বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শনিবার সারাদেশে ১৮ দলের বিক্ষোভ

BNP Logoআগামী শনিবার সারাদেশে বিক্ষোভ কর্মসূচির ডাক দিয়েছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোট। বিরোধী দলীয় নেতা খালেদা জিয়ার সঙ্গে বৈঠকের পর বুধবার রাতে গুলশান কার্যালয়ে এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

আটক শীর্ষ নেতাদের মুক্তি ও সারাদেশে পুলিশের সাঁড়াশি গ্রেফতার অভিযানের প্রতিবাদে কর্মসূচি দেওয়া হয়েছে। মির্জা ফখরুল বলেন, তথাকথিত সর্বদলীয় সরকার গঠনের  মন্ত্রীদের পদত্যাগের নামে নাটক করা হয়েছে। এটা জাতির সঙ্গে তামাশা।

বিএনপির শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদেরসহ সারাদেশে পুলিশ যেভাবে আগ্রাসি ভূমিকায় গ্রেফতার অভিযান চালানো হয়েছে তাতে সংলাপের পথ বন্ধ হয়ে গেছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে চলমান আন্দোলনের পরবর্তী কর্মসূচি ১৮ দলের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করে খুব শিগগিরই ঘোষনা করা হবে।

এরআগে ৮৪ ঘন্টার হরতাল শেষ হওয়ার পর বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বুধবার রাত আটটার দিকে গুলশান কার্যালয়ে আসেন। গত শুক্রবারের পর এটাই তাঁর প্রথম নিজের কার্যালয়ে আসা। দলীয় প্রধানের কার্যালয়ে আসার খবরে বিএনপি সিনিয়র নেতারাও গুলশান কার্যালয়ে আসেন। পরে খালেদা জিয়ার সঙ্গে বেশ কয়েকজন আইনজীবী, বুদ্ধিজীবীরাও সাক্ষাত করেছেন। বিএনপি নেতাদের মধ্যে গুলশান কার্যালয়ে আসেন- স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আর এ গণি, আ স ম হান্নান শাহ, ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান, সেলিমা রহমান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ড. ওসমান ফারুক, রিয়াজ রহমান, সাবিহউদ্দিন আহমেদ, আব্দুল কাইয়ুম, এম এ হালিম, ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর। বুদ্ধিজীবীদের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক ড. মনিরুজ্জামান মিয়া, সাবেক সচিব আসাফ উদ দৌলা, সমাজবিজ্ঞানী ড. পিয়াস করিম, অধ্যাপক মাহবুব উল্লাহ ও বিশিষ্ট সাংবাদিক মাহফুজউল্লাহ, শফিক রেহমান। নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের পর খালেদা জিয়া রাত সাড়ে এগারটার দিকে তার কার্যালয় ত্যাগ করেন।

এরপর খালেদা জিয়া বিএনপির সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে সর্বশেষ রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেন। নির্দলীয় সরকারের দাবিতে চলমান আন্দোলন জোরদার করার সিদ্ধান্ত নেন। বৈঠকে উপস্থিত একজন নেতা জানান, সরকার যতই গ্রেফতার নির্যাতন করুক আন্দোলন চালিয়ে যাবেন খালেদা জিয়া। নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি আদায়ে আগামী সপ্তাহের ১৯, ২০ ও ২১ নভেম্বর আবারও দেশব্যাপী হরতাল দেওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে জোটের নেতাদের সঙ্গে আলোচনার পর তা চূড়ান্ত করা হবে।

প্রসঙ্গত,গত শুক্রবার বিএনপির শীর্ষ পাচ নেতাকে আটক করার মধ্য দিয়ে সারাদেশে গ্রেফতার অভিযান চালায় পুলিশ। এর ধারাবাহিকতায় বিরোধী দলীয় নেতার বাসভবন ও কার্যালয়ের সামনে অতিরিক্ত পুলিশ-র‌্যাব মোতায়ন করা হয়। ফলে বিএনপির শীর্ষ নেতাদের মধ্যে গ্রেফতার আতঙ্ক বিরাজ করে। মির্জা ফখরুলসহ বিএনপির শীর্ষ নেতারা আত্মগোপনে চলে যান। এই অবস্থায় গত পাঁচদিন খালেদা জিয়া তার বাসভবনে নেতাকর্মীদের থেকে বিচ্ছিন্ন ছিলেন।

আগামী শনিবার সারাদেশে বিক্ষোভ কর্মসূচির ডাক দিয়েছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোট। বিরোধী দলীয় নেতা খালেদা জিয়ার সঙ্গে বৈঠকের পর বুধবার রাতে গুলশান কার্যালয়ে এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

আটক শীর্ষ নেতাদের মুক্তি ও সারাদেশে পুলিশের সাঁড়াশি গ্রেফতার অভিযানের প্রতিবাদে কর্মসূচি দেওয়া হয়েছে। মির্জা ফখরুল বলেন, তথাকথিত সর্বদলীয় সরকার গঠনের  মন্ত্রীদের পদত্যাগের নামে নাটক করা হয়েছে। এটা জাতির সঙ্গে তামাশা।

বিএনপির শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদেরসহ সারাদেশে পুলিশ যেভাবে আগ্রাসি ভূমিকায় গ্রেফতার অভিযান চালানো হয়েছে তাতে সংলাপের পথ বন্ধ হয়ে গেছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে চলমান আন্দোলনের পরবর্তী কর্মসূচি ১৮ দলের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করে খুব শিগগিরই ঘোষনা করা হবে।

