বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

কাশিমপুর ভিআইপি সেলে মওদুদ, আনোয়ার রফিক ও মিন্টু

Kasimpur Jalপুলিশের ওপর হামলা, গাড়ি পোড়ানো ও ভাঙচুরের মামলায় বিএনপির শীর্ষ ৫ নেতাকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার এবং গাজীপুরের কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগারে রাখা হয়েছে। এরা হচ্ছেনÑ বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ, এমকে আনোয়ার ও রফিকুল ইসলাম মিয়া, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুল আউয়াল মিন্টু এবং বিশেষ সহকারী শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস। এর মধ্যে বিএনপির শীর্ষ নেতা মওদুদ আহমেদ, এমকে আনোয়ার এবং ব্যবসায়ী সংগঠনের নেতা আবদুল আউয়াল মিন্টুকে গাজীপুরের কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগারের এক নম্বর ইউনিটে ভিআইপি সেলে রাখা হয়েছে। এছাড়া বিএনপির শীর্ষ নেতা ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়াকে গাজীপুরের কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগারের দুই নম্বর ইউনিটের ভিআইপি সেলে পাঠানো হয়েছে। অপর বিএনপি নেতা শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাসকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের সাধারণ সেলে রাখা হয়েছে। এবিষয়ে কাশিমপুর কারাগারের কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর কবির জানান, কারাগারে আটক বিএনপিনেতা মওদুদ আহমেদ, এমকে আনোয়ার এবং আবদুল আউয়াল মিন্টুকে ভিআইপি সেলে দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়াকে ইউনিট দুইয়ের ভিআইপি সেলে রাখা হয়েছে। ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে রাত সাড়ে ৮টায় প্রিজন ভ্যানে করে আটক বিএনপির ৪ নেতাকে কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে আসা হয়। কারাগার হাসপাতাল চিকিৎসক কারা ফটকে তাদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার পর রেজিস্টার সম্পন্ন করে। এরপরই তাদের ভিআইপি সেলে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। রাতে তাদের চিকন চালের ভাত, মাছ, সবজি এবং ডাল খেতে দেওয়া হয়েছে। আটক ৪ বিএনপিনেতা সুস্থ এবং ভালো আছেন বলে কর্মকর্তা জানান।

অপরদিকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার মাহবুবুর রহমান জানান, বিএনপিনেতা শিমুল বিশ্বাসকে ১০ সেলের একটি কক্ষে রাখা হয়েছে। রাতে তাকে সাধারণ খাবার দেওয়া হয়েছে। তিনি ভলো আছেন বলে জানান জেলার।

হরতালের ঘোষণা দেওয়ার পর আটক এই ৫ নেতাকে নিয়ে শনিবার দুপুরে প্রিজন ভ্যানে করে পুরান ঢাকার আদালতে নেওয়া হয়। আদালত আটক বিএনপিনেতাদের পক্ষে জামিন নাকচ করে ঢাকা মহানগর হাকিম তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

পুলিশের ওপর হামলা, গাড়ি ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় গত ২৪ সেপ্টেম্বর ও ৫ নভেম্বর মতিঝিল থানায় দায়ের করা দুটি মামলায় পরিকল্পনাকারী ও নির্দেশদাতা হিসেবে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমেদ, এম কে আনোয়ার ও রফিকুল ইসলাম মিয়া, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুল আউয়াল মিন্টু এবং বিশেষ সহকারী শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাসকে আসামি করা হয়।