বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

নতুন মন্ত্রীরা পেলেন মন্ত্রণালয়

New ministerনির্বাচনকালীন সরকারে মন্ত্রীদের দপ্তর বণ্টন প্রায় চূড়ান্ত হয়েছে। নতুন মন্ত্রীদেরকে এরইমধ্যে তাদের দপ্তর জানিয়ে দেয়া হয়েছে। পুরনো মন্ত্রীদেরও কারও কারও দপ্তর পুনর্বণ্টন করা হয়েছে। দায়িত্ব পূনর্বণ্টন করে আজই প্রজ্ঞাপন জারি হতে পারে বলে জানিয়েছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সূত্র।জাতীয় পার্টির তিন নতুন মন্ত্রীকে স্বাস্থ্য, বিমান ও পর্যটন এবং পানি সম্পদ মন্ত্রণালয় দেয়া হয়েছে। আর দুই প্রতিমন্ত্রী পাচ্ছেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক এবং যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়।

সোমবার বিকালে শপথ নেন ছয়জন নতুন মন্ত্রী এবং দুইজন প্রতিমন্ত্রী। তবে তাদেরকে সেদিন কোনো দপ্তর বুঝিয়ে দেয়া হয়নি। এ নিয়ে গত দুইদিন ধরে ছড়িয়েছে নানা কথা। আবার পুরনো মন্ত্রীদের সবাই প্রধানমন্ত্রীর কাছে পদত্যাগপত্র জমা দিলেও তাদের মধ্যে কারা থাকছেন এবং কারা বাদ পড়ছেন, তাও জানা যায়নি এখনো পর্যন্ত। তবে মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারির পরই সব বিভ্রান্তি দূর হবে বলে মন্তব্য করেছেন একজন মন্ত্রী।

জাতীয় পার্টির মহাসচিব এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার জানিয়েছেন, তাকে বেসরকারি বিমান এবং পর্যটন মন্ত্রীর দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। আনিসুল ইসলাম মাহমুদ পেয়েছেন পানি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব। জি এম কাদের থাকছেন আগের বাণিজ্যমন্ত্রীর দায়িত্বে। রওশন এরশাদ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পেয়েছেন।

জাতীয় পার্টির দুই প্রতিমন্ত্রীর মধ্যে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় দেয়া হয়েছে সালমা ইসলামকে। আর যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ে প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়েছেন মুজিবুল হক চুন্নু।

রুহুল আমিন হাওলাদার জানান, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে নির্বাচনকালীন সরকারে থাকছেন মহীউদ্দীন খান আলমগীরই। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়েও থাকছেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। আর অর্থ মন্ত্রণালয় সামলাবেন আবুল মাল আবদুল মুহিত। যোগাযোগমন্ত্রী হিসেবে ওবায়দুল কাদের এবং রেলমন্ত্রী হিসেবেও থাকছেন মুজিবুল হক।

আওয়ামী লীগের দুই নতুন মন্ত্রীর মধ্যে তোফায়েল আহমেদ পেয়েছেন ভূমি ও শিল্প মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব। আর আমির হোসেন আমুকে দেয়া হয়েছে ত্রাণ, পূর্ত ও খাদ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব।

বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির রাশেদ খান মেননকে দেয়া হয়েছে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব। হাসানুল হক ইনু তার স্বপদে থাকতে পারেন বলে জানা গেছে।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সূত্র জানিয়েছে পুরনো মন্ত্রীদের মধ্যে কারও কারও দপ্তর পুনর্বণ্টন করা হয়েছে। এর মধ্যে দিপু মনির বদলে এ এইচ মাহমুদ আলীকে দেয়া হয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব। এতদিন তিনি দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয় সামলেছেন।

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী হিসেবে থাকছেন ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেনই। এর সঙ্গে নতুন দায়িত্ব হিসেবে তাকে নির্বাচনকালীন সরকারে তাকে সামলাতে হবে শ্রম মন্ত্রণালয়ও।