মঙ্গলবার, ২৫শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া ৪ লাখ টাকায় মিটলো ভুল চিকিৎসায় রোগী মারার দায়

B.Baria Picআমিরজাদা চৌধুরী : শাহীনা আক্তারের জীবনের মুল্য ধরা হয়েছে ৩ লাখ টাকা। পরিস্থিতি সামাল দিতে খরচ করা হয়েছে আরো লক্ষাধিক টাকা। সব মিলিয়ে ৪ লাখ টাকায় ভুল চিকিৎসায় রোগী মারার দায় মিটিয়েছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের কুমারশীল মোড়ে অবস্থিত নিউ ল্যাব এইড ডায়াগনষ্টিক সেন্টার এন্ড হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। যদিও শাহিনার স্বামী জালাল মিয়া এখনো হাতে টাকা পাননি বলে জানিয়েছেন। তবে এ বিষয়ে কথাবার্তা হয়েছে বলে স্বীকার করেন জালাল। চিকিৎসকের ভুল চিকিৎসা ও সেবিকাদের অবহেলায় গত ৫ ই জানুয়ারী মৃত্যু হয় দুই সন্তানের জননী শাহীনা আক্তার (২৫) এর। এক ইনজাকশন একাধিকবার দেওয়ায় শাহীনা মারা যায় বলে তার পরিবারের লোকজন অভিযোগ করেন। শ্বাস-প্রশ্বাস জনিত সমস্যায় আক্রান্ত শাহীনাকে ঐদিন সকাল সাড়ে ১১টার দিকে শহরের ওই বেসরকারি হাসপাতালটিতে ভর্তি করা । ভর্তির এক ঘন্টার পরই শাহীনা মারা যান। সে শহরের দক্ষিণ পৈরতলা এলাকার জালাল মিয়ার স্ত্রী ও একই গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা ইউনুছ মিয়ার মেয়ে। শাহিনার মৃত্যুর পরপরই পরিবারের লোকজন অভিযোগ করেন,চিকিৎসকের ভুল চিকিৎসা ও সেবিকাদের অবহেলার জন্যই শাহীনা মারা গেছে। এরআগে গত ৩০ ডিসেম্বর নিউ ল্যাব এইড ডায়াগনষ্টিক সেন্টার এন্ড হাসপাতালে সরাইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ হালিমা নাজনীনের তত্ত্বাবধানে অস্ত্রপচারের মাধ্যমে অন্ত:সত্তা শাহীনা একটি কন্যা সন্তানের জন্ম দেন। ২ জানুয়ারি হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র নিয়ে শাহীনা বাড়ি ফিরে যান। এরপর ৪ জানুয়ারী রাতে শাহীনার শ্বাসকষ্ট দেখা দেয়। পরদিন তাকে আবার নিউ ল্যাব এইড ডায়াগনষ্টিক সেন্টার এন্ড হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। হাসপাতালে ভর্তির পর হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক সৈয়দা মাসুমা কাওছার ও স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ হালিমা নাজনীন তার চিকিৎসা দেন। তাকে বিভিন্ন ওষুধ ও ইনজেকশন দেওয়ার পরামর্শ দেয়া হয়। শাহীনার স্বামী জালাল মিয়া অভিযোগ করেন-হাসপাতালে কর্তব্যরত এক সেবিকা শাহীনাকে একই ইনজেকশন দুইবার পুশ করে। তখন ঐ নার্সকে ইনজেকশনটি আগে একবার দেয়া হয়েছিলো বলে জানালে সে কর্নপাত করেনি। বলে এতে কোন সমস্যা হবেনা। জালাল জানান-দ্বিতীয়বার ইনজেকশনটি দেয়ার পরই তার স্ত্রী নিস্তেজ হয়ে পড়ে। তখন হাসপাতালের ষ্টাফ ও ডাক্তাররা তার কাছে এসে বলে তার স্ত্রী জ্ঞান হারিয়েছে। কিছুক্ষন পর জালালকে রোগীর কক্ষ থেকে বের করে দেয়া হয়। তখন বলা হয় আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছি। বেশ কিছুক্ষন পরে এসে জানায় তার স্ত্রী মারা গেছে। এ ঘটনার পরপরই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ হাসপাতালের মুল গেইট বন্ধ করে দেয় । হাসপাতালে পুলিশ ডেকে আনা হয়। এরপর হাসপাতালের ভেতরে লাশটি রেখে রফাদফার চেষ্টা চালায়। ঐদিনই আলাপ আলোচনার পর জালাল তার স্ত্রীর লাশ নিয়ে বাড়িতে চলে যায়। বেসরকারী হাসপাতালটির দায়িত্বশীল একটি সুত্র জানিয়েছে, তারা জালালকে ৩ লাখ টাকা দিয়েছেন। আর এক লাখ ৫/৬ হাজার টাকা পরিস্থিতি সামাল দিতে খরচ করা হয়েছে। তবে জালাল মিয়া টাকা পাওয়ার কথা অস্বীকার করে বলেন এ বিষয়ে একটা আলাপ আলোচনা হয়েছে। কিন্তু আমি এখনো কোন টাকা পাইনি। মেয়র ও মন্টু ভাই বলেছে আমারে খবর দিবো। আমারে বলছে তুমি লাশ নিয়া বাড়িতে যাও,দাফন করো। ৩ দিনের দোয়া পড়ানোর পর আমরার সাথে বসবা। সে হিসেবে শনিবার(গতকাল) বসার কথা।

 

এ জাতীয় আরও খবর