শুক্রবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ইংল্যান্ড থেকে দেশে জঙ্গিবাদে অর্থায়ন

news-image

নিউজ ডেস্ক : ইংল্যান্ড থেকে বিপুল অঙ্কের অর্থ দেওয়া হয়েছে জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলামের সদস্যদের। বিদেশ থেকে টাকা এসেছে হুন্ডি, মোবাইল ব্যাংকিং ও ব্যাংকের মাধ্যমে। যুক্তরাজ্য প্রবাসী শাহীন সেখানে উগ্রাবাদীদের কাছ থেকে অর্থ সংগ্রহ করে বাংলাদেশে জঙ্গিদের কাছে পাঠায়। গত শনিবার আনসার আল ইসলামের জঙ্গিবাদে অর্থায়নে সহায়তার অভিযোগে গ্রেপ্তার দুজনের জিজ্ঞাসাবাদে এসব তথ্য পেয়েছে ডিএমপির কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের (সিটিটিসি) সদস্যরা।

গোয়েন্দা কর্মকর্তারা বলছেন, আনসার আল ইসলামের সাংগঠনিক এবং অপারেশনাল কাজ পরিচালনার জন্য যুক্তরাজ্য থেকে বাংলাদেশে অর্থায়ন হচ্ছে। এর মধ্যে যুক্তরাজ্য থেকে আনসার আল ইসলামের সদস্যদের কাছ থেকে বিপুল অর্থ সংগ্রহ করেন শাহীন নামে এক প্রবাসী। তাদের অর্থ রাজধানীর দক্ষিণখানের কাঁচাবাজারের প্রান্তিক মিডিয়ার মালিক রেজাউল আলম টিংকুর কাছে বিকাশ ও হুন্ডির মাধ্যমে পাঠায়। গত শনিবার দক্ষিণখানের গণকবরস্থান রোডের রোজ ফ্যাশনের কাছ থেকে রেজাউল করিম টিংকু ও আনসার আল ইসলামের সদস্য সাইফুল ইসলাম শাকিলকে গ্রেপ্তার করে সিটিটিসি।

সিটিটিসির অতিরিক্ত উপপুলিশ কমিশনার আহমেদুল ইসলাম বলেন, শাহীন নামে এক যুক্তরাজ্য প্রবাসী প্রান্তিক মিডিয়ার মালিক টিংকুর কাছে হুন্ডির মাধ্যমে টাকা পাঠান। প্রান্তিক মিডিয়া বিকাশের এজেন্টের পাশাপাশি হুন্ডির ব্যবসা করেন। সেই টাকা আনসার আল ইসলামের হিসাবরক্ষক সাইফুল নিয়ে দলের সদস্যদের মাঝে বিতরণ করে। হুন্ডির মাধ্যমে টাকা পাঠানো শাহীন ২০০৭ সালে যুক্তরাজ্য যায়। সেখান থেকে তিনি মূলত হুন্ডির ব্যবসা করেন। তিনি জঙ্গিবাদের টাকা টিংকুর কাছে পাঠান। ইন্টারপোলের মাধ্যমে সাইফুলের ব্যাপারে তথ্য নেওয়া হবে।

সাইফুল ইসলাম শাকিল পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে জানান, তিনি ২০১৬ সাল থেকে আনসার আল ইসলামের হিসাবরক্ষক হিসেবে কাজ করছেন। রেজাউল আলমের কাছ থেকে ৭৫ লাখ টাকা তিনি নিয়েছেন। এই টাকা দেশের বাইরে থেকে হুন্ডিসহ বিভিন্ন উপায়ে রেজাউলের কাছে আসত। এ ছাড়া পল্টন এলাকার গাড়ি ব্যবসায়ী তুহিনের কাছ থেকে অন্তত আট লাখ টাকা নিয়েছেন। জঙ্গি অর্থায়নের টাকা তিনি সংগঠনের নেতা সাইফ, সাইদ ও সুজনের মাধ্যমে নিয়েছেন। তাদের সঙ্গে তিনি বিভিন্ন গোপন অ্যাপসের মাধ্যমে যোগাযোগ করতেন। টাকা নেওয়ার পর সদস্যদের মাঝে তিনি বণ্টন করে দিতেন।

পুলিশ বলছে, এ ঘটনায় সাইফুল ও টিংকুকে গ্রেপ্তার করা হলেও তাদের সহযোগী তুহিন, সাইদ, সুজন, শাহীন, সমুন, দেলোয়ার, সোবহান, শাহ আলম, মকবুল, জাবেদ ও লিটন এখনো পলাতক রয়েছেন। তাদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা করছে পুলিশ।

গ্রেপ্তার সাইফুল ইসলাম চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্ট উল্লেখ করে পুলিশ কর্মকর্তারা জানান, সাইফুল উচ্চ শিক্ষিত মেধাবী। তিনি চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্ট। স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠানে চাকরিও করেছেন। উগ্রবাদে জড়িয়ে তিনি উচ্চ বেতনের চাকরি ছেড়ে দেন। এর পর তিনি আনসার আল ইসলামের হিসাবরক্ষকের দায়িত্ব পালন শুরু করেন। তিনি বিভিন্নজনের কাছ থেকে সংগঠনের নামে টাকা এনে তার সদস্যদের মধ্যে বণ্টন করতেন। তার কাছে আসা টাকার একটি বড় অংশই আসত বিদেশ থেকে। বিশেষ করে যুক্তরাজ্য থেকে বিপুল পরিমাণ টাকা আসছে আনসার আল ইসলামের নামে। হুন্ডির মাধ্যমেই মূলত এসব টাকা বিদেশ থেকে পাঠানো হয়। আনসার আল ইসলামের টাকা সরবরাহ করা কয়েকজন হুন্ডি ব্যবসায়ীকে শনাক্ত করেছে পুলিশ। তাদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। দৈনিক আমাদের সময়