শনিবার, ২১শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

হজ

news-image

সময়ক্রম
হজ
হজরত নুহ (আ.)-এর সময়ের মহাপ্লাবনের পর খ্রিস্টপূর্ব ২০০০ অব্দে হজরত ইব্রাহিম (আ.) কাবা শরিফ পুনর্নির্মাণের জন্য নির্দেশিত হন বলে ধারণা করা হয়। পরে বণিক ও হজযাত্রীদের মিলনকেন্দ্র হয়ে ওঠে পবিত্র কাবা শরিফ।  
  

মিনায় হাজিরা রান্নাবান্না করছেন। ছবিটি ১৯৫৩ সালের 
৬২৮ খ্রিস্টাব্দ

নবীজি (সা.) হজ পালনে মনস্থির করেন। হিজরি ৬ সালের শাওয়াল মাসে হজের উদ্দেশ্যে ১৪০০ জন সাহাবি নিয়ে নবীজি (সা.) মদিনা থেকে মক্কার পথে যাত্রা করেন। কুরাইশদের বাধার মুখে মুসলমানরা মক্কার উপকণ্ঠে হুদায়বিয়ায় ঘাঁটি গাড়েন। এখানে কুরাইশদের সঙ্গে মুসলমানদের শান্তিচুক্তি হয়, যেটি হুদায়বিয়ার সন্ধি নামে পরিচিত।

৬২৯ খ্রিস্টাব্দ

মক্কায় মুসলমানরা ওমরাহ পালন করেন। মদিনায় গমনের পর এটাই মুসলমানদের প্রথম উমরাহ।

৬৩০ খ্রিস্টাব্দ

১০ হাজার সাহাবি নিয়ে মক্বার দিকে রওনা হন মুহম্মদ (সা.)। দিনটি ছিল অষ্টম হিজরির ১০ রমজান। রক্তপাতহীন মক্কা বিজয় করেন মহানবী (সা.)। তিনি মক্কাবাসীর জন্য সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করেন। মক্কায় প্রবেশ করে তিনি সর্বপ্রথম কাবাঘরে তাশরিফ আনেন।

হজকেবলা কম্পাস

৬৮৩ খ্রিস্টাব্দ

মক্কার প্রধান আবদুল্লাহ ইবনে জুবায়ের (রা.) ছিলেন উমাইয়া খলিফা প্রথম ইয়াজিদের শক্তিশালী প্রতিপক্ষ। উমাইয়া সেনারা মদিনার লোকদের পরাজিত করে শহর নিয়ন্ত্রণে নেয়। মাসব্যাপী অবরোধের মুখে পড়ে মক্কা। এ হামলায় কাবা শরিফও কিছুটা ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ইয়াজিদের আকস্মিক মৃত্যুর খবরে অবরোধ শেষ হয়। উমাইয়ারা ফিরে যাওয়ার পর জুবায়ের (রা.) কাবা পুনর্নির্মাণ করেন। তিনি অর্ধবৃত্তাকার 'হাতিম'কে কাবার সঙ্গে যুক্ত করে আদিরূপ ফিরিয়ে আনেন। নতুনভাবে কাবা নির্মাণের পর এতে প্রবেশ ও বের হওয়ার জন্য পূর্ব ও পশ্চিমে দুটি দরজা স্থাপন করা হয়। তখনই পবিত্র হাজরে আসওয়াদকে (কালো পাথর) রুপার ফ্রেমে বাঁধানো হয়।

৬৯২ খ্রিস্টাব্দ

এ বছর উমাইয়া সেনাপতি হাজ্জাজ বিন ইউসুফ ১২ হাজার সিরীয় সেনা নিয়ে মক্কা অবরোধ করে। এ অবরোধ ছিল খুবই ভয়াবহ। প্রায় ছয় মাস পর আবদুল্লাহ ইবনে জুবায়েরের ইন্তেকালের পর শেষ হয় অবরোধ।

৭৯৩ খ্রিস্টাব্দ

বাদশাহ হারুন-অর-রশিদ এ শহর পরিদর্শন করেন। মক্কায় পানির অবস্থা শোচনীয় হলে হাজিদের জন্য অতিরিক্ত পানির ব্যবস্থা করতে চেষ্টা করেছিলেন। তিনি কাবাকে ইবনে জুবায়েরের ভাবনার আদলে নির্মাণ করতে উদ্যোগী হলে ফেতনার আশঙ্কায় তৎকালীন আলেমসমাজ, বিশেষত ইমাম মালেক (রহ.) তা নিষিদ্ধ ঘোষণা করেন।

৮০২ খ্রিস্টাব্দ

রানি জুবাইদা কুফা থেকে মদিনা ও মক্কা পর্যন্ত মরুভূমির ওপর দিয়ে প্রায় ১৪০০ কিলোমিটার সড়ক উন্নয়ন করেছিলেন। সে সময় ১৬ মাইল পর পর বিশ্রাম স্থানকে বলা হতো মঞ্জিল। তিন দিনের তথা ৪৮ মাইলের বেশি যাত্রাকে ইসলাম ধর্মে কসর হিসেবে গণ্য। রানি জুবাইদা বাগদাদ থেকে এই নগরীর মঞ্জিলের সুযোগ-সুবিধা বাড়াতে বিপুল অর্থ ব্যয় করেন। সঙ্গে উট, গাধা, ঘোড়া যাতায়াতের সুবিধার জন্য সমতলে বালি সরিয়ে, পাহাড় কেটে সড়ক সংস্কার করেন। হাজিদের পানি সমস্যা সমাধানে মক্কায় একটি খালও খনন করিয়েছিলেন তিনি।

১১৮৪ খ্রিস্টাব্দ

পর্যটক, কবি ইবনে জুবায়ের মক্কা পরিদর্শন করেন। তাঁর ভ্রমণকাহিনীতে তৃতীয় ক্রুসেডের কয়েক বছর আগে ১১৮৩ থেকে ১১৮৫ সাল পর্যন্ত হজযাত্রার বর্ণনা রয়েছে।

১৫১৭ খ্রিস্টাব্দ

অটোমানরা ক্ষমতায় আসে। পবিত্র দুই মসজিদের খাদেম হন দ্বিতীয় সেলিম।

১৬৩০ খ্রিস্টাব্দ

ভয়াবহ বন্যায় কাবার পশ্চিম দিকের দরজাটি ভেঙে পড়ে। কাবার দেয়ালেরও ব্যাপক ক্ষতি হয়। পরে বাদশাহ মুরাদ খান পাশার অর্থায়নে কাবাগৃহে ব্যাপক সংস্কার আনা হয়।

১৮৮৫ খ্রিস্টাব্দ

এ বছর মক্কার জনসংখ্যা ছিল ৪৫ হাজার।

১৯০৮ খ্রিস্টাব্দ

দামেস্ক ও মক্কার মধ্যে ট্রেন যোগাযোগ শুরু হয়। শেরিফ হন হুসাইন বিন আলী। আল-হিজাজ সরকার সংবাদপত্র প্রকাশ শুরু করে।

১৯১২ খ্রিস্টাব্দ

মাদ্রাসা আল-ফালাহ প্রতিষ্ঠিত হয়।

১৯২১ খ্রিস্টাব্দ

মক্কার জনসংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৮০ হাজার।

১৯২৪

অটোমান সাম্রাজ্যের পতনের পর মক্কার নিয়ন্ত্রণ নেয় সৌদি রাজপরিবার। সৌদি বাদশা পবিত্র ভূমির সংরক্ষক হিসেবে পরিচিত। এখনো চলছে সে পরম্পরা।

 

এ জাতীয় আরও খবর