বৃহস্পতিবার, ২৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় প্রাকৃতিক উপায়ে তৈরি হচ্ছে  দেশীয় শুটকি

news-image
তৌহিদুর রহমান নিটল, ব্রাহ্মণবাড়িয়া : তিতাস, মেঘনা নদীসহ বিস্তির্ণ হাওড়াঞ্চল থেকে বিভিন্ন প্রজাতির দেশীয় মাছ সংগ্রহ করে প্রাকৃতিক উপায়ে তৈরী হচ্ছে শুটকী।এ রকম দৃশ্য দেখা যায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার লালপুরের শুটকী পল্লীতে।  এসব শুটকী ভারত ছাড়াও মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে রপ্তানী হয়ে থাকে।
প্রক্রিয়াকরনের সাথে কথা বলে জানা যায়,  আশ্বিন থেকে শুরু করে ফাল্গুন মাস পর্যন্ত প্রায় ছয় মাস ধরে চলে এখানে শুটকী তৈরীর কাজ। এখানকার শুটকী প্রক্রিয়া প্রাকৃতিক ভাবে হওয়ায় সারা দেশের এর কদর রয়েছে সর্বএ। বাংলাদেশে মিঠা পানির শুটকীর একটি বড় অংশ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জেলায় উৎপাদিত হয়। জেলা সদর ছাড়াও নাসিরনগন ও আশুগঞ্জ উপজেলার প্রায় আড়াইশ মাচায় এখন চলছে শুটকী প্রক্রিয়াকরনের কাজ। এর মধ্যে লাল পুরে রয়েছে প্রায় ৯০টি মাচা। তিতাস, মেঘনা নদীসহ বিস্তির্ণ হাওড়াঞ্চল থেকে সংগৃহীত মাছ প্রক্রিয়া করণের মাধ্যমে এখানে তৈরী হচ্ছে পুঁটি, শৈল, গজার, বাইম, বজুরি, টেংরা, বোয়াল সহ জাতের শুটকী। এসব শুটকী তৈরীতে ব্যস্ত সময় পার করছেন সহস্রাধিক নারী-পুরুষ।
শুটকি ব্যবসায়ী রঞ্জন দাস বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে দ্রব্যমূল্যের দাম বেড়ে যাওয়ায়
বেশী দামে মাছ কিনতে হচ্ছে। এছাড়া শুটকী প্রকিয়াকরণের অন্যতম উপাদান লবণসহ অন্যান্য উপকরণের দামও বেড়ে গেছে।সে সাথে বেড়েছে পল্লীতে কাজ করা শ্রমিক মজুরি। তাই  কাঙ্খিত লাভ না হওয়ায় বর্তমানে এ পেশায় টিকে আমাদের হিমশিম খেতে হচ্ছে।
আরেক ব্যবসায়ী ছিদ্দিক মিয়া জানান, উৎপাদন ব্যয় বাড়লেও শুটকীর দাম তুলনা মূলক না বাড়ায় বর্তমানে তারা আর্থিকভাবে ক্ষতির আশঙ্কায় ।
জেলা মৎস্য বিভাগ জানান, মৎস্য খাতকে কৃষি ঋন নীতিমালার আওতাভূক্ত করে এ পেশায় নিয়োজিতদের ঋন সহায়তার বিষয়টি প্রক্রিয়ধীন রয়েছে।২০২৩-২০২৪ অর্থবছরে জেলায় প্রায় ২ হাজার মেঃ টন শুটকী উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। নিরপাদ শুটকী তৈরীর পাশাপাশি শুটকী ব্যবসায়ীদের লাভবান করতে নানা রকম উদ্যোগ অব্যাহত আছে।