বৃহস্পতিবার, ২১শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৫ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শীতের ফজরে অধিক সওয়াব

news-image

শীস মুহাম্মদ : কুয়াশামোড়া শীতের ভোরে লেপ-তোশক ছেড়ে ওঠা কষ্টকর। তবে ঠান্ডা বাতাস ও কুয়াশা ভেদ করে যখন মুমিনের কর্ণকুহরে আজানের ধ্বনি প্রবেশ করে, তখন সে অলসতা ঝেড়ে ফেলে। ঠান্ডা-শীতল পানিতে অজু করে। শীতার্ত আবহাওয়া উপেক্ষা করে মসজিদের দিকে পা চালায়। মহান প্রভুর ডাকে সাড়া দেয়।

এমন মুমিন বান্দার জন্যই এসেছে ক্ষমার ঘোষণা। রাসুল (সা.) বলেন, ‘আমি কি তোমাদের এমন বিষয়ের সংবাদ দেব না, যার মাধ্যমে আল্লাহ তোমাদের গুনাহ মুছে দেবেন এবং তোমাদের মর্যাদা বাড়িয়ে দেবেন? সাহাবায়ে কেরাম বললেন, অবশ্যই হে আল্লাহর রাসুল। নবী (সা.) তখন বলেন, (শীত বা অন্য কোনো) কষ্টকর মুহূর্তে ভালোভাবে অজু করা।’ (মুসলিম, হাদিস : ২৫১)

শীতের ভোরে ফজরের নামাজ আদায় কষ্টসাধ্য ইবাদত। আর যে ইবাদতে কষ্ট বেশি, সে ইবাদতে সওয়াবও বেশি। স্বাভাবিকভাবে ফজরের নামাজের ফজিলত ও সওয়াব এমনিতেই অন্যান্য নামাজের চেয়ে বেশি। কিন্তু শীতের ভোরে ফজরের নামাজের সওয়াব-মর্যাদা বেড়ে যায় শতগুণ। রাসুল (সা.) বলেন, ‘যে ব্যক্তি দুই ঠান্ডার সময়ের নামাজ আদায় করবে, সে জান্নাতে প্রবেশ করবে।’ (বুখারি, হাদিস : ৫৭৪) হাদিসে দুই ঠা-ার নামাজ থেকে উদ্দেশ্য হলো এশা ও ফজর। শুধু ঠাণ্ডার কারণে নামাজের সওয়াব ও ফজিলত বেড়ে যায় বহুগুণে।