এরআগে ৮৪ ঘন্টার হরতাল শেষ হওয়ার পর বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বুধবার রাত আটটার দিকে গুলশান কার্যালয়ে আসেন। গত শুক্রবারের পর এটাই তাঁর প্রথম নিজের কার্যালয়ে আসা। দলীয় প্রধানের কার্যালয়ে আসার খবরে বিএনপি সিনিয়র নেতারাও গুলশান কার্যালয়ে আসেন। পরে খালেদা জিয়ার সঙ্গে বেশ কয়েকজন আইনজীবী, বুদ্ধিজীবীরাও সাক্ষাত করেছেন। বিএনপি নেতাদের মধ্যে গুলশান কার্যালয়ে আসেন- স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আর এ গণি, আ স ম হান্নান শাহ, ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান, সেলিমা রহমান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ড. ওসমান ফারুক, রিয়াজ রহমান, সাবিহউদ্দিন আহমেদ, আব্দুল কাইয়ুম, এম এ হালিম, ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর। বুদ্ধিজীবীদের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক ড. মনিরুজ্জামান মিয়া, সাবেক সচিব আসাফ উদ দৌলা, সমাজবিজ্ঞানী ড. পিয়াস করিম, অধ্যাপক মাহবুব উল্লাহ ও বিশিষ্ট সাংবাদিক মাহফুজউল্লাহ, শফিক রেহমান। নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের পর খালেদা জিয়া রাত সাড়ে এগারটার দিকে তার কার্যালয় ত্যাগ করেন।

এরপর খালেদা জিয়া বিএনপির সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে সর্বশেষ রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেন। নির্দলীয় সরকারের দাবিতে চলমান আন্দোলন জোরদার করার সিদ্ধান্ত নেন। বৈঠকে উপস্থিত একজন নেতা জানান, সরকার যতই গ্রেফতার নির্যাতন করুক আন্দোলন চালিয়ে যাবেন খালেদা জিয়া। নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি আদায়ে আগামী সপ্তাহের ১৯, ২০ ও ২১ নভেম্বর আবারও দেশব্যাপী হরতাল দেওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে জোটের নেতাদের সঙ্গে আলোচনার পর তা চূড়ান্ত করা হবে।

প্রসঙ্গত,গত শুক্রবার বিএনপির শীর্ষ পাচ নেতাকে আটক করার মধ্য দিয়ে সারাদেশে গ্রেফতার অভিযান চালায় পুলিশ। এর ধারাবাহিকতায় বিরোধী দলীয় নেতার বাসভবন ও কার্যালয়ের সামনে অতিরিক্ত পুলিশ-র‌্যাব মোতায়ন করা হয়। ফলে বিএনপির শীর্ষ নেতাদের মধ্যে গ্রেফতার আতঙ্ক বিরাজ করে। মির্জা ফখরুলসহ বিএনপির শীর্ষ নেতারা আত্মগোপনে চলে যান। এই অবস্থায় গত পাঁচদিন খালেদা জিয়া তার বাসভবনে নেতাকর্মীদের থেকে বিচ্ছিন্ন ছিলেন।

 

আগামী শনিবার সারাদেশে বিক্ষোভ কর্মসূচির ডাক দিয়েছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোট। বিরোধী দলীয় নেতা খালেদা জিয়ার সঙ্গে বৈঠকের পর বুধবার রাতে গুলশান কার্যালয়ে এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

 

 

 

 

আটক শীর্ষ নেতাদের মুক্তি ও সারাদেশে পুলিশের সাঁড়াশি গ্রেফতার অভিযানের প্রতিবাদে কর্মসূচি দেওয়া হয়েছে। মির্জা ফখরুল বলেন, তথাকথিত সর্বদলীয় সরকার গঠনের  মন্ত্রীদের পদত্যাগের নামে নাটক করা হয়েছে। এটা জাতির সঙ্গে তামাশা।

 

বিএনপির শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদেরসহ সারাদেশে পুলিশ যেভাবে আগ্রাসি ভূমিকায় গ্রেফতার অভিযান চালানো হয়েছে তাতে সংলাপের পথ বন্ধ হয়ে গেছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

 

মির্জা ফখরুল বলেন, নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে চলমান আন্দোলনের পরবর্তী কর্মসূচি ১৮ দলের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করে খুব শিগগিরই ঘোষনা করা হবে।

 

এরআগে ৮৪ ঘন্টার হরতাল শেষ হওয়ার পর বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বুধবার রাত আটটার দিকে গুলশান কার্যালয়ে আসেন। গত শুক্রবারের পর এটাই তাঁর প্রথম নিজের কার্যালয়ে আসা। দলীয় প্রধানের কার্যালয়ে আসার খবরে বিএনপি সিনিয়র নেতারাও গুলশান কার্যালয়ে আসেন। পরে খালেদা জিয়ার সঙ্গে বেশ কয়েকজন আইনজীবী, বুদ্ধিজীবীরাও সাক্ষাত করেছেন। বিএনপি নেতাদের মধ্যে গুলশান কার্যালয়ে আসেন- স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আর এ গণি, আ স ম হান্নান শাহ, ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান, সেলিমা রহমান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ড. ওসমান ফারুক, রিয়াজ রহমান, সাবিহউদ্দিন আহমেদ, আব্দুল কাইয়ুম, এম এ হালিম, ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর। বুদ্ধিজীবীদের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক ড. মনিরুজ্জামান মিয়া, সাবেক সচিব আসাফ উদ দৌলা, সমাজবিজ্ঞানী ড. পিয়াস করিম, অধ্যাপক মাহবুব উল্লাহ ও বিশিষ্ট সাংবাদিক মাহফুজউল্লাহ, শফিক রেহমান। নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের পর খালেদা জিয়া রাত সাড়ে এগারটার দিকে তার কার্যালয় ত্যাগ করেন।

