মঙ্গলবার, ১৫ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১লা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ঈদের দিন ঘরেই কেটেছে রাজনীতিকদের

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঈদের দিন ঘরেই কেটেছে রাজনীতিকদের। কেউ কেউ নিজের বাসায়ই সীমিত পরিসরে ঈদের জামাতের আয়োজন করেছেন। এছাড়া তারা পরিবারের সঙ্গেই দিনটি কাটিয়েছেন। তবে, তারা ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে জনগণের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন। করোনাভাইরাসের ভয়াবহতার কথা তুলে ধরে তাদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পরামর্শ দিয়েছেন।

ঈদের দিন (শুক্রবার) বিকালে বেশ কয়েকজন রাজনীতিকের সঙ্গে আলাপ হয়। তারা জানান, ঈদ সবার জন্য আনন্দের হলেও স্বাভাবিক সময়ের মতো এবারের ঈদ না হওয়ায় দিনটি পালনও স্বাভাবিক ছিল না। করোনা মহামারিকালের এই ঈদ অনেকটা দুঃখের মধ্যেই কেটেছে। অন্য সময়ের মতো তারা যেমন বাসার বাইরে গিয়ে আত্মীয়-স্বজন বন্ধু-বান্ধবের সঙ্গে দেখা-সাক্ষাৎ করতে পারেননি, তেমনি তাদের বাসাতেও অন্যদের আগমনে গমগমে পরিবেশ ছিল না।

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য তোফায়েল আহমেদ জানান, প্রতি বছরই তিনি ভোলায় বাবা-মায়ের কবরের পাশে ঈদের নামাজ আদায় করার পর কবর জিয়ারত করেন। কিন্তু করোনার কারণে তিনি ভোলা যেতে পারেননি। ঢাকার বাসায়ই অবস্থান করছেন। ঈদের দিনে বাসা থেকে বের হননি। মোবাইল ফোনে সবার সঙ্গে যোগাযোগ করছেন। অনেকে তাকেও ফোন করে খোঁজখবর নিয়েছেন। ঈদের আগে তিনি ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্মে যুক্ত হয়ে তিনি নির্বাচনি এলাকার মানুষের সঙ্গে কথা বলার পাশাপাশি সরকারি অনুদান বিরতণ করেছেন। তিনি ব্যক্তিগত ফান্ড থেকেও এলাকার জনগণকে সহায়তা করেছেন।

স্থানীয় সরকারমন্ত্রী তাজুল ইসলাম ঈদের দিনটা মিন্টো রোডের সরকারি বাসায়ই কাটিয়েছেন। আগে থেকেই নিরুৎসাহিত করার কারণে একান্ত দু’একজন নিকট আত্মীয় ছাড়া তার বাসায় উল্লেখযোগ্য কেউ আসেনি। তিনি বলেন, ‘সব সময় মানুষ আত্মীয়স্বজনদের বাসায় আসতে দাওয়াত দেয়, কিন্তু করোনা পরিস্থিতির কারণে আমরা উল্টো এবার বাসায় আসতে নিরুৎসাহিত করেছি। তারপরও একান্ত দু’একজন আপনজন এসেছেন। তবে, আমি বাসা থেকে বের হইনি। মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করে অনেকের খোঁজখবর নিয়েছি। রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব পালনের জন্য চলমান করোনাকালের অন্য দিনগুলোতে বাইরে যাওয়ার প্রয়োজন পড়লেও আজ বাইরে যাওয়ার দরকার পড়েনি।’ দিনের বাকি সময়ও বাইরে যাওয়ার কোনও পরিকল্পনা নেই বলেও তিনি জানান।

জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের সকালে উত্তরা ৫ নম্বর সেক্টর মসজিদে ঈদের নামাজ আদায় ছাড়া সারাদিন বাইরে যাননি। পরিবারের সদস্যদের সঙ্গেই ঈদ কাটিয়েছেন। তবে, দলের কিছু নেতা-কর্মী এবং ঢাকায় বসবাসকারী নির্বাচনি এলাকার কিছু জনগণ বাসায় এলে তাদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন। জাপা চেয়ারম্যান বলেন, ‘দলের দায়িত্বে থাকার কারণে কেউ বাসায় আসলে তো না করতে পারি না। তারপর আবার ঈদের দিন। ফলে কিছু নেতা-কর্মী আসছেন। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে তাদের সঙ্গে কুশলাদি বিনিময় করছি। সবাইকে স্বাস্থ্য সুরক্ষা মেনে চলতে সতর্ক হওয়ার পরামর্শ দিয়েছি।’

