মঙ্গলবার, ২৯শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রধানমন্ত্রীকে বরণে প্রস্তুত যশোর

news-image

যশোর প্রতিনিধি : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যশোর যাচ্ছেন বৃহস্পতিবার। প্রায় ২৭ মাস পর রাজধানীর বাইরে রাজনৈতিক কোনো সমাবেশে সরাসরি অংশ নিচ্ছেন তিনি। পাঁচ বছর পর যশোরে প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে আওয়ামী লীগ, সেজেছে যশোর শহর বর্ণাঢ্য সাজে।

যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন বলেন, ২০১৭ সালের ৩১ ডিসেম্বরের পর বৃহস্পতিবার (২৪ নভেম্বর) যশোর আসছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার বেলা ১২টায় যশোরের শামস-উল-হুদা স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে জেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে জনসভা। ১৯৭২ সালের ২৬ ডিসেম্বর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একই স্টেডিয়ামে সমাবেশে ভাষণ দিয়েছিলেন। তার প্রায় ৫০ বছর পর তারই কন্যা সেখানে ভাষণ দেবেন। এ কারণে এ সমাবেশকে ঐতিহাসিক।

যশোর সদর আসনের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ জানান, দলের সভাপতি ও দেশের উন্নয়নে সফল প্রধানমন্ত্রীর আগমনে উৎসব আমেজ যশোরে। নেতাকর্মীদের ব্যাপক উৎসাহ। নানান সাজে সাজানো হচ্ছে যশোরকে। লালগালিচা সংবর্ধণা দেওয়া হবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে।

তিনি বলেন, সমাবেশকে জনসমুদ্রে পরিণত করতে ব্যাপক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। যশোরসহ খুলনা বিভাগের প্রতি জেলা থেকে ব্যাপক নেতাকর্মীর সমাবেশ ঘটবে এ দিন যশোরে। চালানো হচ্ছে ব্যাপক প্রচার প্রচারণা। স্থানীয় নেতাদের পাশাপাশি জাতীয় পর্যায়ের নেতৃবৃন্দও এ প্রস্তুতি অংশ নিয়েছেন। তারা এখন যশোরে অবস্থান করছেন।

মঙ্গলবার রাতে জনসভার স্থল পরিদর্শন করেন আওয়ামী লীগের সভাপতি মণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক। এ সময় তিনি সাংবাদিকদের বলেন, যশোরে প্রধানমন্ত্রীর সমাবেশ কোনো রাজনৈতিক দলের বিরুদ্ধে পাল্টা কর্মসূচি নয়। আমরা নির্বাচনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছি বলেই এই কর্মসূচি হাতে নিয়েছি।

তিনি আরো বলেন, যশোর শামস্-উল-হুদা স্টেডিয়ামে আওয়ামী লীগের স্মরণকালের বৃহত্তম জনসভা হবে। শুধু স্টেডিয়ামের ভেতর জনসভা সীমাবদ্ধ থাকবে না, সমগ্র যশোর শহর একটি জনসভাস্থলে রূপ নেবে। এই জনসভা আওয়ামী লীগের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কেননা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রায় ২৭ মাস পর জনগণের সামনে সরাসরি কোনো জনসমুদ্রে উপস্থিত হবেন।

জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আব্দুল মজিদ বলেন, মঞ্চ সাজানো হয়েছে লাল গালিচা দিয়ে। প্রধানমন্ত্রী যে পথ দিয়ে মঞ্চে প্রবেশ করবেন সেই পথ থেকে শুরু করে মঞ্চ পর্যন্ত লাল গালিচায় মুড়ে দেওয়া হয়েছে। মঞ্চের ব্যাক স্ক্রিন করা হচ্ছে চারুকলার ছাত্রদের দিয়ে।

সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আবদুর রহমান বলেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে নির্বাচনী আবহাওয়া নিয়েই যশোর দিয়ে শেখ হাসিনার নির্বাচনী জনসভা শুরু হচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রীর সমাবেশকে কেন্দ্র করে যশোর কেন্দ্রীয় নেতাদের মধ্যে আরো উপস্থিত রয়েছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক বি এম মোজাম্মেল হক, সংসদ সদস্য শেখ হেলাল উদ্দিন প্রমুখ।

এদিকে প্রধানমন্ত্রী যশোর আগমন উপলক্ষে সর্বোচ্চ নিরাপত্তার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ারদার। এ উপলক্ষে বুধবার সকালে জেলা পুলিশের আয়োজনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ব্রিফিং প্যারেড অনুষ্ঠিত হয়।

পুলিশের এক বার্তায় জানানো হয়েছে, প্যারেডে সভাপত্বি করেন যশোরের পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ারদার। এসময় তিনি বলেন, যশোর জেলা ইতোমধ্যে নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা রয়েছে। এখানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পর্যাপ্ত সদস্য নিয়োজিত রয়েছে। পাশাপাশি সাদা পোশাকেও ডিউটিতে নিয়োজিত রয়েছে।

সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ বলেন, যশোরবাসীর দীর্ঘ দিনের প্রতিক্ষা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের আশা পূরণ করছেন কিনা। তিনি যশোর জেলাকে ইতিমধ্যে অনেক কিছু দিয়েছেন। আমাদের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় দিয়েছেন, আমাদের মেডিকেল কলেজ দিয়েছেন, আমাদের ভৈরব নদ তিনি খনন করা শুরু করেছেন, এখানে শেখ হাসিনা সফটওয়্যার আইটি পার্ক তিনি দিয়েছেন। আমাদের আরো দীর্ঘ দিনের দাবি আছে যশোরকে বিভাগ করা, শহরকে সিটি করপোরেশন করা, ৫শ’ শয্যার মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল করা, ভৈরব নদের কাজ দ্রুত সম্পন্ন করা। সব দাবি আমরা যশোরবাসীর পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীর কাছে তুলে ধরব। আমরা আশা করবো তিনি সেগুলো বিবেচনা সাপেক্ষে গ্রহণ করবেন এবং আগামীতে সেটা বাস্তবায়ন আমরা দেখতে পাব।