 

এরপর খালেদা জিয়া বিএনপির সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে সর্বশেষ রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেন। নির্দলীয় সরকারের দাবিতে চলমান আন্দোলন জোরদার করার সিদ্ধান্ত নেন। বৈঠকে উপস্থিত একজন নেতা জানান, সরকার যতই গ্রেফতার নির্যাতন করুক আন্দোলন চালিয়ে যাবেন খালেদা জিয়া। নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি আদায়ে আগামী সপ্তাহের ১৯, ২০ ও ২১ নভেম্বর আবারও দেশব্যাপী হরতাল দেওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে জোটের নেতাদের সঙ্গে আলোচনার পর তা চূড়ান্ত করা হবে।

 

প্রসঙ্গত,গত শুক্রবার বিএনপির শীর্ষ পাচ নেতাকে আটক করার মধ্য দিয়ে সারাদেশে গ্রেফতার অভিযান চালায় পুলিশ। এর ধারাবাহিকতায় বিরোধী দলীয় নেতার বাসভবন ও কার্যালয়ের সামনে অতিরিক্ত পুলিশ-র‌্যাব মোতায়ন করা হয়। ফলে বিএনপির শীর্ষ নেতাদের মধ্যে গ্রেফতার আতঙ্ক বিরাজ করে। মির্জা ফখরুলসহ বিএনপির শীর্ষ নেতারা আত্মগোপনে চলে যান। এই অবস্থায় গত পাঁচদিন খালেদা জিয়া তার বাসভবনে নেতাকর্মীদের থেকে বিচ্ছিন্ন ছিলেন।
– See more at: http://sheershanews.com/2013/11/13/12102#sthash.GlNAXtnP.dpuf

 

আগামী শনিবার সারাদেশে বিক্ষোভ কর্মসূচির ডাক দিয়েছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোট। বিরোধী দলীয় নেতা খালেদা জিয়ার সঙ্গে বৈঠকের পর বুধবার রাতে গুলশান কার্যালয়ে এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

 

 

 

 

আটক শীর্ষ নেতাদের মুক্তি ও সারাদেশে পুলিশের সাঁড়াশি গ্রেফতার অভিযানের প্রতিবাদে কর্মসূচি দেওয়া হয়েছে। মির্জা ফখরুল বলেন, তথাকথিত সর্বদলীয় সরকার গঠনের  মন্ত্রীদের পদত্যাগের নামে নাটক করা হয়েছে। এটা জাতির সঙ্গে তামাশা।

 

বিএনপির শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদেরসহ সারাদেশে পুলিশ যেভাবে আগ্রাসি ভূমিকায় গ্রেফতার অভিযান চালানো হয়েছে তাতে সংলাপের পথ বন্ধ হয়ে গেছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

 

মির্জা ফখরুল বলেন, নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে চলমান আন্দোলনের পরবর্তী কর্মসূচি ১৮ দলের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করে খুব শিগগিরই ঘোষনা করা হবে।

 

এরআগে ৮৪ ঘন্টার হরতাল শেষ হওয়ার পর বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বুধবার রাত আটটার দিকে গুলশান কার্যালয়ে আসেন। গত শুক্রবারের পর এটাই তাঁর প্রথম নিজের কার্যালয়ে আসা। দলীয় প্রধানের কার্যালয়ে আসার খবরে বিএনপি সিনিয়র নেতারাও গুলশান কার্যালয়ে আসেন। পরে খালেদা জিয়ার সঙ্গে বেশ কয়েকজন আইনজীবী, বুদ্ধিজীবীরাও সাক্ষাত করেছেন। বিএনপি নেতাদের মধ্যে গুলশান কার্যালয়ে আসেন- স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আর এ গণি, আ স ম হান্নান শাহ, ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান, সেলিমা রহমান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ড. ওসমান ফারুক, রিয়াজ রহমান, সাবিহউদ্দিন আহমেদ, আব্দুল কাইয়ুম, এম এ হালিম, ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর। বুদ্ধিজীবীদের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক ড. মনিরুজ্জামান মিয়া, সাবেক সচিব আসাফ উদ দৌলা, সমাজবিজ্ঞানী ড. পিয়াস করিম, অধ্যাপক মাহবুব উল্লাহ ও বিশিষ্ট সাংবাদিক মাহফুজউল্লাহ, শফিক রেহমান। নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের পর খালেদা জিয়া রাত সাড়ে এগারটার দিকে তার কার্যালয় ত্যাগ করেন।

 

এরপর খালেদা জিয়া বিএনপির সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে সর্বশেষ রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেন। নির্দলীয় সরকারের দাবিতে চলমান আন্দোলন জোরদার করার সিদ্ধান্ত নেন। বৈঠকে উপস্থিত একজন নেতা জানান, সরকার যতই গ্রেফতার নির্যাতন করুক আন্দোলন চালিয়ে যাবেন খালেদা জিয়া। নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি আদায়ে আগামী সপ্তাহের ১৯, ২০ ও ২১ নভেম্বর আবারও দেশব্যাপী হরতাল দেওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে জোটের নেতাদের সঙ্গে আলোচনার পর তা চূড়ান্ত করা হবে।

 

