শুক্রবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পঞ্চগড়ে নৌকাডুবি: সাতদিনেও মেলেনি ৩ জনের খোঁজ

news-image

পঞ্চগড় প্রতিনিধি : পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলার করতোয়া নদীর আউলিয়ার ঘাটে নৌকাডুবির ঘটনায় চলছে টানা উদ্ধার অভিযান। তবে অভিযানের সপ্তম দিনেও শিশুসহ নিখোঁজ তিনজনের মরদেহ উদ্ধার করতে পারেনি ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের সদস্যরা। যদিও পঞ্চগড় জেলা প্রশাসক মো. জহুরুল ইসলাম জানিয়েছেন, নিখোঁজরা উদ্ধার না হওয়া পর্যন্ত অভিযান অব্যাহত থাকবে।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের সদস্যরা জানান, আজ শনিবার সকাল থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত করতোয়া নদীতে উদ্ধার অভিযান পরিচালনা করেন তারা। এদিন উদ্ধার অভিযানে স্থানীয় বাসিন্দারাও যোগ দেয়।

মাড়েয়া বামনহাট ইউনিয়ন পরিষদে (ইউপি) খোলা তথ্য কেন্দ্রের তথ্য অনুযায়ী নিখোঁজরা হলেন- উপজেলার সাকোয়া ইউনিয়নের ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের সুরেন, দেবীগঞ্জ উপজেলার ছত্রশিকারপুর এলাকার ভূপেন এবং পঞ্চগড় সদরের ঘাটিয়ারপাড়া এলাকার জয়া রানী।

গত ২৫ সেপ্টেম্বর উপজেলার মাড়েয়া বামনহাট ইউনিয়নের করতোয়া নদীর আউলিয়ার ঘাটে নৌকাডুবির ঘটনায় ৬৯ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়। ওইদিন দুপুর আড়াইটার দিকে মহালয়ার অনুষ্ঠানে যোগ দিতে শ্যালো ইঞ্জিনচালিত নৌকায় করে বড়শশী ইউনিয়নের বদেশ্বরী মন্দিরে যাচ্ছিলেন সনাতন ধর্মাবলম্বীরা। কিন্তু ধারণক্ষমতার অতিরিক্ত যাত্রী বোঝাইয়ের কারণে নৌকাটি নদীতে ডুবে যায়।

এদিকে দুর্ঘটনার পর রেলপথমন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন, ধর্মপ্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী মো. এনামুর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তারা নিহতদের স্বজনদের সমবেদনা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে পৃথকভাবে মানবিক ও আর্থিক সহায়তা দিয়েছেন। এ ছাড়াও বিভিন্ন রাজনৈতিক এবং সামাজিক সংগঠন নিহতদের স্বজনদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে।

এর আগে গতকাল পঞ্চগড় ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক শেখ মো. মাহবুবুল ইসলাম বলেন, শেষ মানুষটির মরদেহ উদ্ধার না হওয়া পর্যন্ত আমাদের অভিযান চলবে। যদিও উদ্ধার অভিযানের ষষ্ঠ দিনে ডুবুরি দল দুটি বাইসাইকেল ও একটি শাড়ি উদ্ধার করেছিল।