শনিবার, ২৭শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ধানমন্ডি লেকে প্রকাশ্যে মাদকসেবন!

news-image

নিউজ ডেস্ক : রাজধানীতে অবকাশ যাপনের জায়গার সংখ্যা খুবই কম বললেই চলে। যেগুলো আছে সেটাও দিনে দিনে নিরাপত্তাহীনতা ও অসামাজিক কাজের জন্য ঘুরতে যাওয়ার অনুপযোগী হয়ে পড়ছে। এর একটি ধানমন্ডি লেক। সকাল কিংবা বিকাল, সন্ধ্যা বা রাত সবসময় প্রকাশ্যে ধানমন্ডি লেকে চলে মাদকসেবন।

সরেজমিনে দেখা গেছে, ধানমন্ডি লেকের বিভিন্ন জায়গাগুলোতে মাদকসেবনের মহড়া বসে। এগুলোর মধ্যে রবীন্দ্র সরোবর, ব্যাচেলর পয়েন্ট, জাহাজবাড়ি পরিচিত’র পেছনে, দ্বীপ চত্বর, লেকভিউ সাইডসহ লেকের বিভিন্ন জায়গায় চলে এই মাদকসেবন। বিভিন্ন বয়সের মানুষেরা এসব মাদকসেবন করে। সন্ধ্যা শুরুর সঙ্গে সঙ্গেই মাদকের গন্ধ তীব্র হতে থাকে।

ধানমন্ডি লেকে আসা বিভিন্ন দর্শনার্থীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, মাদকসেবনের কারণে দিনে দিনে লেকের সৌন্দর্য বিনষ্ট হচ্ছে।

ধানমন্ডি লেকে প্রায় প্রতিদিন হাঁটতে আসেন শরিফুল ইসলাম। তিনি বলেন, আমি অফিস শেষ করে শরীর ঠিক রাখার জন্য লেকে হাঁটতে আসি। তবে এখন হাঁটার সময় প্রায় জায়গাগুলোতেই মাদকের গন্ধ পাই। প্রকাশ্যেই দেখতে পাই- এমন অনেকে একসঙ্গে বসে সেবন করতে। তিনি বলেন, শুধু সিগারেটের গন্ধ আমি বুঝি, এটা তেমন ধরনের নয়।

মাদকসহ আরও বিভিন্ন বিষয়ে এমন অভিযোগ শুধু শরিফুলের ইসলামের নয়; লেকে ঘুরতে আসা অনেকেরই। জান্নাতুল ফেরদাউস থাকেন হাজারীবাগ এলাকাতে। প্রায়ই লেকে আসেন পরিবার নিয়ে ঘুরতে। তিনি বলেন, আশেপাশের কাছের মধ্যে ধানমন্ডি লেকে এস কিছুটা স্বস্তিতে নিঃশ্বাস নেয়া যায়। কিন্তু এখন সেটাও হচ্ছে না। প্রকাশ্যে মাদকসেবন করছে। যেন কেউ দেখার নেই। ছেলে-মেয়েরাও মিশছে অবাধে। লেকের যেদিকেই তাকাই এমন চিত্রই দেখা যায়।

সন্ধ্যার পর ব্যাচেলর পয়েন্ট ও রবীন্দ্র সরোবরে গিয়ে দেখা যায়, মুখভর্তি ধোয়া আর গানে গানে চলছে মাদকসেবন। পাশেই ধানমন্ডি সাতমসজিদ প্রধান সড়ক হওয়ায় নজর কারে এমন গান ও ধোয়ার।

ব্যাচেলর পয়েন্টে একজন মাদকসেবনকারী নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, সন্ধ্যার পর থেকে আমরা এখানে বন্ধুরা মিলে আড্ডা দিই, গান গাই। কোন অন্যায় তো করছি না। এখন আমাদের অনেকদিন ধরে ক্যাম্পাসও বন্ধ। মাঝে মাঝে সুযোগ পেলে আসা হয়।

ধানমন্ডি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকরাম আলী মিয়া বলেন, ধানমন্ডি এলাকা মাদকমুক্ত। তবে লেকে মাঝে মাঝে মাদকসেবনের কিছু অভিযোগ পাওয়া গেছে। আমাদের পুলিশ সদস্যরা নিয়মিত টহল দেয়। এগুলো বেশিদিন থাকবে না বলে জানান তিনি।

রমনার ধানমন্ডি জোনের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (এডিসি) আর এম ফয়জুর রহমান বলেন, কোন জায়গাগুলোতে মাদকসেবন হয় এবং কখন হয় এবিষয়ে তথ্য নিয়ে আমরা ব্যবস্থা নেব। লেকের কোন দর্শনার্থীদের যেন সমস্যা না হয় সেদিকে নজর দেয়া হচ্ছে। বাংলাদেশ জার্নাল

এ জাতীয় আরও খবর