বৃহস্পতিবার, ২৭শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

অভিভাবকহীন ডাকবাংলো যেন ভুতুড়ে বাড়ি!

news-image

জাহিদ পাটোয়ারী
রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে দীর্ঘদিন ধরে ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়ে আছে কুমিল্লার তিতাস উপজেলার গাজিপুরস্থ ডাকবাংলোটি। জীবজন্তুর বসবাস আর ঝোপ-ঝাড়ে বর্তমানে ভুতুড়ে বাড়িতে পরিণত হয়েছে। এটি দেখার যেন কোনো অভিভাবক নেই।

সরেজমিনে দেখা যায়, দ্বিতল ভবনটির চারপাশে সীমানা প্রাচীর দিয়ে রক্ষণাবেক্ষণের চেষ্টা করা হলেও দীর্ঘদিন ধরে অযত্নে পড়ে আছে জেলা পরিষদের নির্মিত ডাকবাংলো। বড় বড় বিভিন্ন প্রজাতির গাছ আর লতাপাতায় ঘিরে আছে ভবনের চারদিক। ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে ময়লা-আবর্জনা।

সংস্কার না করায় বৃষ্টির পানিতে ভবনের দেওয়াল ও প্রাচীরগুলো ধীরে ধীরে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। নিরাপদ আস্তানা হিসেবে গড়ে উঠেছে শিয়াল, কুকুর, বিড়াল ও বিষাক্ত সাপের বসবাস। ভবনটির নিচতলায় জানালার কাচ ভেঙে গেছে। অনেকটাই থাকার অনুপযোগী। হঠাৎ করে যে কারও চোখ পড়লে মনে হবে এটি একটি ভূতুড়ে বাড়ি।

বাংলোর প্রধান ফটকে স্থানীয়দের ধোয়া কাপড় শুকাতে দেখা গেছে। তাদের দাবি, ডাকবাংলোর গেট বেশ কয়েকবছর ধরে খোলা হয় না। তাই তারা এখানে কাপড় শুকাচ্ছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি জানান, সন্ধ্যার পর বাউন্ডারির ভেতর থেকে শিয়াল, কুকুর ও বিড়ালের ডাক শোনা যায়। মাঝে মাঝে বেরিয়ে আসতে দেখায় বিষাক্ত সাপও। নষ্ট হয়ে যাচ্ছে ভবনের ভেতরে থাকা আসবাবপত্র ও ফার্নিচার। বাংলোটি দেখভালের জন্য একজন কেয়ার টেকার থাকলেও অজ্ঞাত কারণে বর্তমানে তাকে আর দেখা যায় না।

ডাকবাংলো সংলগ্ন শাহিনুর নামে নারী জানান, সন্ধ্যার পর শুরু হয় শিয়ালের ডাক। রাতে আমাদের হাঁস-মুরগি এমনকি গবাদিপশু পর্যন্ত নিয়ে যায় শিয়ালের দল।

এ বিষয়ে স্থানীয় বলারামপুর ইউপি চেয়ারম্যান মো. নূরনবী বলেন, ডাকবাংলোর চারপাশে যেভাবে জঙ্গলে ছেয়ে গেছে বর্তমানে বসবাস অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। বিষয়টি আমার নজরে এসেছে। কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে বসবাস উপযোগী করার অনুরোধ করবো।

এ বিষয়ে কুমিল্লা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রিয়ার অ্যাডমিরাল (অব.) আবু তাহের জাগো নিউজকে বলেন, ডাকবাংলোর এমন পরিস্থিতি আমার জানা ছিল না। খবর নিয়ে বিষয়টা দেখছি।

 

এ জাতীয় আরও খবর