মঙ্গলবার, ২১শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কেমন ছিল জিম্মিদশার দিনগুলো, জানালেন জাহাজের ক্যাপ্টেন রশিদ

news-image

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি : এমভি আবদুল্লাহ জাহাজের মাস্টার ক্যাপ্টেন মোহাম্মদ আবদুর রশিদ বললেন, ‘জলদস্যুরা প্রত্যেকে ভারী অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত ছিল। ওদের কারও হাতে ছিল রকেট লঞ্চার। কারও হাতে ছিল মেশিন গান। একে-৪৭, এম-সিক্সটিনসহ নানা রকমের অস্ত্র ছিল সবার হাতে। এই জীবনে একসঙ্গে এত অস্ত্র দেখিনি কখনও। এগুলো যখন মাথার ওপর তাক করে রাখতো তারা মনে হতো আজই মনে হয় জীবনের শেষ দিন।’

জিম্মি অবস্থায় কাটানো ৩২ দিনের নানা ঘটনা প্রবাহও তুলে ধরেছেন তিনি সমকালের কাছে। ক্যাপ্টেন রশিদ বললেন, ‘আমরা কিছু বুঝে উঠার আগেই চারজন জলদস্যু অস্বাভাবিক দ্রুতগতিতে ব্রিজে উঠে যায়। উঠেই তারা সবার আগে জিম্মি করে দ্বিতীয় কর্মকর্তাকে। তার মাথায় অস্ত্র ঠেকিয়ে ‘মাস্টার মাস্টার’ বলে আমাকে খুঁজতে থাকে ওরা। প্রাণহানি এড়াতে আমি দ্রুত তাদের সামনে এসে হাত তুলি। তখনই জলদস্যুরা ‘অল ক্রু’ বলে চিৎকার করতে থাকে। ফাঁকা স্থানে গুলি ছুড়তে থাকে। একপর্যায়ে আমি সব নাবিককে ব্রিজে চলে আসার নির্দেশ দিই। মুহূর্তেই ১২ জন সশস্ত্র জলদস্যু আমাদের জাহাজের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয়। নিয়ন্ত্রণ নিয়েই তারা সবার আগে বন্ধ করে দেয় জাহাজের ইঞ্জিন। এভাবেই শুরু আমাদের ৩২ দিনের বিভীষিকার দিন।’

ক্যাপ্টেন জানান, জাহাজটি সোমলিয়ার উপকূলে তিনবার স্থান পরিবর্তন করে। প্রতিবারই নতুন জলদস্যু দ্রুত উঠতে থাকে জাহাজে। ক্যাপ্টেন বলেন, ‘সোমালিয়ার উপকূলে যাওয়ার আগে ১২ জন জলদস্যু ছিল জাহাজে। জেফল উপকূলে দ্বিতীয়বার নোঙর করার সময় ভারী অস্ত্রসহ আরও ১০ জন জলদস্যু আসে। তৃতীয়বার আরও ১৩ জন জলদস্যু জাহাজে যোগ দেয়। সব মিলিয়ে ৩৫ জন জলদস্যু জাহাজে ওঠে। কিন্তু শেষ দিন জাহাজে ৬৫ জন জলদস্যু ছিল। তাদের সবার কাছে ভারী অস্ত্রশস্ত্র ছিল। শুরুর দিকে খারাপ আচরণ করে জলদস্যুরা। পরে আমাদের কেবিনে থাকতে দেয় তারা। তারপরও আতঙ্কে থাকতাম প্রতিদিন। কিন্তু ঈদের আগে বুঝতে পারছিলাম সমঝোতার দিকে যাচ্ছে জলদস্যুরা।’

‘ঈদুল ফিতরের দিন আমরা জলদস্যুদের কাছে নামাজ আদায় করতে চাই। জাহাজের পণ্য রাখার খোলের ওপর নামাজ আদায় শেষে ছবি তোলার জন্য তাদের কাছে অনুরোধ করি। জলদস্যু নেতা আহমেদ আমাদের ছবি তুলে দেয়। কিন্তু সেই ছবি পড়ে গণমাধ্যমসহ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে গেলে তারা রেগে যায়। অবশ্য মুক্তি পাওয়ার দুই দিন আগে হঠাৎ আহমেদ এসে সবার ভিডিও করে। এই ভিডিও তারা কেএসআরএম গ্রুপের কাছে পাঠিয়েছে। আমরা যে সুস্থ আছি, তা দেখতে চেয়েছে কেএসআরএম গ্রুপ। আমরা তখন আশান্বিত হই। কিন্তু মাহেন্দ্রক্ষণ আসে আরও দুই দিন পর। অনেকক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকার পর দেখি, ছোট আকারের একটি উড়োজাহাজ আসছে। সেদিনই আমরা বুঝে যাই মুক্তি মিলছে আমাদের’- বললেন ক্যাপ্টেন আবদুর রশিদ।