বৃহস্পতিবার, ৭ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নাসিরনগরে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি,২১টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষনা,খোলা হয়েছে ২৮টি আশ্রয় কেন্দ্র

news-image

আকতার হোসেন ভূইয়া,নাসিরনগর : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে টানা বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পানিতে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। উপজেলার সর্বত্রই বন্যা দেখা দিয়েছে। বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে হাজার হাজার হেক্টর বোনা আমন ফসলি জমি ও ঘরবাড়ি,শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, সবজি বাগান,মৎস্য খামার ও গ্রামীণ রাস্তাঘাট। উপজেলার সর্বত্রই বন্যার পানিতে থৈ থৈ করছে। এদিকে সোমবার দুপুরে জেলা প্রশাসক মোঃ শাহগীর আলম বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেছেন।

উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, দিন দিন উপজেলায় বন্যা পরিস্থিতি অবনতি হচ্ছে। ইতিমধ্যেই প্রায় ৩০ কিলোমিটার আধাপাকা-পাকা সড়ক পানিতে তলিয়ে গেছে। পানির তোড়ে উপজেলার বুড়িশ্বর ও গোর্কণ ইউনিয়নে দুইটি ব্রীজ ভেঙ্গে যাওয়ায় কয়েকটি এলাকার বাসিন্দা যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। উপজেলার বেশ কিছু কমিউনিটি ক্লিনিক প্লাবিত হয়েছে।উপজেলার প্রায় ৭০টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চারিপাশে পানি উঠেছে। ২১টি প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষনা করা হয়েছে। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় বাড়ি-ঘর তলিয়ে যাওয়ার ভয়ে মানুষের মধ্যে শঙ্কার সৃষ্টি হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে উপজেলার চাতলপাড়, ভলাকুট, গোয়ালনগর,বুড়িশ্বর, কুন্ডা,পূর্বভাগ, ধরমন্ডল, গোকর্ণ ও চাপরতলা ইউনিয়নের বেশীর ভাগ এলাকাই প্লাবিত হয়েছে।ইতিমধ্যেই উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ২৮টি আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে। এছাড়া উপজেলার বুড়িশ্বর ইউনিয়নের শ্রীঘর এসএসডিপি উচ্চ বিদ্যালয় আশ্রয় কেন্দ্রে হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। সোমবার বিকেল পর্যন্ত ওই সব আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে ৬৯টি পরিবার আশ্রয় নিয়েছে।উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ ইকবাল মিয়া বলেন,উপজেলার ১২৩টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে ৭০টি বিদ্যালয়ের চারপাশে পানি উঠেছে। ২১টি প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষনা করা হয়েছে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আবু সাঈদ তারেক বলেন, বন্যায় উপজেলার প্রায় সাড়ে চার হাজার হেক্টর বোনা আমন ধানি জমির ধান পানির নিচে তলিয়ে গেছে।উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা শুভ্র সরকার জানান,উপজেলায় এই পর্যন্ত মৎস্য চাষিদের তথ্যমতে প্রায়৭‘শ পুকুরের মাছ ভেসে গেছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মোনাব্বর হোসেন জানান,বন্যা পরিস্থিতির কিছুটা অবনতি হয়েছে। আমরা প্রতিদিন বন্যা কবলিত এলাকায় যাচ্ছি। মানুষের পাশে আছি। তিনি জানান,আজ মঙ্গলবার বিকেল পর্যন্ত আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে ৫৬টি পরিবার আশ্রয় নিয়েছে। আশ্রয় নেয়া ৫৬টি পরিবারের প্রতিটি পরিবারের মধ্যে প্রশাসনের পক্ষ থেকে ১৫ কেজি করে চাল দেয়া হয়েছে। এছাড়াও উপজেলার বেশ কিছু স্থানেও বেশ কিছু পরিবার আশ্রয় নিয়েছে।সোমবার দুপুরে বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেছেন জেলা প্রশাসক মোঃ শাহগীর আলম।

এ জাতীয় আরও খবর