প্রসঙ্গত,গত শুক্রবার বিএনপির শীর্ষ পাচ নেতাকে আটক করার মধ্য দিয়ে সারাদেশে গ্রেফতার অভিযান চালায় পুলিশ। এর ধারাবাহিকতায় বিরোধী দলীয় নেতার বাসভবন ও কার্যালয়ের সামনে অতিরিক্ত পুলিশ-র‌্যাব মোতায়ন করা হয়। ফলে বিএনপির শীর্ষ নেতাদের মধ্যে গ্রেফতার আতঙ্ক বিরাজ করে। মির্জা ফখরুলসহ বিএনপির শীর্ষ নেতারা আত্মগোপনে চলে যান। এই অবস্থায় গত পাঁচদিন খালেদা জিয়া তার বাসভবনে নেতাকর্মীদের থেকে বিচ্ছিন্ন ছিলেন।
– See more at: http://sheershanews.com/2013/11/13/12102#sthash.GlNAXtnP.dpuf

 

আগামী শনিবার সারাদেশে বিক্ষোভ কর্মসূচির ডাক দিয়েছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোট। বিরোধী দলীয় নেতা খালেদা জিয়ার সঙ্গে বৈঠকের পর বুধবার রাতে গুলশান কার্যালয়ে এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

 

 

 

 

আটক শীর্ষ নেতাদের মুক্তি ও সারাদেশে পুলিশের সাঁড়াশি গ্রেফতার অভিযানের প্রতিবাদে কর্মসূচি দেওয়া হয়েছে। মির্জা ফখরুল বলেন, তথাকথিত সর্বদলীয় সরকার গঠনের  মন্ত্রীদের পদত্যাগের নামে নাটক করা হয়েছে। এটা জাতির সঙ্গে তামাশা।

 

বিএনপির শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদেরসহ সারাদেশে পুলিশ যেভাবে আগ্রাসি ভূমিকায় গ্রেফতার অভিযান চালানো হয়েছে তাতে সংলাপের পথ বন্ধ হয়ে গেছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

 

মির্জা ফখরুল বলেন, নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে চলমান আন্দোলনের পরবর্তী কর্মসূচি ১৮ দলের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করে খুব শিগগিরই ঘোষনা করা হবে।

 

এরআগে ৮৪ ঘন্টার হরতাল শেষ হওয়ার পর বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বুধবার রাত আটটার দিকে গুলশান কার্যালয়ে আসেন। গত শুক্রবারের পর এটাই তাঁর প্রথম নিজের কার্যালয়ে আসা। দলীয় প্রধানের কার্যালয়ে আসার খবরে বিএনপি সিনিয়র নেতারাও গুলশান কার্যালয়ে আসেন। পরে খালেদা জিয়ার সঙ্গে বেশ কয়েকজন আইনজীবী, বুদ্ধিজীবীরাও সাক্ষাত করেছেন। বিএনপি নেতাদের মধ্যে গুলশান কার্যালয়ে আসেন- স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আর এ গণি, আ স ম হান্নান শাহ, ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান, সেলিমা রহমান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ড. ওসমান ফারুক, রিয়াজ রহমান, সাবিহউদ্দিন আহমেদ, আব্দুল কাইয়ুম, এম এ হালিম, ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর। বুদ্ধিজীবীদের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক ড. মনিরুজ্জামান মিয়া, সাবেক সচিব আসাফ উদ দৌলা, সমাজবিজ্ঞানী ড. পিয়াস করিম, অধ্যাপক মাহবুব উল্লাহ ও বিশিষ্ট সাংবাদিক মাহফুজউল্লাহ, শফিক রেহমান। নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের পর খালেদা জিয়া রাত সাড়ে এগারটার দিকে তার কার্যালয় ত্যাগ করেন।

 

এরপর খালেদা জিয়া বিএনপির সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে সর্বশেষ রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেন। নির্দলীয় সরকারের দাবিতে চলমান আন্দোলন জোরদার করার সিদ্ধান্ত নেন। বৈঠকে উপস্থিত একজন নেতা জানান, সরকার যতই গ্রেফতার নির্যাতন করুক আন্দোলন চালিয়ে যাবেন খালেদা জিয়া। নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি আদায়ে আগামী সপ্তাহের ১৯, ২০ ও ২১ নভেম্বর আবারও দেশব্যাপী হরতাল দেওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে জোটের নেতাদের সঙ্গে আলোচনার পর তা চূড়ান্ত করা হবে।

 

প্রসঙ্গত,গত শুক্রবার বিএনপির শীর্ষ পাচ নেতাকে আটক করার মধ্য দিয়ে সারাদেশে গ্রেফতার অভিযান চালায় পুলিশ। এর ধারাবাহিকতায় বিরোধী দলীয় নেতার বাসভবন ও কার্যালয়ের সামনে অতিরিক্ত পুলিশ-র‌্যাব মোতায়ন করা হয়। ফলে বিএনপির শীর্ষ নেতাদের মধ্যে গ্রেফতার আতঙ্ক বিরাজ করে। মির্জা ফখরুলসহ বিএনপির শীর্ষ নেতারা আত্মগোপনে চলে যান। এই অবস্থায় গত পাঁচদিন খালেদা জিয়া তার বাসভবনে নেতাকর্মীদের থেকে বিচ্ছিন্ন ছিলেন।
– See more at: http://sheershanews.com/2013/11/13/12102#sthash.GlNAXtnP.dpuf

 

আগামী শনিবার সারাদেশে বিক্ষোভ কর্মসূচির ডাক দিয়েছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোট। বিরোধী দলীয় নেতা খালেদা জিয়ার সঙ্গে বৈঠকের পর বুধবার রাতে গুলশান কার্যালয়ে এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

