সোমবার, ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘যাত্রী প্রতিনিধি ছাড়াই বাস ভাড়া নির্ধারণ করা হয়’

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মো. মোজাম্মেল হক চৌধুরী বলেছেন, সাধারণ মানুষের দুর্ভোগের কথা তুলে ধরতে বাসভাড়া নির্ধারণের সভায় প্রতিনিধিত্ব করতে চেয়ে বারবার আবেদন করেছে যাত্রী কল্যাণ সমিতি। কিন্তু বাস মালিকদের বিশেষ সুবিধা দেওয়ার উদ্দেশ্যে যাত্রী প্রতিনিধি ছাড়াই বাসভাড়া নির্ধারণ করে থাকে।

আজ রোববার সকালে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ অভিযোগ করেন সংগঠনের মহাসচিব।

তিনি বলেন, সরকার বাস মালিকদের সুবিধা ভাড়া নির্ধারণ করলেও কোনো বাসে সরকার নির্ধারিত ভাড়া কার্যকর হয় না। নির্ধারিত ভাড়ার বেশ কয়েকগুণ ভাড়া আদায় হয়। সঠিক ব্যয় বিশ্লেষণ করে নতুন বাস ভাড়া নির্ধারণেরও দাবি জানান মো. মোজাম্মেল হক চৌধুরী।

তিনি বলেন, গত নভেম্বরে জ্বালানি তেলের মূল্য লিটার প্রতি ১৫ টাকা বৃদ্ধির সময়ে বাস ভাড়া ৩৫ শতাংশ হারে বাড়ানো হয়। এর ৯ মাসের মাথায় আবারও জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধির সঙ্গে সঠিক ব্যয় বিশ্লেষণ করে এক লাফে বাস ভাড়া আবারও ২২ শতাংশ হারে বাড়ানো হয়। প্রতিটি পুরোনো বাসকে শো-রুম থেকে নামানো নতুন বাসের দাম, ব্যাংক সুদ ও অন্যান্য নতুন বাসের সুযোগ-সুবিধার হিসাব ধরে ব্যয় বিশ্লেষণ করা হলেও সিটি সার্ভিসে ৯৮ শতাংশ বাস-মিনিবাস চলাচলের অযোগ্য। আন্তঃজেলা দুরপাল্লায় ৪৮ শতাংশ বাস ২০ বছরের বেশি সময় ধরে চলছে। এসব বাস অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ।

গতকালের বাস ভাড়া বৃদ্ধির সভায় এসব বাসকে নতুন বাস হিসেবে ব্যয় বিশ্লেষণ করায় যাত্রীস্বার্থ চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। নতুন বাস এবং পুরাতন বাস আলাদা আলাদা ব্যয় বিশ্লেষণ ও আলাদা আলাদা ভাড়া নির্ধারণের দাবি জানান যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব।