শুক্রবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

করতোয়ায় নৌকাডুবিতে মৃত্যু বেড়ে ৬৮, নিখোঁজ ৫

news-image

পঞ্চগড় প্রতিনিধি : পঞ্চগড়ের বোদার মাড়েয়া ইউনিয়নের আউলিয়ার ঘাটে করতোয়া নদীতে নৌকাডুবির ঘটনায় মঙ্গলবার (২৭ সেপ্টেম্বর) এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ১৮ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এদের মধ্যে বেশিরভাগই নারী ও শিশু। এ নিয়ে মরদেহ উদ্ধারের সংখ্যা ৬৮ টিতে দাঁড়াল।

এসব মৃতদেহের বেশির ভাগই ঘটনাস্থলের আশে পাশে ভাটি থেকে আর দুটি লাশ দিনাজপুরের বীরগঞ্জ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে।

ঘটনার তদন্ত কমিটির প্রধান ও কন্ট্রোল রুমের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকতা অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট দীপঙ্কর কুমার রায় এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, শনাক্তকরণ নিশ্চিত হওয়ার পর লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হচ্ছে। স্বজনদের হিসেবে মিসিং বা নিখোঁজের সংখ্যা পাঁচ জন।

এদিকে, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের পরিচালক (অপারেশ) লে.কর্নেল জিল্লুর রহমান জানান, তিনটি ইউনিটের ৭০ জনের ডুবুরি দল তিন ভাগে ভাগ হয়ে ঘটনাস্থল থেকে দিনাজপুর পর্যন্ত তৃতীয় দিনের মত সকাল সাড়ে পাঁচটা থেকে উদ্ধার অভিযান শুরু করেছে। চলবে সন্ধ্যা পর্যন্ত। এখন পর্যন্ত ১৮ টি মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এ নিয়ে গত তিন দিনে ৬৮ জনের মরদেহ উদ্ধার হল।

তিনি বলেন, সাধারণত ২৪ থেকে ৪৮ ঘন্টার মধ্যে লাশ ভেসে উঠে। ভাটিতে হলেও লাশ ভেসে উঠবে।

ঘটনার দিনই জেলা প্রশাসন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট দীপঙ্কর কুমার রায়কে প্রধান করে পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। তিনি বলেন, তদন্ত কমিটির কাজ এখনো শেষ হয়নি। তবে মঙ্গলবারের মধ্যে তা দাখিল করা হবে। তিনি শুধু বলেন, অতিরিক্ত যাত্রীর কারণেই নৌকাটি ডুবেছে বলে প্রাথমিকভাবে প্রতীয়মান হচ্ছে।

অন্যদিকে, রেলমন্ত্রী অ্যাডভোকেট মো. নূরুল ইসলাম সুজন মঙ্গলবার দুপুরে আবার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং নিহতদের পরিবারের বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে সমবেদনা জ্ঞাপন করেন। তিনি আহতদের চিকিৎসার খোঁজ খবর নেন।

তিনি জানান, সরকারের পক্ষে মৃত্যের প্রত্যেক পরিবারকে সৎকারের জন্য ২০ হাজার টাকা এবং ধর্ম মন্ত্রণালয়ের পক্ষে ২৫ হাজার টাকার চেক হস্তান্তর করা হয়েছে। সকল মরদেহ উদ্ধারের পর পরিবারগুলোর অবস্থা বিবেচনা করে কার জন্য কী করা যায় সেটা বিবেচনায় নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। নিখোঁজের যে তালিকা করা হয়েছে শেষ ব্যক্তিটিকে উদ্ধার না করা পর্যন্ত অভিযান চলমান থাকবে।

জেলা প্রশাসক জহুরুল ইসলাম জানান, বিভিন্ন ভাবে খোজ খবর নিয়ে যতদুর জানা গেছে তাতে অতিরিক্ত যাত্রী বোঝাইয়ের কারণেই এই দুর্ঘটনা ঘটেছে।

এদিকে এখনো নদীর পাড়ে নিখোঁজ মরদেহ পাবার অপেক্ষায় রয়েছে অনেক পরিবার। স্বজন হারানো পরিবারে এখন চলছে শোকের মাতম। অধিকাংশ উদ্ধারকৃত মৃতদের সৎকার করা হয়েছে। লাশ দেখার সাথে সাথে পরিবারে কান্নার রোল পড়ে যাচ্ছে। অনেকে মাটিতে গড়াগড়ি খাচ্ছেন।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স দিনাজপুর অঞ্চলের সহকারী পরিচালক মঞ্জিল হক জানান, নদীর পানি নামতে শুরু করছে নদীর তলদেশে কাঁদার মধ্যে আটকে পড়া মরদেহ উদ্ধার অভিযান অব্যাহত রয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে ভাটির দিকে ৩০ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে ফায়ার সার্ভিসের ডুডুরি দল স্থানীয়দের সহায়তায় অভিযান পরিচালনা করছেন। ক্ষণে ক্ষণে মরদেহের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। উদ্ধারকৃত মরদেহগুলো শনাক্ত করে স্বজনদের হাতে বুঝিয়ে দিচ্ছেন জেলা ও উপজেলা প্রশাসন। নিখোঁজদের উদ্ধারে অভিযান অব্যাহত থাকবে জানান ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল। অনুকূল আবহাওয়া ও নদীর পানি শুকিয়ে যাওয়ার কারণে দ্রুতই মরদেহ উদ্ধার সম্ভব হবে বলে আশা করছেন তিনি।