সোমবার, ৩রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৮ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিএনপি না এলে তো বসে থাকতে পারি না

ersad bnpজাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, দেশের মানুষ বর্তমান রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা থেকে মুক্তি চায়। মানুষের কল্যাণের কথা বিবেচনা করেই জাতীয় পার্টি নির্বাচনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তিনি বলেন, 'বিএনপিকেও তো আমরা নির্বাচনে আসার আহ্বান জানিয়েছি। কিন্তু তারা না এলে তো আর আমরা বসে থাকতে পারি না।'

 

এরশাদ বলেন, 'জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় এলে দেশকে আরো সমৃদ্ধির পথে নিয়ে যাব। উপজেলা পদ্ধতির সংস্কার করে একে স্থায়ী রূপ দেওয়া হবে। প্রতিটি উপজেলায় আদালত বসানো হবে। প্রশাসন বিকেন্দ্রীকরণের অংশ হিসেবে প্রাদেশিক ব্যবস্থা চালু করা হবে।'

 

বনানীতে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে গতকাল বুধবার দুপুরে একান্ত সাক্ষাৎকারে এরশাদ দেশের বর্তমান রাজনৈতি পরিস্থিতি ও আগামী নির্বাচন নিয়ে কথা বলেন। পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য আজম খান, মেজর (অব) খালিদসহ সিনিয়র কয়েকজন নেতা ওই সময় উপস্থিত ছিলেন।

 

এরশাদ বলেন, 'গণতন্ত্রের জন্য নির্বাচন। নির্বাচন ছাড়া গণতন্ত্র রক্ষা করা যায় না। আমি জেলে বসে নির্বাচন করেছি। মানুষ আমাকে নির্বাচিত করে জেল থেকে বের করেছে। আমি দেশের ও জণগণের জন্য রাজনীতি করি। যে রাজনীতি জণগণের কোনো কল্যাণ করে না আমি সেই রাজনীতিকে বিশ্বাস করি না।'

 

এক প্রশ্নের জবাবে এরশাদ বলেন, 'আমরা আশাকরি প্রধান বিরোধী দল বিএনপি নির্বাচনে আসবে। আমরা এখনো বিএনপিকে নির্বাচনে আসার আহ্বান জানাচ্ছি। আশাকরি বিএনপি দেশের কল্যাণের দিক বিবেচনা করে নির্বাচনে আসবে।'

 

জাপা প্রধান বলেন, নির্বাচন কমিশন বিতর্কিত। তবে যেহেতু নির্বাচন কমিশনের সদস্যরা সাংবিধানিক দায়িত্ব পালন করছেন, তাই তাঁরা সেচ্ছায় পদত্যাগ না করলে জোর করে পদত্যাগ করানো যায় না। তিনি বলেন, 'নির্বাচন সুষ্ঠু করতে এ নির্বাচন কমিশনকে জণগণের আস্থা অর্জন করতে হবে। যে করেই হোক নির্বাচন সুষ্ঠু হতে হবে। আমরা সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য সর্বদলীয় সরকারে যোগ দিয়েছি।'

 

এরশাদ বলেন, 'জাতীয় পার্টি ইসলামী মুল্যবোধে বিশ্বাসী একটি দল। আমরা দেশের ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের কল্যাণে কাজ করতে চাই। জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় এলে ইসলাম ও মুসলমানদের স্বার্থহানি হয় অর্থাৎ ধর্মীয় মূল্যবোধের বিরুদ্ধে যায় এমন কোনো আইন করবে না। সব ধর্মের লোকদের শান্তি ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হবে।'

 

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান বলেন, 'আজ আমাদের দলের নির্বাচনী মনোনয়নের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়েছে। আমি আজ তিনটি আসনের মনোনয়ন ফরম নিয়ে এ কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিকতা শুরু করেছি। নির্বাচনে যাওয়ার ঘোষণায় ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি। অনেক নতুন মুখ আমার দলের নমিনেশন ফরম সংগ্রহ করেছে। আমিও চাই দেশের কল্যাণে নতুনরা এগিয়ে আসুক।' তিনি আরো বলেন, সারা দেশে নির্বাচনী উৎসব শুরু হয়েছে। দেশের প্রতিটি জেলা থেকে আমার দলের প্রার্থী হতে দলে দলে নেতা-কর্মীরা আসছেন। আজও অনেক জেলা থেকে নেতা-কর্মীরা গাড়িবহর নিয়ে নমিনেশন ফরম কেনার জন্য ঢাকায় এসেছেন।

 