 

 

 

 

আটক শীর্ষ নেতাদের মুক্তি ও সারাদেশে পুলিশের সাঁড়াশি গ্রেফতার অভিযানের প্রতিবাদে কর্মসূচি দেওয়া হয়েছে। মির্জা ফখরুল বলেন, তথাকথিত সর্বদলীয় সরকার গঠনের  মন্ত্রীদের পদত্যাগের নামে নাটক করা হয়েছে। এটা জাতির সঙ্গে তামাশা।

 

বিএনপির শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদেরসহ সারাদেশে পুলিশ যেভাবে আগ্রাসি ভূমিকায় গ্রেফতার অভিযান চালানো হয়েছে তাতে সংলাপের পথ বন্ধ হয়ে গেছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

 

মির্জা ফখরুল বলেন, নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে চলমান আন্দোলনের পরবর্তী কর্মসূচি ১৮ দলের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করে খুব শিগগিরই ঘোষনা করা হবে।

 

এরআগে ৮৪ ঘন্টার হরতাল শেষ হওয়ার পর বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বুধবার রাত আটটার দিকে গুলশান কার্যালয়ে আসেন। গত শুক্রবারের পর এটাই তাঁর প্রথম নিজের কার্যালয়ে আসা। দলীয় প্রধানের কার্যালয়ে আসার খবরে বিএনপি সিনিয়র নেতারাও গুলশান কার্যালয়ে আসেন। পরে খালেদা জিয়ার সঙ্গে বেশ কয়েকজন আইনজীবী, বুদ্ধিজীবীরাও সাক্ষাত করেছেন। বিএনপি নেতাদের মধ্যে গুলশান কার্যালয়ে আসেন- স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আর এ গণি, আ স ম হান্নান শাহ, ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান, সেলিমা রহমান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ড. ওসমান ফারুক, রিয়াজ রহমান, সাবিহউদ্দিন আহমেদ, আব্দুল কাইয়ুম, এম এ হালিম, ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর। বুদ্ধিজীবীদের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক ড. মনিরুজ্জামান মিয়া, সাবেক সচিব আসাফ উদ দৌলা, সমাজবিজ্ঞানী ড. পিয়াস করিম, অধ্যাপক মাহবুব উল্লাহ ও বিশিষ্ট সাংবাদিক মাহফুজউল্লাহ, শফিক রেহমান। নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের পর খালেদা জিয়া রাত সাড়ে এগারটার দিকে তার কার্যালয় ত্যাগ করেন।

 

এরপর খালেদা জিয়া বিএনপির সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে সর্বশেষ রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেন। নির্দলীয় সরকারের দাবিতে চলমান আন্দোলন জোরদার করার সিদ্ধান্ত নেন। বৈঠকে উপস্থিত একজন নেতা জানান, সরকার যতই গ্রেফতার নির্যাতন করুক আন্দোলন চালিয়ে যাবেন খালেদা জিয়া। নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি আদায়ে আগামী সপ্তাহের ১৯, ২০ ও ২১ নভেম্বর আবারও দেশব্যাপী হরতাল দেওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে জোটের নেতাদের সঙ্গে আলোচনার পর তা চূড়ান্ত করা হবে।

 

প্রসঙ্গত,গত শুক্রবার বিএনপির শীর্ষ পাচ নেতাকে আটক করার মধ্য দিয়ে সারাদেশে গ্রেফতার অভিযান চালায় পুলিশ। এর ধারাবাহিকতায় বিরোধী দলীয় নেতার বাসভবন ও কার্যালয়ের সামনে অতিরিক্ত পুলিশ-র‌্যাব মোতায়ন করা হয়। ফলে বিএনপির শীর্ষ নেতাদের মধ্যে গ্রেফতার আতঙ্ক বিরাজ করে। মির্জা ফখরুলসহ বিএনপির শীর্ষ নেতারা আত্মগোপনে চলে যান। এই অবস্থায় গত পাঁচদিন খালেদা জিয়া তার বাসভবনে নেতাকর্মীদের থেকে বিচ্ছিন্ন ছিলেন।
– See more at: http://sheershanews.com/2013/11/13/12102#sthash.GlNAXtnP.dpuf

 

আগামী শনিবার সারাদেশে বিক্ষোভ কর্মসূচির ডাক দিয়েছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোট। বিরোধী দলীয় নেতা খালেদা জিয়ার সঙ্গে বৈঠকের পর বুধবার রাতে গুলশান কার্যালয়ে এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

 

 

 

 

আটক শীর্ষ নেতাদের মুক্তি ও সারাদেশে পুলিশের সাঁড়াশি গ্রেফতার অভিযানের প্রতিবাদে কর্মসূচি দেওয়া হয়েছে। মির্জা ফখরুল বলেন, তথাকথিত সর্বদলীয় সরকার গঠনের  মন্ত্রীদের পদত্যাগের নামে নাটক করা হয়েছে। এটা জাতির সঙ্গে তামাশা।

 

বিএনপির শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদেরসহ সারাদেশে পুলিশ যেভাবে আগ্রাসি ভূমিকায় গ্রেফতার অভিযান চালানো হয়েছে তাতে সংলাপের পথ বন্ধ হয়ে গেছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

 

মির্জা ফখরুল বলেন, নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে চলমান আন্দোলনের পরবর্তী কর্মসূচি ১৮ দলের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করে খুব শিগগিরই ঘোষনা করা হবে।

