মঙ্গলবার, ১৫ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১লা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

হাঁড়িভাঙ্গা আম : একশ কোটি টাকার বিক্রির টার্গেট

news-image

হারুন উর রশিদ সোহেল,রংপুর : রংপুর অঞ্চলের বিখ্যাত স্বাদে-গন্ধে অতুলনীয় সুস্বাদু হাঁড়িভাঙ্গা আম গাছ থেকে পাড়া শুরু হবে আগামী ২০ জুন। এর পরই হাঁড়িভাঙ্গার বাজারজাত শুরু হবে। এ বছর প্রায় আড়াই হাজার হেক্টর বাগানে হাঁড়িভাঙ্গার ফলন হয়েছে। করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকলে এবার একশ কোটি টাকার ওপরে বেচাবিক্রি হবে বলে আশা করছে চাষি ও ব্যবসায়ীরা।

কৃষি বিভাগ ও আমচাষিরা জানান, আগামী ২০ জুন থেকে বাজারে মিলবে পরিপক্ক হাঁড়িভাঙ্গা আম। এর আগে বাজারে হাঁড়িভাঙ্গা আম পাওয়া গেলেও তা অপরিপক্ক ছিল। হাঁড়িভাঙ্গার প্রকৃত স্বাদ পেতে দেড় সপ্তাহ খানেক অপেক্ষা করতে হবে। বর্তমানে বাগানগুলোতে আমের পরিচর্যা চলছে।এদিকে আমের ন্যায্য দাম নিশ্চিতকরণে প্রশাসনের উদ্যোগ গ্রহণ, পরিবহন সুবিধা বাড়াতে আম পরিবহনের জন্য বিশেষ বাস ও ট্রেন সার্ভিস চালু, হাড়িভাঙ্গা আমের রাজধানী পদাগঞ্জ হাটের রাস্তাঘাটের সংস্কার এবং হাটে ব্যাংকিং সুবিধা নিশ্চিত করাসহ পাবলিক টয়লেট স্থাপন ও পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান।

জানা গেছে, হাঁড়িভাঙা আমের গোড়াপত্তন করেছিলেন মিঠাপুকুর উপজেলার খোড়াগাছ তেকানি গ্রামের নফল উদ্দিন পাইকার নামে এক বৃক্ষবিলাসী মানুষ। বাংলাদেশের স্বাধীনতার আগের বছর ১৯৭০ সালে নফল উদ্দিন ১২০ বছর বয়সে মারা যান। এখন তার লাগানো হাঁড়িভাঙ্গা গাছটির বয়স ৬৮ বছর। মাতৃগাছটির সংরক্ষণের দাবি জানান নফল উদ্দিন পাইকারের ছেলে আমজাদ হোসেন পাইকার।মিঠাপুকুরের তেকানি গ্রামের বাসিন্দা শাহ্জাহান মিয়া। তিনি জানান, বছর দশেক আগেও শুধু ধান, ভুট্টা আর পাটচাষ করতেন। কিন্তু গ্রামে হাঁড়িভাঙ্গা আম গাছের বাগানের পর বাগান দেখে তিনিও ৪৮ শতক জমিতে আমের বাগান গড়ে তোলেন।

তিনি আরও জানান, এবার আমের ভালো ফলন হয়েছে। গাছের আম দেখে মন জুড়ে যায়। আল্লাহ রহম করলে এবার আম বিক্রি করে ঋণ পরিশোধ করবো। গত বছর করোনার কারণে খুব বেশি লাভ হয় নাই। এবার আশা করি ভালোয় বেচাবিক্রি হইবে।’রংপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্র জানায়, এবার মিঠাপুকুর উপজেলার আখিরাহাট, পদগঞ্জ, মাঠেরহাট, বদরগঞ্জ উপজেলার গোপালপুরসহ কিছু এলাকাতে প্রায় ৩ হাজার ৩০০ হেক্টর জমিতে সব জাতের আমের আবাদ হয়েছে।এর মধ্যে আড়াই হাজার হেক্টর জমিতে রয়েছে হাঁড়িভাঙ্গা আম। জেলায় উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৪৩ হাজার ৮৩৫ মেট্রিক টন। এর মধ্যে হাঁড়িভাঙ্গা আমের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২৭ হাজার ৯২৫ টন আম।

জেলার মধ্যে বদরগঞ্জে সবচেয়ে বেশি ৪০০ হেক্টর জমিতে আম চাষ হয়েছে। এছাড়াও রংপুর মহানগর এলাকায় ২৫ হেক্টর, সদর উপজেলায় ৬০ হেক্টর, কাউনিয়ায় ১০ হেক্টর, গঙ্গাচড়ায় ৩৫ হেক্টর, মিঠাপুকুরে ১ হাজার ২৫০ হেক্টর, পীরগঞ্জে ৫০ হেক্টর, পীরগাছায় ৫ হেক্টর ও তারাগঞ্জ উপজেলায় ১৫ হেক্টর জমিতে আমবাগান রয়েছে।এব্যাপারে কথা হয় রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের অতিরিক্ত উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মাসুদুর রহমান সরকারের সাথে। তিনি বলেন, ‘জেলায় এখন ব্যাপকভাবে হাঁড়িভাঙা আম চাষ হচ্ছে। খুব বেশি পরিশ্রম ও অর্থ বিনিয়োগ করতে না হওয়ায় মানুষ আমচাষে আগ্রহী হয়ে উঠছেন। চাষি, ব্যবসায়ী ও বাগান মালিকদের কৃষি বিভাগ থেকে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করা হচ্ছে।’

রংপুরের জেলা প্রশাসক আসিব আহসান বলেন, হাঁড়িভাঙ্গার বাজার সম্প্রসারণ ও চাষাবাদ বাড়ানোর জন্য সরকারের পক্ষ থেকে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। এবার রংপুর মহানগরীর লালবাগ এলাকায় আগামী ২০ জুন সরাসরি কৃষকের আম বিক্রির ব্যবস্থা করা হয়েছে। ওইদিনই সদয় অ্যাপস নামে একটি হাঁড়িভাঙ্গা আম বিক্রি অ্যাপস চালু করার কথা রয়েছে।