয়ায় ক্ষুব্ধ হয়ে দলটির প্রেসিডিয়ামের একটি বড় অংশ যোগ দিতে যাচ্ছে বিরোধী দল বিএনপিতে। মঙ্গলবার সকাল ১১টায় জাতীয় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মলনে করে সেই চমকই দিতে যাচ্ছে পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য হাবিবুর রহমান যুক্তিবাদীর নেতৃত্বে একটি অংশ।

 

সরাসরি না হলেও পরোক্ষভাবে বিএনপিতে যোগ দেয়ার পেছনে কলকাঠি নাড়াচ্ছেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী কাজী জাফর আহমেদ। প্রেসিডিয়াম সদস্য ছাড়াও দলের ভাইস-চেয়ারম্যান, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও জেলা পর্যায়ের একটি বৃহত্তর অংশ বিএনপিতে যোগ দেওয়ার বিষয়ে নীতিগতভাবে সিদ্ধাšত্ম নিয়েছে। তারা এরশাদের উপর ক্ষুব্ধ হয়েই এমন সিদ্ধাšত্ম নিয়েছেন। কারণ তারা কোনোভাবেই চাননি জাতীয় পার্টি ‘সর্বদলীয়’ সরকারে অংশ নিক।

 

এ প্রসঙ্গে জাপার প্রেসিডিয়াম সদস্য হাবিবুর রহমান যুক্তিবাদী বলেন, কাল (মঙ্গলবার) আমরা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন আহ্বান করছি। সেখানেই সবকিছু আপনারা জানতে পারবেন। আগ বাড়িয়ে কিছু বলা ঠিক হবে না। তিনি বলেন, শুধু এতটুকু বলতে চাই। মঙ্গলবার ‘চমক’ দেখতে পারবেন। যা কেউ আশা করেনি, তা-ও দেখা যেতে পারে।

 

কাজী জাফর আহমেদ আপনাদের সঙ্গে আছেন কি না- জানতে চাইলে হাবিবুর রহমান বলেন, ‘সবকিছু আগামীকাল খোলাসা করা হবে। নাটকীয় কিছু ঘটতে যাচ্ছে নিশ্চয়ই। সংবাদ সম্মেলনে আপনি আপনার প্রশ্নের উত্তর খুঁজে পাবেন।’ জাতীয় পার্টির এক কেন্দ্রীয় নেতা বলেন, ‘সংবাদ সম্মেলনে আমাদের বেশ কয়েকজন প্রেসিডিয়াম সদস্য, ভাইস-চেয়ারম্যান, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও জেলা পর্যায়ের নেতারা উপস্থিত থাকবেন।’

 

তিনি বলেন, ‘পার্টির বেশিরভাগ অংশ নির্বাচনকালীন সরকারের অংশ নেয়ায় এরশাদের ওপর ক্ষুব্ধ। স্যার নিজেই বলেছেনÑ আওয়ামী লীগের অধীনে কোনো নির্বাচনে যাবেন না, নির্বাচনে গেলে মানুষ থুথু দিবে। তাহলে এখন এমন কী হলো যে, আওয়ামী লীগের মন্ত্রিসভায় অংশ নিতে হবে?

 

জাতীয় পার্টির প্রভাবশালী ওই নেতা বলেন, ‘তথাকথিত সর্বদলীয় সরকারের অংশ নিতে স্যার আমাদের সঙ্গে একটু কথাও বলেননি। তিনি তার ভাইসহ (জিএম কাদের) কিছু সুবিধাবাদী নেতার ভুল পরামর্শে পুনর্গঠিত মন্ত্রিসভায় অংশ নিয়েছেন।’

 

তিনি বলেন, ‘যেহেতু তিনি আমাদের সঙ্গে আলোচনা করার কোনো গুরুত্ব মনে করেননি, সুতরাং গুরুত্বহীন হয়ে কোনো দল করতে চাই না। যেখানে সম্মানের সঙ্গে থাকতে পারব, সেখানে যাব। আমরা রাজনীতিবিদ, বেঈমান নই।’