 

এরআগে ৮৪ ঘন্টার হরতাল শেষ হওয়ার পর বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বুধবার রাত আটটার দিকে গুলশান কার্যালয়ে আসেন। গত শুক্রবারের পর এটাই তাঁর প্রথম নিজের কার্যালয়ে আসা। দলীয় প্রধানের কার্যালয়ে আসার খবরে বিএনপি সিনিয়র নেতারাও গুলশান কার্যালয়ে আসেন। পরে খালেদা জিয়ার সঙ্গে বেশ কয়েকজন আইনজীবী, বুদ্ধিজীবীরাও সাক্ষাত করেছেন। বিএনপি নেতাদের মধ্যে গুলশান কার্যালয়ে আসেন- স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আর এ গণি, আ স ম হান্নান শাহ, ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান, সেলিমা রহমান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ড. ওসমান ফারুক, রিয়াজ রহমান, সাবিহউদ্দিন আহমেদ, আব্দুল কাইয়ুম, এম এ হালিম, ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর। বুদ্ধিজীবীদের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক ড. মনিরুজ্জামান মিয়া, সাবেক সচিব আসাফ উদ দৌলা, সমাজবিজ্ঞানী ড. পিয়াস করিম, অধ্যাপক মাহবুব উল্লাহ ও বিশিষ্ট সাংবাদিক মাহফুজউল্লাহ, শফিক রেহমান। নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের পর খালেদা জিয়া রাত সাড়ে এগারটার দিকে তার কার্যালয় ত্যাগ করেন।

 

এরপর খালেদা জিয়া বিএনপির সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে সর্বশেষ রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেন। নির্দলীয় সরকারের দাবিতে চলমান আন্দোলন জোরদার করার সিদ্ধান্ত নেন। বৈঠকে উপস্থিত একজন নেতা জানান, সরকার যতই গ্রেফতার নির্যাতন করুক আন্দোলন চালিয়ে যাবেন খালেদা জিয়া। নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি আদায়ে আগামী সপ্তাহের ১৯, ২০ ও ২১ নভেম্বর আবারও দেশব্যাপী হরতাল দেওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে জোটের নেতাদের সঙ্গে আলোচনার পর তা চূড়ান্ত করা হবে।

 

প্রসঙ্গত,গত শুক্রবার বিএনপির শীর্ষ পাচ নেতাকে আটক করার মধ্য দিয়ে সারাদেশে গ্রেফতার অভিযান চালায় পুলিশ। এর ধারাবাহিকতায় বিরোধী দলীয় নেতার বাসভবন ও কার্যালয়ের সামনে অতিরিক্ত পুলিশ-র‌্যাব মোতায়ন করা হয়। ফলে বিএনপির শীর্ষ নেতাদের মধ্যে গ্রেফতার আতঙ্ক বিরাজ করে। মির্জা ফখরুলসহ বিএনপির শীর্ষ নেতারা আত্মগোপনে চলে যান। এই অবস্থায় গত পাঁচদিন খালেদা জিয়া তার বাসভবনে নেতাকর্মীদের থেকে বিচ্ছিন্ন ছিলেন।
– See more at: http://sheershanews.com/2013/11/13/12102#sthash.GlNAXtnP.dpuf

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আগামী শনিবার সারাদেশে বিক্ষোভ কর্মসূচির ডাক দিয়েছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোট। বিরোধী দলীয় নেতা খালেদা জিয়ার সঙ্গে বৈঠকের পর বুধবার রাতে গুলশান কার্যালয়ে এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

 

 

 

 

আটক শীর্ষ নেতাদের মুক্তি ও সারাদেশে পুলিশের সাঁড়াশি গ্রেফতার অভিযানের প্রতিবাদে কর্মসূচি দেওয়া হয়েছে। মির্জা ফখরুল বলেন, তথাকথিত সর্বদলীয় সরকার গঠনের  মন্ত্রীদের পদত্যাগের নামে নাটক করা হয়েছে। এটা জাতির সঙ্গে তামাশা।

 

বিএনপির শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদেরসহ সারাদেশে পুলিশ যেভাবে আগ্রাসি ভূমিকায় গ্রেফতার অভিযান চালানো হয়েছে তাতে সংলাপের পথ বন্ধ হয়ে গেছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

 

মির্জা ফখরুল বলেন, নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে চলমান আন্দোলনের পরবর্তী কর্মসূচি ১৮ দলের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করে খুব শিগগিরই ঘোষনা করা হবে।

 

এরআগে ৮৪ ঘন্টার হরতাল শেষ হওয়ার পর বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বুধবার রাত আটটার দিকে গুলশান কার্যালয়ে আসেন। গত শুক্রবারের পর এটাই তাঁর প্রথম নিজের কার্যালয়ে আসা। দলীয় প্রধানের কার্যালয়ে আসার খবরে বিএনপি সিনিয়র নেতারাও গুলশান কার্যালয়ে আসেন। পরে খালেদা জিয়ার সঙ্গে বেশ কয়েকজন আইনজীবী, বুদ্ধিজীবীরাও সাক্ষাত করেছেন। বিএনপি নেতাদের মধ্যে গুলশান কার্যালয়ে আসেন- স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আর এ গণি, আ স ম হান্নান শাহ, ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান, সেলিমা রহমান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ড. ওসমান ফারুক, রিয়াজ রহমান, সাবিহউদ্দিন আহমেদ, আব্দুল কাইয়ুম, এম এ হালিম, ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর। বুদ্ধিজীবীদের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক ড. মনিরুজ্জামান মিয়া, সাবেক সচিব আসাফ উদ দৌলা, সমাজবিজ্ঞানী ড. পিয়াস করিম, অধ্যাপক মাহবুব উল্লাহ ও বিশিষ্ট সাংবাদিক মাহফুজউল্লাহ, শফিক রেহমান। নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের পর খালেদা জিয়া রাত সাড়ে এগারটার দিকে তার কার্যালয় ত্যাগ করেন।

