সোমবার, ১৬ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশকে হারিয়ে সমতায় ফিরলো জিম্বাবুয়ে

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে ২৩ রানের জয়ে সিরিজ সমতায় ফিরলো স্বাগতিকরা। হারারেতে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে টস জিতে আগে ব্যাটিং করে জিম্বাবুয়ে ৬ উইকেটে ১৬৬ রান করে। এই রান তাড়া করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে সবকয়টি উইকেট হারিয়ে ১৪৩ রান করে বাংলাদেশ। যার ফলে বাংলাদেশ ২৩ রানে হেরে মাঠ ছাড়ে।

জিম্বাবুয়ের দেওয়া চ্যালেঞ্জিং লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুতেই দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানকে হারায় বাংলাদেশ। নাঈম শেখ ও সৌম্য সরকার আগের দিন ১০২ রানের জুটি গড়লেও আজ তৃতীয় ওভারে দুজন সাজঘরে ফেরেন। মুজারাবানির করা ওভারে প্রথমে নাঈম (৫) বোল্ড হন। সৌম্য (৮) দৃষ্টিকটু শটে এক্সট্রা কভারে ক্যাচ দেন।

এরপর ওয়েলিংটন মাসাকাদজার বলে ধসে পরে বাংলাদেশের ব্যাটিং লাইন আপ। দুই সিনিয়র সাকিব ও মাহমুদউল্লাহ আগ্রাসন দেখাতে গিয়ে সাজঘরে ফিরেন। তরুণ মেহেদী হাসানকে তিনে ব্যাটিংয়ের সুযোগ দিয়েছিল দল। কিন্তু সেই সুযোগটি কাজে লাগাতে পারলো না মেহেদী। তিনজনকেই আউট করেন বাঁহাতি স্পিনার ওয়েলিংটন মাসাকাদজা। মাত্র ১০ বলের ব্যবধানে সাজঘরে ফেরেন এই তিনজন ক্রিকেটার।

সাকিব ১২ ও মাহমুদউল্লাহ ৪ রান করেন। মেহেদীর ব্যাট থেকে আসে ১৫ রান। বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি কাজী নুরুল হাসান সোহানও। চাতারার বল ডিপ স্কয়ার দিয়ে উড়াতে গিয়ে সীমানায় ক্যাচ দেন মাত্র ৯ রানে। এরপর ক্রিজে এসে ভালো কিছুর আভাষ দিয়েছিলো অভিষিক্ত হওয়া শামীম হোসেন পাটোয়ারি।

কিন্তু ১৩ বলে ২৯ রানের ছোট্ট ক্যামিও ইনিংস খেলে সাজঘরে ফিরলেন বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান। কিন্তু ১৬তম ওভারের প্রথম বলে তাকে থামিয়ে জিম্বাবুয়েকে আনন্দে ভাসান লুক জংওয়ে। ডানহাতি পেসারের বল ক্রস করতে গিয়ে লং অনে ক্যাচ দেন শামীম। ৭ উইকেট হারিয়ে যখন চাপে পরে বাংলাদেশ সেই খান থেকে দলকে টেনে তুলতে চেষ্টা করেন সাইফউদ্দিন ও আফিফ হোসেন। তবে দলীয় ১২৭ রানে আফিফ ফিরে গেলে বাংলাদেশের পরাজয় নিশ্চত হয়ে যায়। শেষ দিকে তাসকিনকে সঙ্গে নিয়ে দলকে জেতাতে পারেনি সাইফউদ্দিন।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

বাংলাদেশ: ১৪৩/১০ ( ১৯.৫ ওভার)

টার্গেট: ১৬৭

বাংলাদেশ একাদশ: মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (অধিনায়ক), নাঈম শেখ, সৌম্য সরকার, সাকিব আল হাসান, কাজী নুরুল হাসান, আফিফ হোসেন ধ্রুব, শামীম হোসেন পাটোয়ারি, শেখ মেহেদী হাসান, সাইফউদ্দিন, তাসকিন আহমেদ ও শরিফুল ইসলাম।

জিম্বাবুয়ে একাদশ: সিকান্দার রাজা (অধিনায়ক), ওয়েসলি মাধেভেরে, তাদিওয়ানাশে মারুমানি, রেগিস চাকাবা, ডিয়ন মায়ার্স, মিল্টন শুম্বা, রায়ান বার্ল, লুক জংউই, ওয়েলিংটন মাসাকাদজা, টেন্ডাই চাতারা, ব্লেসিং মুজারাবানি।