মঙ্গলবার, ১১ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ২৮শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আমন ধানের বাম্পার ফলনে আশায় আলো দেখছেন কৃষকরা 

news-image
তৌহিদুর রহমান নিটল, ব্রাহ্মণবাড়িয়া : ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ফসলের জমিতে আমন ধান কাটার ধুম পড়েছে। ইতোমধ্যেই জেলার নয়টি উপজেলায় কৃষকরা রোপা আমন ধান কাটা শুরু করেছেন। ফলন ভালো হওয়ায় খুশী কৃষক ও কৃষানিরা। এ বছর জেলায় আমনের বাম্পার ফলন হয়েছে বলে জানিয়েছেন কৃষি সংশিষ্টরা। সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, ফসলের  মাঠে সোনালী ধানের ঢেউ উঠেছে। পাকা ধানের গন্ধে মাতোয়ারা হয়ে পড়েছে কৃষাণ-কৃষানিরা। চলছে ধান কাটা ও সংরক্ষণের প্রস্তুতি। পাশাপাশি চলছে নবান্নে মেহমান আমন্ত্রণের কাজও। মৌসুমি শ্রমিকের পাশাপাশি মাঠে নামছে কৃষক পরিবারের সদস্যরা। ধান কেটে আটি বেঁধে নেয়া হচ্ছে বাড়ির উঠানে, কেউবা মাঠের পাশেই করছেন মাড়াইয়ের কাজ। এ যেন এক অন্যরকম দৃশ্য।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্য মোতাবেক, চলতি অর্থ বছরে জেলায় আমন ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ৫০.৩১০ হেক্টর জমি। চাষ হয়েছে ৫০.৯০০ হেক্টর জমিতে। জেলায় মোট উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১.৪২.৮৭৬ মেট্টিক টন ধান। এর মর্ধ্যে জেলার সরাইল উপজেলায় আমন ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ৬.৬৪০ হেক্টর জমি, চাষ করা হয়েছে ৬.৭২০ হেক্টর জমিতে।  উপজেলায় উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১৮,৮১৮ মেট্টিক টন। কসবায় আমন ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ১২,০১০ হেক্টর, চাষ করা হয়েছে ১১.৯৯০ হেক্টর জমিতে। এ উপজেলায় উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৩৫,১৬৭ মেট্টিক টন। আখাউড়ায় আমন ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ৩,৫০০ হেক্টর জমি, চাষ করা হয়েছে ৩,৫৬৫ হেক্টর জমিতে। উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১০,২০০ মেট্টিক টন। বিজয়নগরে আমন ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ৪,২৯০ হেক্টর জমি, চাষ করা হয়েছে ৪,৪৫০ হেক্টর জমিতে। উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১২,৩০৬ মেট্টিক টন। নাসিরনগরে আমন ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ৪,৬০০ হেক্টর জমি, চাষ করা হয়েছে ৪,৪৮০ হেক্টর জমিতে। নাসিরনগর উপজেলায় উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১২,৮৮৫ মেট্টিক টন। নবীনগরে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ৬,০৪০ হেক্টর, চাষ হয়েছে ৬,০৩৫ হেক্টর জমিতে। উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ১৭,৪৯৭ মেট্টিক টন। বাঞ্ছারামপুরে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ হয়েছিল ৩৮৫ হেক্টর, চাষ হয়েছে ৩৪০ হেক্টর জমিতে। লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১,০৪৩ মেট্টিক টন। আশুগঞ্জ উপজেলায় আমন ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ২,৯১০ হেক্টর জমি, চাষ করা হয়েছে ৩,৪১০ হেক্টর জমিতে। আশুগঞ্জ উপজেলায় উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৭,৪৪৭ মেট্টিক টন।
সদর উপজেলার বুধল গ্রামের বাসিন্দা কৃষক শামসু মিয়া বলেন, এ বছর তিনি ৩ বিঘা জমিতে ব্রিধান-৪৯ জাতের ধান চাষ করেছিলেন। ফলন ভালো হয়েছে। তিনি বলেন, বর্তমানে বাজারে ধানের দামও ভালো। প্রতিমণ ধান বিক্রি হচ্ছে সাড়ে ৬শ থেকে ৭০০ টাকা দরে।
সরাইল শাহবাজপুর গ্রামের কৃষক মজনু মিয়া বলেন, ধানের ফলন এবছর ভাল হয়েছে। কিন্তু ফসল জমি থেকে কেটে আনতে শ্রমিকের খরচ অনেক বেড়ে গেছে। তিনবেলা খাওয়া দেওয়ার পর ৫০০ শত টাকা জনপ্রতি পারিশ্রমিক দিতে হচ্ছে। এতে জমিতে ফসল করে আগের মত লাভবান হওয়া যাচ্ছেনা ।
এ ব্যাপারে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার উপপরিচালক রবিউল হক মজুমদার বলেন, চলতি রোপা আমন মৌসুমে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় কৃষকরা বিআর-২২,২৩, ব্রিধান-৪৯, ব্রিধান-৮৭, বিনা-৭, হাইব্রিড ধান ও স্থানীয় পাজাম, কালোজিরাসহ বিভিন্ন ধরনের ধানের চাষ করেছেন। ফলন খুবই ভালো হয়েছে। মাঠের অবস্থা খুবই ভালো। তিনি বলেন, আবহাওয়া অনুকূল ও পোকা মাকড়ের আক্রমণ না থাকায় আমন চাষে লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে গেছে।