 

এরপর খালেদা জিয়া বিএনপির সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে সর্বশেষ রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেন। নির্দলীয় সরকারের দাবিতে চলমান আন্দোলন জোরদার করার সিদ্ধান্ত নেন। বৈঠকে উপস্থিত একজন নেতা জানান, সরকার যতই গ্রেফতার নির্যাতন করুক আন্দোলন চালিয়ে যাবেন খালেদা জিয়া। নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি আদায়ে আগামী সপ্তাহের ১৯, ২০ ও ২১ নভেম্বর আবারও দেশব্যাপী হরতাল দেওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে জোটের নেতাদের সঙ্গে আলোচনার পর তা চূড়ান্ত করা হবে।

 

প্রসঙ্গত,গত শুক্রবার বিএনপির শীর্ষ পাচ নেতাকে আটক করার মধ্য দিয়ে সারাদেশে গ্রেফতার অভিযান চালায় পুলিশ। এর ধারাবাহিকতায় বিরোধী দলীয় নেতার বাসভবন ও কার্যালয়ের সামনে অতিরিক্ত পুলিশ-র‌্যাব মোতায়ন করা হয়। ফলে বিএনপির শীর্ষ নেতাদের মধ্যে গ্রেফতার আতঙ্ক বিরাজ করে। মির্জা ফখরুলসহ বিএনপির শীর্ষ নেতারা আত্মগোপনে চলে যান। এই অবস্থায় গত পাঁচদিন খালেদা জিয়া তার বাসভবনে নেতাকর্মীদের থেকে বিচ্ছিন্ন ছিলেন।
– See more at: http://sheershanews.com/2013/11/13/12102#sthash.GlNAXtnP.dpuf

 

আগামী শনিবার সারাদেশে বিক্ষোভ কর্মসূচির ডাক দিয়েছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোট। বিরোধী দলীয় নেতা খালেদা জিয়ার সঙ্গে বৈঠকের পর বুধবার রাতে গুলশান কার্যালয়ে এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

 

 

 

 

আটক শীর্ষ নেতাদের মুক্তি ও সারাদেশে পুলিশের সাঁড়াশি গ্রেফতার অভিযানের প্রতিবাদে কর্মসূচি দেওয়া হয়েছে। মির্জা ফখরুল বলেন, তথাকথিত সর্বদলীয় সরকার গঠনের  মন্ত্রীদের পদত্যাগের নামে নাটক করা হয়েছে। এটা জাতির সঙ্গে তামাশা।

 

বিএনপির শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদেরসহ সারাদেশে পুলিশ যেভাবে আগ্রাসি ভূমিকায় গ্রেফতার অভিযান চালানো হয়েছে তাতে সংলাপের পথ বন্ধ হয়ে গেছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

 

মির্জা ফখরুল বলেন, নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে চলমান আন্দোলনের পরবর্তী কর্মসূচি ১৮ দলের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করে খুব শিগগিরই ঘোষনা করা হবে।

 

এরআগে ৮৪ ঘন্টার হরতাল শেষ হওয়ার পর বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বুধবার রাত আটটার দিকে গুলশান কার্যালয়ে আসেন। গত শুক্রবারের পর এটাই তাঁর প্রথম নিজের কার্যালয়ে আসা। দলীয় প্রধানের কার্যালয়ে আসার খবরে বিএনপি সিনিয়র নেতারাও গুলশান কার্যালয়ে আসেন। পরে খালেদা জিয়ার সঙ্গে বেশ কয়েকজন আইনজীবী, বুদ্ধিজীবীরাও সাক্ষাত করেছেন। বিএনপি নেতাদের মধ্যে গুলশান কার্যালয়ে আসেন- স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আর এ গণি, আ স ম হান্নান শাহ, ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান, সেলিমা রহমান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ড. ওসমান ফারুক, রিয়াজ রহমান, সাবিহউদ্দিন আহমেদ, আব্দুল কাইয়ুম, এম এ হালিম, ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর। বুদ্ধিজীবীদের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক ড. মনিরুজ্জামান মিয়া, সাবেক সচিব আসাফ উদ দৌলা, সমাজবিজ্ঞানী ড. পিয়াস করিম, অধ্যাপক মাহবুব উল্লাহ ও বিশিষ্ট সাংবাদিক মাহফুজউল্লাহ, শফিক রেহমান। নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের পর খালেদা জিয়া রাত সাড়ে এগারটার দিকে তার কার্যালয় ত্যাগ করেন।

 

এরপর খালেদা জিয়া বিএনপির সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে সর্বশেষ রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেন। নির্দলীয় সরকারের দাবিতে চলমান আন্দোলন জোরদার করার সিদ্ধান্ত নেন। বৈঠকে উপস্থিত একজন নেতা জানান, সরকার যতই গ্রেফতার নির্যাতন করুক আন্দোলন চালিয়ে যাবেন খালেদা জিয়া। নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি আদায়ে আগামী সপ্তাহের ১৯, ২০ ও ২১ নভেম্বর আবারও দেশব্যাপী হরতাল দেওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে জোটের নেতাদের সঙ্গে আলোচনার পর তা চূড়ান্ত করা হবে।

