শুক্রবার, ২২শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৮ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

মহাকাশ পরিণত হচ্ছে ভাগাড়ে

news-image

অনলাইন ডেস্ক : নাসার বিজ্ঞানী ডোনাল্ড কেসলার ১৯৭৮ সালে বিপর্যয়ের আশঙ্কা নিয়ে সতর্ক করেছিলেন, মহাকাশে ক্যাসকেডিং চেইন রিঅ্যাকশন হতে পারে। যা বর্তমানে ‘কেসলার সিনড্রোম’ নামে পরিচিত। ওই তত্ত্ব মতে, পৃথিবীর ওপরের স্থানটি একসময় খুবই ভিড়ভাট্টায় ভরে যাবে, এটি সক্রিয় ও নিষ্ক্রিয় দু’ধরনের উপগ্রহ দ্বারাই দূষিত হবে। পরিণত হবে ভাগাড়ে।

এ কারণে ভবিষ্যৎ মহাকাশ অভিযান হয়তো অসম্ভব হবে না, কিন্তু পথ খুঁজে পেতে কষ্টকর হবে তাতে কোনো সন্দেহ নেই।

সিএনএন জানায়, নতুন একটি স্টার্টআপ চালু করতে দিয়ে পুরোনো কথাগুলো আবার স্মরণ করিয়ে দিলেন রকেট ল্যাবে প্রধান নির্বাহী পিটার বেক। তিনি বলেন, ইতিমধ্যে মহাকাশ অভিযানে বাড়তে থাকা ভিড় নিয়ে এই অভিজ্ঞতা হয়েছে। নতুন স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণর জন্য পরিচ্ছন্ন পথ খুঁজে পাওয়া কঠিন পড়েছে। সঙ্গে যোগ করেন, এ সমস্যা সমাধানে তারা কাজ করে যাচ্ছেন।

মহাশূন্যের বেশির ভাগ অঞ্চলই নিয়ন্ত্রণহীন। গত ৫ দশকেও আন্তর্জাতিক চুক্তিতে বড় কোনো পরিমার্জন আসেনি। বরং বেশির ভাগ বিষয়ই ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বাণিজ্যিক মহাকাশ সংস্থারগুলোর ওপর।

রকেট ল্যাব জানাচ্ছে, তারা কম ওজনের রকেট বানাচ্ছে। যা স্পেসএক্সের ২৩০ ফুট উচ্চতার ফ্যালকন রকেট থেকেও অনেক ছোট। মাস ও সপ্তাহ ভিত্তিতে ছোট আকারের উপগ্রহের ঝাঁক ছাড়তেও সক্ষম। ২০১৮ সাল থেকে ১২টি সফল মিশনে প্রতিষ্ঠানটি গবেষণা ও বাণিজ্যিক খাতে ৫৫টি উপগ্রহ ছেড়েছে।

বেক জানান, সর্বশেষ ১২ মাসে মহাকাশে ভিড়ভাট্টার কারণে কক্ষপথে ট্র্যাফিক খুবই বাজে অবস্থায় দাঁড়িয়েছে।

এ দিকে একের পর এক উপগ্রহ সংযোজন করে যাচ্ছে স্পেসএক্স। ৭০০ ইন্টারনেট বিমিং স্যাটেলাইটের পর ১২ থেকে ৪০ হাজার স্যাটেলাইট স্থাপনের পরিকল্পনা রয়েছে তাদের। যা ১৯৫০ এর দশকের শেষ থেকে এখন পর্যন্ত স্থাপিত কৃত্রিম স্যাটেলাইটের পাঁচ গুন। তবে ট্র্যাফিক জটিলতা নিয়ে সংস্থাটির কোনো মন্তব্য নেই।

সব মিলিয়ে কয়েক দশক আগে কেসলারের অনুমিত চেইন রিঅ্যাকশন নিয়ে উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ নেই। সেখানে বলা হয়েছিল, অতিরিক্ত ট্র্যাফিকের কারণে দুটি বস্তুর মধ্যে সংঘর্ষ হলে তা কক্ষপথ জুড়ে ছড়িয়ে পড়বে। এ ঘটনাতেই পৃথিবীর উপরিভাগ ভাগাড়ে পরিণত হবে দ্রুত। এ ধরনের চেইন রিঅ্যাকশন নিয়ে ইতিমধ্যে ‘গ্র্যাভিটি’র মতো জনপ্রিয় সিনেমা তৈরি হয়েছে হলিউডে। অবশ্য সংঘর্ষ এড়াতে স্পেসএক্স বা রকেট ল্যাব তাদের স্যাটেলাইটের অবস্থান সব সময় আপডেট রাখে। কিন্তু অন্য প্রতিষ্ঠানগুলো এতটা সতর্ক নয়।