বৃহস্পতিবার, ৮ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাঞ্ছারামপুর সদর হাসপাতালে মেয়াদ উত্তীর্ণ স্যালাইন দেওয়ার অভিযোগ, ৪ রোগী অবস্থা গুরুতর

news-image

বাঞ্ছারামপুর(ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি : ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা বাঞ্ছারামপুর উপজেলার ৫০ শয্যা বিশিষ্ট সরকারি সদর হাঁসপাতালে ৪ রোগী কে মেয়াদ উত্তীর্ণ স্যালাইন দেওয়া অভিযোগ উঠেছে নার্স শিল্পী আক্তার, আকতারুনেছা,শফিক মিয়া, রাবেয়া বেগমের বিরুদ্ধে।

গত শনিবার (৩ অক্টোবর ২২) থেকে ৪ জন রোগী কে মেয়াদহীন স্যালাইন দেওয়া কারনে আজ(মঙলবার) তিন রোগি ঢাকা মেডিকেল কলেজে পাঠানো হয়।তারা হলে ছলিমাবাদের ফারুক মিয়া মেয়ে সামিয়া(৩), আছাদনগর করিম মিয়া মেয়ে লাকি (৫),ফরদাবাদ ইয়াছিন মিয়া ছেলে আল আমিন( ২৬),বাঁশগাড়ি আলম মিয়া ছেলে মোঃ রাকিব (১৫)।

আছাদনগর গ্রামের করিম বলেন, আমার বাচ্চা কে মেয়াদহীন স্যালেইন দিয়েছে।আমার বাচ্চার যদি কোন হয় এই দায় বার কে নিবে.? আমি শিল্লী নাসের বিচার চাই।

ফারুক মিয়া স্ত্রী সালাম বেগম বলেন, এমন ঘট্না আগে কখনো দেখি নাই।আমার মেয়ে এখন খারাপ অবস্থায় আছে। আমি তাদের বিচার চাই। সঠিক তদন্ত করে দোষীর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হোক।

বাঁশগাড়ি আলম মিয়া বলেন, আমরা গরিব মানুষ সরকাররী হাসপাতালে এসেছি অল্প টাকায় চিকিৎসার জন্য। হাঁসপাতালে নাস ও ডাক্তারা যদি এমন ভুল চিকিৎসা দেয় তাহলে আমরা যাবো কথায়।

এই ব্যাপারে শিল্পী নাস ও আক্তার সাথে সাথে যোগাযোগ করা হলে নাস জানাতুল ফেরদৌসি বলেন তারা দ্রুত হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যায়।

বাঞ্ছারাপুর পরিবার পরিকল্লপনা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্মকতা ডাঃ এস এম মুনতাছির বলেন, রোগীর আত্মীয় স্বজন আমাকে কে লিখতো অভিযোগ দিলে আমরা ব্যবস্থা গ্রহন করবো।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সর্ভিল সার্জন একরামুল কবির মুঠোফোনে বলেন, আমরা এই ব্যাপারে অবগত আছি আমরা দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। বাঞ্ছারামপুর মতেল থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকতা নুরে আলম জানান, এই ব্যাপারে কোন অভিযোগ করা হয় নি। এ বিষয়টি ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ কর্তৃপক্ষের অধীনে ব্যবস্থা গ্রহন করতে পারেন।