মঙ্গলবার, ২৯শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শীতে শিশুর রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর খাবার

news-image

অনলাইন ডেস্ক : কিছু সুপার ফুড রয়েছে যেগুলো রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সহায়ক। শীতকালে শিশুর সুস্থতায় খাবারগুলো খাদ্যতালিকায় যোগ করুন।

টক দই: শিশুর রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য কেনাকাটার তালিকার প্রথমেই রাখুন দই। এটি প্রোবায়োটিকে ভরপুর যাকে সাধারণত বলা হয় স্বাস্থ্যকর ব্যাকটেরিয়া। এটি অন্ত্রের স্বাস্থ্যের উন্নতি করে, হজমে সহায়ক। এছাড়াও অনেক পুষ্টি উপাদান এর থেকে পাওয়া যায়। যেমন- ক্যালসিয়াম, ভিটামিন ডি এবং পটাশিয়াম। শিশুকে খাঁটি ধবধবে সাদা ও চিনিমুক্ত দই খেতে দিন।

বাদাম: শীতে শরীর উষ্ণ রাখতে ও শক্তি জোগাতে চমৎকার উৎস এই খাবার। শিশুকে সুস্থ রাখতে সারা বছরই ক্যাশনাট, পিনাট, কাজু, পেস্তা ও আখরোট খাওয়াতে পারেন। মজাদার কোনো রেসিপির মাধ্যমে বাদাম খাওয়াতে পারেন শিশুকে। যাতে শিশুর সুস্থ বিপাকে সহায়তা করে।

বীজ: ফাইবার, পলিআনস্যাচুরেটেড ও মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাটের মতো প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান রয়েছে এতে। সেইসাথে অন্যান্য খনিজ এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্টও থাকে বীজ জাতীয় খাবারে। বিশ্বের সবচেয়ে পুষ্টিকর খাবারের মধ্যে রয়েছে সূর্যমুখী বীজ, কুমড়ার বীজ, চিয়া সিড, তিলের বীজ এবং শণের বীজ। এই বীজগুলোতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ই থাকে যা শুধুমাত্র আপনার বাচ্চার রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতাকেই বৃদ্ধি করে না বরং রক্তে শর্করার মাত্রা কমায়, কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে এবং রক্তচাপ বজায় রাখে।

ডিম: ভিটামিন এবং প্রোটিনের চাহিদা পূরণ করে এবং শীতকালে সুষম খাদ্যে অবদান রাখে ডিম। অনেক রেসিপি যেমন সেদ্ধ ডিম, অমলেট, ডিম দিয়ে ব্রোকলি, গাজর, রুটি অমলেট ইত্যাদি সবজির ভাজা বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে। ডিমের তরকারি ও বিরিয়ানিতেও ডিম পরিবেশন করতে পারেন।

টক জাতীয় ফল: রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর সেরা খাবার এগুলো। এতে ভিটামিন সি প্রচুর পাওয়া যায়। যেমন- লেবু, আঙ্গুর, লাইম, কমলা প্রভৃতি। রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর প্রক্রিয়ায় মাইক্রোনিউট্রিয়েন্ট খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এছাড়াও এই ফলগুলোতে পটাশিয়াম, ভিটামিন বি, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ফসফরাস ও ম্যাগনেশিয়াম থাকে।

সবুজ শাকসবজি: ব্রোকলি, কলি, পালং ফুলকপি বাঁধাকপি এগুলো শিশুর রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর চমৎকার খাবার। ভিটামিন এ, সি এবং কে, ম্যাগনেশিয়াম, ক্যালসিয়াম, পটাশিয়ামের মতো গুরুত্বপূর্ণ উপাদান থাকে এগুলোতে।

উপরন্তু, এই সবজিগুলোতে প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে, যা ইমিউন সিস্টেমের কার্যকারিতা বাড়াতে ব্যাপকভাবে সহায়তা করে।