বুধবার, ১লা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ১৮ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রস্তুত রংপুরের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, শেষ মুর্হুতে চলছে শ্রেণীকক্ষ পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ

news-image

রংপুর ব্যুরো : মহামারি করোনায় প্রায় দেড় বছর বন্ধ থাকা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার সরকারি সিদ্ধান্তে ১২ সেপ্টেম্বর খুলছে রংপুর নগরীসহ জেলার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এজন্য চলছে শেষ মুহুর্তের পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ। ইতিমধ্যেই অনেক কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এদিকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি নিশ্চিত করতে কাজ করছে শিক্ষা বিভাগ।খোঁজ নিয়ে জানা গেছে , শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ এখন শিক্ষার্থী আসবার অপেক্ষা করছে। শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবিধি মানাতে সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য হাতধোয়ার সঠিক নিয়ম, মাস্ক পরার নিয়ম, হাঁচি-কাশির শিষ্টাচারও টাঙানো হয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রতিটি কোনায় কোনায় জীবাণুনাশক ছিটানো হচ্ছে। আবার কেউ কেউ শিশুদের খেলনাগুলোতে ধুলোবালি পরিষ্কার করছেন।ইলেক্ট্রিশিয়ান দিয়ে প্রতিটি ক্লাসরুমের বাতি ও ফ্যানগুলোকে চেক করানো হচ্ছে।

শিক্ষকরা জানান, সকল প্রস্তুতির মধ্যে শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতের ব্যাপারে বেশি গুরত্ব দেয়া হচ্ছে। সেই সঙ্গে প্রতিষ্ঠানের শ্রেনীকক্ষে বেঞ্চ, চেয়ার-টেবিল থেকে শুরু করে মাঠ পর্যন্ত ঝকঝকে করার জোড় প্রস্তুতি চলছে। তারা এখন শিক্ষার্থী আসবার অপেক্ষায় রয়েছেন।
রংপুর জেলা শিক্ষা অফিস সূত্র জানায়, রংপুর জেলায় সরকারি-বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে ১২৯২টি, স্কুল-কলেজ রয়েছে ৫৬৯টি, মাদরাসা রয়েছে ২৬৭টি। এছাড়াও বিভিন্ন ধরণের আরও বেশ কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

এদিকে দীর্ঘদিন পর আগামী ১২ সেপ্টেম্বর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার খবরে শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও অভিভাবকরা সরকারি এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে। আর শিক্ষার্থীরা মুখিয়ে আছেন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার অপেক্ষায়।অভিভাবকরা বলছেন, দীর্ঘ সময় পাঠদান বন্ধ থাকায় শিক্ষাজীবন নিয়ে সন্তানদের নিয়ে বেশ চিন্তিত ছিল। স্কুল খোলার সংবাদের মনে স্বস্তি ফিরে এসেছে। স্কুলে যাওয়ার জন্য উদগ্রীব হয়ে আছে তারা। করোনাকালীন সময়ে তারা ভার্চুয়াল পাঠদান গ্রহন করেছে। শিক্ষাক্ষেত্রে এটি একটি আবদ্ধ পরিবেশ। তাই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুললেই প্রযুক্তি নির্ভর ও গৃহবন্দি থেকে মুক্ত জীবনে ফিরতে পারবে।

রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার রায়পুর বহুমূখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক (ভারপ্রাপ্ত) খায়রুল ইসলাম বলেন, আমার প্রায় ২১ বছর শিক্ষকতা জীবনে এতো দীর্ঘতম ছুটি দেখিনি। বিদ্যালয় বন্ধ থাকাকালিন সময় শিক্ষার্থীদের সাথে দেখা না হলেও নিয়মিত মুঠোফোনে যোগাযোগ রক্ষা করেছি।মিঠাপুকুরের পায়রবন্দ সরকারি কলেজের প্রভাষক হারুন অর রশিদ জানান, প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় খারাপ লেগেছে। খোলার অপেক্ষায় ছিলাম। সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক শিক্ষার পরিবেশ ফেরাতে সব প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।

রংপুর নগরীর জিয়াতপুর দাখিল মাদরাসার সুপার আবুল কাশেম জানান, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা প্রতিষ্ঠান খোলার ব্যাপারে নিয়মিত খোঁজ নিয়ে যাচ্ছেন।একাধিক শিক্ষার্থী জানান, দীর্ঘ বন্ধের কারণে অনেক ক্ষতির সম্মুখিন হয়েছেন তারা। সরকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার ঘোষণা দেয়ায় তারা আনন্দিত। কারণ তাদের পদচারণায় আবারও প্রিয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রাঙ্গন মুখরিত হয়ে উঠবে।

রংপুর নগরীর তামপাট এলাকার আশরাফুল আলম ও নুরুল ইসলাম নামের দুই অভিভাবক জানান, স্কুল বন্ধ থাকায় সন্তানকে নিয়ে বড় চিন্তায় ছিলাম। তারা লেখাপড়ায় অনেকটা পিছিয়ে পড়েছে। এখন মনে স্বস্তি ফিরেছে।রংপুর জেলা শিক্ষা অফিসার রোকসানা বেগম জানান, ইতিমধ্যে প্রতিষ্ঠান খোলার ব্যাপারে সকল প্রতিষ্ঠান প্রধানদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

এ জাতীয় আরও খবর

মাতৃভাষার মাস শুরু আজ

২১০ রান টপকে অবিশ্বাস্য এক জয় কুমিল্লার

বগুড়ায় উপ-নির্বাচন : নেতাকর্মীরা ভোটকেন্দ্রে গেলেই ব্যবস্থা নেবে বিএনপি

আগুন নিয়ন্ত্রণে মোংলা ইপিজেডের

নিজেদের ইচ্ছামতো বিশ্ববিদ্যালয় চালানো যাবে না : রাষ্ট্রপতি

বিএনপির ছেড়ে দেওয়া ৬ আসনে ভোটগ্রহণ আজ

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মুকুলের অফিস থেকে ঘরে ফেরা হলো না

আমি আহলে হাদিসের অনুসারী, পকেটে দুই কোটি ভোট : রহমতুল্লাহ

স্বাস্থ্যের ৪ পরিচালককে বদলি, নিপসমে সেব্রিনা ফ্লোরা

ভুল তথ্যে র‌্যাবের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল আমেরিকা : সংসদে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

বিশ্বের শীর্ষ ১০ ধনীর তালিকা থেকে ছিটকে গেলেন আদানি

বাণিজ্য মেলায় ১০০ কোটি টাকার পণ্য বিক্রি