 

প্রসঙ্গত,গত শুক্রবার বিএনপির শীর্ষ পাচ নেতাকে আটক করার মধ্য দিয়ে সারাদেশে গ্রেফতার অভিযান চালায় পুলিশ। এর ধারাবাহিকতায় বিরোধী দলীয় নেতার বাসভবন ও কার্যালয়ের সামনে অতিরিক্ত পুলিশ-র‌্যাব মোতায়ন করা হয়। ফলে বিএনপির শীর্ষ নেতাদের মধ্যে গ্রেফতার আতঙ্ক বিরাজ করে। মির্জা ফখরুলসহ বিএনপির শীর্ষ নেতারা আত্মগোপনে চলে যান। এই অবস্থায় গত পাঁচদিন খালেদা জিয়া তার বাসভবনে নেতাকর্মীদের থেকে বিচ্ছিন্ন ছিলেন।
– See more at: http://sheershanews.com/2013/11/13/12102#sthash.GlNAXtnP.dpuf

 

 

 

আগামী শনিবার সারাদেশে বিক্ষোভ কর্মসূচির ডাক দিয়েছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোট। বিরোধী দলীয় নেতা খালেদা জিয়ার সঙ্গে বৈঠকের পর বুধবার রাতে গুলশান কার্যালয়ে এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

 

 

 

 

আটক শীর্ষ নেতাদের মুক্তি ও সারাদেশে পুলিশের সাঁড়াশি গ্রেফতার অভিযানের প্রতিবাদে কর্মসূচি দেওয়া হয়েছে। মির্জা ফখরুল বলেন, তথাকথিত সর্বদলীয় সরকার গঠনের  মন্ত্রীদের পদত্যাগের নামে নাটক করা হয়েছে। এটা জাতির সঙ্গে তামাশা।

 

বিএনপির শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদেরসহ সারাদেশে পুলিশ যেভাবে আগ্রাসি ভূমিকায় গ্রেফতার অভিযান চালানো হয়েছে তাতে সংলাপের পথ বন্ধ হয়ে গেছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

 

মির্জা ফখরুল বলেন, নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে চলমান আন্দোলনের পরবর্তী কর্মসূচি ১৮ দলের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করে খুব শিগগিরই ঘোষনা করা হবে।

 

এরআগে ৮৪ ঘন্টার হরতাল শেষ হওয়ার পর বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বুধবার রাত আটটার দিকে গুলশান কার্যালয়ে আসেন। গত শুক্রবারের পর এটাই তাঁর প্রথম নিজের কার্যালয়ে আসা। দলীয় প্রধানের কার্যালয়ে আসার খবরে বিএনপি সিনিয়র নেতারাও গুলশান কার্যালয়ে আসেন। পরে খালেদা জিয়ার সঙ্গে বেশ কয়েকজন আইনজীবী, বুদ্ধিজীবীরাও সাক্ষাত করেছেন। বিএনপি নেতাদের মধ্যে গুলশান কার্যালয়ে আসেন- স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আর এ গণি, আ স ম হান্নান শাহ, ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান, সেলিমা রহমান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ড. ওসমান ফারুক, রিয়াজ রহমান, সাবিহউদ্দিন আহমেদ, আব্দুল কাইয়ুম, এম এ হালিম, ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর। বুদ্ধিজীবীদের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক ড. মনিরুজ্জামান মিয়া, সাবেক সচিব আসাফ উদ দৌলা, সমাজবিজ্ঞানী ড. পিয়াস করিম, অধ্যাপক মাহবুব উল্লাহ ও বিশিষ্ট সাংবাদিক মাহফুজউল্লাহ, শফিক রেহমান। নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের পর খালেদা জিয়া রাত সাড়ে এগারটার দিকে তার কার্যালয় ত্যাগ করেন।

 

এরপর খালেদা জিয়া বিএনপির সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে সর্বশেষ রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেন। নির্দলীয় সরকারের দাবিতে চলমান আন্দোলন জোরদার করার সিদ্ধান্ত নেন। বৈঠকে উপস্থিত একজন নেতা জানান, সরকার যতই গ্রেফতার নির্যাতন করুক আন্দোলন চালিয়ে যাবেন খালেদা জিয়া। নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি আদায়ে আগামী সপ্তাহের ১৯, ২০ ও ২১ নভেম্বর আবারও দেশব্যাপী হরতাল দেওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে জোটের নেতাদের সঙ্গে আলোচনার পর তা চূড়ান্ত করা হবে।

 

প্রসঙ্গত,গত শুক্রবার বিএনপির শীর্ষ পাচ নেতাকে আটক করার মধ্য দিয়ে সারাদেশে গ্রেফতার অভিযান চালায় পুলিশ। এর ধারাবাহিকতায় বিরোধী দলীয় নেতার বাসভবন ও কার্যালয়ের সামনে অতিরিক্ত পুলিশ-র‌্যাব মোতায়ন করা হয়। ফলে বিএনপির শীর্ষ নেতাদের মধ্যে গ্রেফতার আতঙ্ক বিরাজ করে। মির্জা ফখরুলসহ বিএনপির শীর্ষ নেতারা আত্মগোপনে চলে যান। এই অবস্থায় গত পাঁচদিন খালেদা জিয়া তার বাসভবনে নেতাকর্মীদের থেকে বিচ্ছিন্ন ছিলেন।
– See more at: http://sheershanews.com/2013/11/13/12102#sthash.GlNAXtnP.dpuf