মঙ্গলবার, ২৮শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আ’লীগ থেকে বড় মনিকে সাময়িক অব্যাহতি

news-image

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি : টাঙ্গাইল-২ আসনের এমপি তানভীর হাসান ছোট মনিরের বড় ভাই গোলাম কিবরিয়া বড় মনিকে টাঙ্গাইল শহর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি পদ থেকে সাময়িক অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া তাঁকে ওই পদ থেকে চূড়ান্ত অব্যাহতির জন্য কেন্দ্রের কাছে সুপারিশ করেছে শহর আওয়ামী লীগ।

এদিকে, তরুণীকে ধর্ষণের ঘটনায় এখনও ক্লিনিক্যাল পরীক্ষা করা হয়নি। এ পরীক্ষা করাতে তিনি সম্মতি দেননি। এমনকি মামলা চালাবেন না বলে পুলিশকে মৌখিকভাবে জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে পুলিশের উত্তরা বিভাগের ডিসি মো. শাহজাহান বলেন, ধর্ষণের ঘটনায় তরুণী মামলা চালাবেন না বলে আমাদের জানিয়েছেন। এমনকি বারবার অনুরোধের পরও ক্লিনিক্যাল পরীক্ষা করাতে রাজি হননি।

গত ১০ এপ্রিল টাঙ্গাইল পৌর মেয়র ও শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি এস এম সিরাজুল হক আলমগীর এবং সাধারণ সম্পাদক এম এ রৌফ স্বাক্ষরিত একটি চিঠি দলের ঢাকা বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজমের মাধ্যমে কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদকের কাছে পাঠানো হয়েছে। গোলাম কিবরিয়া বড় মনি টাঙ্গাইল জেলা বাস-কোচ মিনিবাস মালিক সমিতির মহাসচিব, জেলা ঠিকাদার সমিতির সভাপতি ও টাঙ্গাইল চেম্বার অব কমার্স ইন্ডাস্ট্রির সহসভাপতি পদে রয়েছেন।

ওই চিঠিতে বলা হয়েছে, গোলাম কিবরিয়ার বিরুদ্ধে ঢাকার তুরাগ থানায় গত ২৯ মার্চ ধর্ষণের অভিযোগ এনে মামলা করেন এক নারী। এ ঘটনায় ধারাবাহিকভাবে বিভিন্ন গণমাধ্যমে রিপোর্ট প্রকাশিত হয়েছে। তাঁর এমন অনৈতিক কর্মকাণ্ডে দলীয় ভাবমূর্তি মারাত্মকভাবে ক্ষুণ্ন হয়েছে। টাঙ্গাইলের সাধারণ জনগণ দলের প্রতি বিরূপ ধারণা পোষণ করছে। এমন অবস্থায় টাঙ্গাইল জেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের পরামর্শ ও নির্দেশক্রমে দলের বৃহত্তর স্বার্থে এবং সুনাম ও ভাবমূর্তি বজায় রাখতে বড় মনিকে টাঙ্গাইল শহর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি পদ থেকে সাময়িক অব্যাহতি প্রদান করা হলো। চূড়ান্ত অব্যাহতি প্রদানের জন্য সাধারণ সম্পাদকের কাছে সুপারিশ করা হলো।

শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ রৌফ বলেন, তাঁর ধারাবাহিক অনৈতিক কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে এ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ঈদের আগে দলের সাধারণ সম্পাদকের কাছে গোলাম কিবরিয়া বড় মনিকে চূড়ান্ত অব্যাহতি প্রদানের জন্য সুপারিশ করে চিঠি পাঠানো হয়েছে।

এর আগেও ২০২৩ সালের ৫ এপ্রিল মির্জা আফরোজ এশা নামের এক কিশোরী বাদী হয়ে গোলাম কিবরিয়া বড় মনির বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনে টাঙ্গাইল সদর থানায় মামলা দায়ের করেন। পরে পরীক্ষার মাধ্যমে তাঁর অন্তঃসত্ত্বার বিষয়টি জানা যায়। মামলা দায়েরের পর বড় মনি নিম্ন আদালতে হাজির হয়ে জামিন প্রার্থনা করলে আদালত জামিন না মঞ্জুর করে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন। পর পর কয়েকবার জামিন প্রার্থনা করলেও জামিন না মঞ্জুর হয়। গত বছরের ৩০ জুন ধর্ষিত কিশোরী একটি সন্তান জন্ম দেন। একই সঙ্গে ধর্ষণের ফলে কিশোরীর জন্ম দেওয়া শিশুর ডিএনএর রিপোর্ট আদালতে জমা দিতে বলেন। পরে ডিএনএ রিপোর্ট আদালতে জমা দিলে ৯ অক্টোবর শুনানিতে বড় মনি ওই শিশুটির জৈবিক পিতা নন বলে আদালত আদেশ দেন। সেই সঙ্গে তাঁর জামিন মঞ্জুর করেন। গত ১২ অক্টোবর বড় মনি কারাগার থেকে বের হন। গত বছরের ১৮ নভেম্বর মামলার বাদী কিশোরী মির্জা আফরোজ এশার ফ্যানের সঙ্গে ফাঁস লাগানো লাশ উদ্ধার করা হয়। মামলাটি পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগশন (পিবিআই) ধর্ষণ মামলায় বড় মনিকে অব্যাহতি দিয়ে শুধু মারধরের অভিযোগ এনে আদালতে প্রতিবেদন জমা দেয়।

এ বিষয়ে গোলাম কিবরিয়া বড় মনি সমকালকে বলেন, আমি ষড়যন্ত্রের শিকার। রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ আমার ও পরিবারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করার জন্য এর আগেও ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছিল। আদালতে সেটা মিথ্যা প্রমাণিত হয়েছে। সেখানে ব্যর্থ হয়ে আবারও রাজনৈতিকভাবে হেয় করার জন্য নতুন করে ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে এই ধর্ষণের অভিযোগ করা হয়েছে।