এরশাদ বলেন, বিভিন্ন সময় সংসদ সদস্য ছিলেন এমন ৪৯ জন প্রার্থী আমার কাছে জাতীয় পার্টি থেকে নির্বাচন করার ইচ্ছা প্রকাশ করে আবেদন করেছেন।

 

এরশাদ বলেন, 'আমি বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূতদের চিঠি দিয়ে দেশের অবস্থা অবগত করেছি।' তিনি বলেন, 'বিশ্বের ৮৬টি দেশে নির্বাচন পদ্ধতির পরিবর্তন হয়েছে। আমরাও চাই বাংলাদেশে নির্বাচন পদ্ধতির সংস্কার করা হোক।'

 

সাবেক এ রাষ্ট্রপতি বলেন, মানুষ শান্তি চায়। হরতাল অবরোধের নামে জ্বালাও-পোড়াও চায় না। তিনি বলেন, 'রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে আমাদের দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য স্থবির হয়ে পড়েছে। বিদেশে পণ্য রপ্তানি বন্ধ হয়ে গেছে। বাণিজ্য নগরীতে যোগাযোগ প্রায় বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। সীতাকু-ে যেন সড়কে যানজট রোধ করা যাচ্ছে না। গত কয়েক দিনে সেখানে ৫০টিরও বেশি গাড়ি জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে। এ অবস্থা চলতে পারে না।'

 

এরশাদ বলেন, নির্বাচন ছাড়া মানুষের মুক্তি হবে না; শান্তি আসবে না।

 

জাপা চেয়ারম্যান বলেন, 'আমার দলে নির্বাচন নিয়ে কোনো অসন্তোষ নেই। কেউ এমন কথা বলতে পারবে না।' তিনি বলেন, নেতা-কর্মীরা নির্বাচন চান বলেই মনোনয়ন নিতে এমন আগ্রহ তাঁদের মধ্যে। নির্বাচন না করলে দল থাকে না, তাই নির্বাচনে যেতে হবে।'

 

রাষ্ট্রপতির সঙ্গে বিরোধীদলীয় নেতার সাক্ষাৎ প্রসঙ্গে এরশাদ বলেন, 'শুনেছি খালেদা জিয়া রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দেখা করেছেন। তবে তাতে কিছু হবে না। কারণ রাষ্ট্রপতির কোনো ক্ষমতা নেই। সাংবিধানিকভাবে রাষ্ট্রপতিকে কিছু করতে হলে প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন নিতে হয়। তবে আমি আশা করব রাষ্ট্রপতি বিএনপির অভিপ্রায়গুলো প্রধানমন্ত্রীর কাছে তুলে ধরবেন। আশা করি একটি সমঝোতা হবে। সব দলের অংশগ্রহণে নির্বাচন সুষ্ঠু হবে।'

 

উৎসবমুখর পরিবেশে মনোনয়ন ফরম বিক্রি শুরু : দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টির মনোনয়ন ফরম বিক্রি শুরু হয়েছে গতকাল। পার্টির চেয়ারম্যান এরশাদ আনুষ্ঠানিকভাবে ফরম বিক্রি প্রক্রিয়া উদ্বোধন করেন। আগামী ২৫ নভেম্বর পর্যন্ত ফরম কেনা যাবে। গতকাল প্রথম দিনে ১৯২টি ফরম বিক্রি হয়েছে। এসবের মধ্যে এরশাদ ঢাকা-১৭, রংপুর-১ ও রংপুর-৩ আসনের জন্য ফরম নিয়েছেন। এ ছাড়া পটুয়াখালী-১ আসন থেকে পার্টির মহাসচিব এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার, গাজীপুরের কালীগঞ্জ থেকে জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য আজম খান, শ্যামপুর-যাত্রাবাড়ী থেকে সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, গাইবান্ধা থেকে বারিস্টার দিলারা খন্দকার শিল্পী ফরম নিয়েছেন।

 

এবার প্রতিটি ফরমের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১০ হাজার টাকা। ২৪ নভেম্বর বিকেল ৫টা পর্যন্ত এই আবেদন ফরম বিক্রি চলবে। ২৬ নভেম্বরের মধ্যে তা জমা দিতে হবে। ২৭ থেকে ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত প্রার্থীদের সাক্ষাৎকার নেওয়া হবে।

 

মহিলাবিষয়ক উপদেষ্টা : জাতীয় পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ রওশনারা মান্নানকে পার্টি চেয়ারম্যানের মহিলাবিষয়ক উপদেষ্টা করা হয়েছে। জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ দলীয় গঠনতন্ত্রের ৩৯ ধারা মোতাবেক এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। কালের কন্ঠ