জাতীয় পার্টির মহাসচিব জিয়া উদ্দিন আহমেদ বাবলুর ঈদও কেটেছে বাসাতেই। তিনি বলেন, ‘বাসা থেকে কোথাও বের হইনি। তবে দিনভর সারাদেশের রাজনৈতিক নেতা-কর্মীর সঙ্গে মোবাইল ফোনে শুভেচ্ছা বিনিময় করেছি। তাদের খোঁজ খবর নিয়েছি। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পরামর্শ দিয়েছি।’

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘ঈদ মানেই তো আনন্দ। কিন্তু করোনাকালে এই ঈদ তো দুঃখের ঈদ। গতানুগতিক ঈদের মতো এটা পালন করার সুযোগ নেই। দুঃখের ভেতরকার ঈদটা যেমন কাটার সেভাবেই কাটছে। সারাদিন বাসায়ই ছিলাম। ফোনের মাধ্যমে কিছু কুশল বিনিময় করছি। তাদের সঙ্গে কথা বলছি আর সতর্কতা জারি করছি।’ তিনি জানান, পরিস্থিতি যেটা দেখা যাচ্ছে তাতে ঈদের পরেও বিপদের আশঙ্কা রয়েছে। কাজেই সতর্কতার কোনও বিকল্প নেই।

ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেন, ‘ঈদের দিন নাতি-নাতনিদের দেখতে ছেলের বাসায় গিয়েছিলাম। তাদের সঙ্গে কিছুটা সময় কাটিয়েছি। বাইরে বের হওয়ার ক্ষেত্রে মাস্ক পরাসহ স্বাস্থ্য সুরক্ষার যাবতীয় ব্যবস্থা করেছি। আমরা বাসায় আত্মীয়-স্বজনদের আসতে নিরুৎসাহিত করেছি। তবে ফোনে নির্বাচনি এলাকার জনগণ ও পার্টির নেতা-কর্মীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেছি।’

নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী ঈদের দিনে ভার্চুয়ালি ব্যস্ত ছিলেন। মোবাইল-হোয়াটসঅ্যাপসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহার করে সবার সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন। তিনি বলেন, ‘স্বাভাবিক সময়ের ঈদ হলে আমরা শারীরিক উপস্থিতির মাধ্যমে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করতাম। এবার সবটাই হয়েছে ভার্চুয়ালি। সারাদিনই ভার্চুয়ালি ব্যস্ততার মধ্যে কেটেছে। ঈদে খাবার-দাবারসহ যত আয়োজন থাকে তার বেশির ভাগই বাদ দেওয়া হয়েছে। ঈদের বাড়তি আয়োজন হিসেবে নামাজটা আদায় করেছি। আর সেমাই রান্না হয়েছে। এছাড়া বাকিসব আয়োজন ছিল স্বাভাবিক দিনের মতোই।’ খালিদ মাহমুদ তার সরকারি বাসার লনে নিকটজনদের নিয়ে সীমিত পরিসরে ঈদের নামাজ আদায় করেছেন বলে জানান।

ঈদের দিন বাসা থেকে একবারের জন্যও বের হননি উল্লেখ করে নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘স্বাভাবিক সময় ঈদে ঢাকায় থাকলে অবশ্যই গণভবনে গিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করি। বাসায় আত্মীয়-স্বজন বন্ধুবান্ধব আসেন। এবার সেটা হয়নি।’ তিনি জানান, ঈদের আগে দুই দফায় নির্বাচনি এলাকায় গিয়ে তাদের খোঁজখবর নিয়েছেন। যতদূর সম্ভব আর্থ ও খাদ্যসামগ্রী প্রদান করেছেন। বাংলা ট্রিবিউন