বুধবার, ১লা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

মাংস সংরক্ষণ যেভাবে

news-image

ঈদের সময় অনেকেই মাংস সংরক্ষণ করে রাখেন বেশ কিছুদিন ধরে খাওয়ার জন্য।ঈদের সময় অনেকেই মাংস সংরক্ষণ করে রাখেন বেশ কিছুদিন ধরে খাওয়ার জন্য। ঈদের রান্নাবান্না ও অতিথি আপ্যায়নের পাশাপাশি মাংস সংরক্ষণ করে রাখাটাও বেশ ঝামেলার ব্যাপার। জেনে নিন কম ঝামেলায় কীভাবে কাজটি করবেন। এ নিয়ে পরামর্শ দিয়েছেন রান্নাবিদ কল্পনা রহমান।
মাংস কাটার পর অয়েলক্লথ বিছিয়ে তার ওপর মাংস ছড়িয়ে রক্ত জমে যেতে দিতে হবে। অয়েলক্লথে রাখার ফলে মাংসের গায়ে ময়লা লাগবে না এবং রক্ত ছড়িয়ে পড়বে না।
কাবাব, কিমা, চাপের মাংস, চর্বি ও হাড়যুক্ত মাংস আলাদা প্যাকেট করে ফ্রিজে রাখতে হবে। প্যাকেটের পরিমাণ ১ দিনের রান্না অনুযায়ী রাখা উচিত।
ফ্রিজে কোরবানির মাংসগুলো রাখার তিন থেকে চার ঘণ্টার পর আবার নাড়াচাড়া করুন। এতে মাংসের প্যাকেট একটার সঙ্গে অন্যটা এঁটে যাবে না।
হাড়-চর্বি ছাড়া কিছুটা মাংস চাক চাক করে কেটে সামান্য লবণ ও আদা দিয়ে সেদ্ধ করে রাখা যায়। পরে এ দিয়ে কাবাব বানাতে পারেন।
বিরিয়ানি, কোর্মা, মাংসের স্যান্ডউইচ ইত্যাদি তৈরি করতে চাইলে মাংসে আদা, লবণ, সামান্য পরিমাণে রসুন ও তেল দিয়ে মেখে জ্বাল দিয়ে রাখা যায়। প্রয়োজনমতো রান্নায় ব্যবহার করতে পারবেন। এতে সময় বাঁচবে। দিনে দুবার করে ৭ থেকে ১০ দিন মাংস জ্বাল দিলে ঠান্ডা করে রাখলে ভালো থাকবে।
ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের গার্হস্থ্য অর্থনীতি বিষয়ের জ্যেষ্ঠ শিক্ষক আফরোজা বেগম বলেন, যদি মাংস পরিমাণে বেশি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে, তাহলে মাছ-মুরগিসহ অন্যান্য খাবার আগেই ফ্রিজ থেকে সরিয়ে ফেলা উচিত। সবাইকে মাংস বিলিয়ে দেওয়ার পর বাকি মাংসগুলো থেকে রক্ত পরিষ্কার করে প্যাকেটে ভরে ফ্রিজে রাখলে বেশি দিন ভালো থাকে। এতে জায়গাও কম লাগবে। চর্বি ও হাড়যুক্ত মাংস বেশি দিন সংরক্ষণ না করাই ভালো। বেশি দিন ফ্রিজে রাখলে স্বাদ নষ্ট হয়ে যায়।