মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নবীনগরে আলীগ নেতার বিরুদ্ধে খাল ভরাটের অভিযোগ

news-image

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে আওয়ামী লীগ নেতার নেতৃত্বে সরকারি খাল ভরাট করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় তৎকালীন শ্যামগ্রাম ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা প্রভাবশালী আওয়ামী লীগ নেতাদের বাদ দিয়ে ৬ জুলাই নিরীহ ৬ গ্রামবাসীর নামে অবৈধ দখলদার দেখিয়ে অবৈধভাবে বালু ভরাটের বিষয়ে তদন্ত প্রতিবেদন নবীনগরের সহকারী কমিশনার (ভূমি) বরাবর দাখিল করেছেন। সম্প্রতি নবীনগরের সহকারী কমিশনার ভূমি খাল থেকে অবৈধভাবে ফেলা বালু অপসারণ কিংবা মামলা না করে মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে দখলকারীদের পক্ষ নিয়ে গ্রামবাসীদের পানি নিষ্কাশনের জন্য ড্রেন নির্মাণের আশ্বাস দেন। এ নিয়ে এলাকাবাসীর মাঝে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে। জানা যায়, নবীনগর উপজেলার শ্যামগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. নাজিম উদ্দিন ওরফে ধনু মেম্বার, ইউপি চেয়ারম্যান মো. নাসির উদ্দিন, ৬নং ইউপি সদস্য মো. সাইফুল ইসলাম পল্টু ও ধনু মেম্বারের মেয়ের জামাই আবদুর রহমান নান্টু মিয়া জুন মাসে শ্যামগ্রাম মৌজার খাস খতিয়ানভুক্ত ১৫৪৫ দাগের সরকার বাহাদুর খালের ৮ ফুট গভীর অন্তত ২০ শতাংশ জায়গা ড্রেজারের বালু দিয়া ভরাট করে। মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে সদ্য সাবেক ভূমি সহকারী কর্মকর্তা মো. হেলাল উদ্দিন প্রভাবশালী দখলবাজদের নাম বাদ দিয়ে নিরীহ ৬ সংখ্যালঘুর বিরুদ্ধে সরেজমিন তদন্ত প্রতিবেদন দিয়েছেন। তদন্ত প্রতিবেদনে শ্যামগ্রামের সত্যরঞ্জন সাহা, শান্তি ঘোষ, শ্যামল ঘোষ, পঙ্কজ সাহা, ঠাকুর দাস ও মনিন্দ্র চন্দ্র সাহাকে খাল ভরাটকারী দেখিয়ে মূল হোতাদের বাদ দিয়ে ভূমি প্রতিবেদন দেয়ায় এলাকায় মিশ্র প্রতিক্রিয়ায় দেখা দিয়েছে। এ বিষয়ে সত্যরঞ্জন সাহা বলেন, আমরা আমাদের জমিতেও মাটি ভরাট করতে চাইনি, ধনু মেম্বার, পল্টু মেম্বার ও নাসির চেয়ারম্যান বলছেন এ খাল ভরাট করে রাস্তা নির্মাণের জন্য একটি সরকারি প্রকল্প আসছে। খালের দুই পাশে আমাদের জায়গায় কম টাকায় বালু ভরাট করে দিবে এবং আমাদের ৬ পরিবারের ২ কানি উঁচু জমি ভরাট করে এখন ২৭ লাখ টাকা দাবি করছে। ইতিমধ্যে ১৫ লাখ টাকা দিয়েছি। বাকি টাকার জন্য ধনু মেম্বারের জামাই ও বিয়াই আমাদের হুমকি-ধমকি দিচ্ছে। এ বিষয়ে নাজিম উদ্দিন ওরফে ধনু মেম্বার বলেন, আমার মেয়ের জামাই নান্টু টাকার বিনিময়ে বালু ভরাট করেছে কিন্তু জায়গাতো আমার কিংবা আমার মেয়ের জামাইর না। হিন্দু পরিবারগুলোকে টাকার জন্য হুমকি দিচ্ছি এ অভিযোগ সঠিক না। ভরাটকৃত খাল দিয়ে পানি নামার জন্য ছোট একটি ড্রেন করার প্রকল্প নাছির চেয়ারম্যান ব্যবস্থা করে দেবেন। এ বিষয়ে পঙ্কজ সাহা বলেন, ধনু মেম্বার ও পল্টু মেম্বার খালে বালু ফেলেছে। এখন উল্টো ভূমি অফিসের মাধ্যমে আমদের ৬ হিন্দু পরিবারের বিরুদ্ধে অবৈধভাবে খাল ভরাটের অভিযোগ আনছে। খালের দুই পাশে আমাদের জায়গায় মাটি ভরাট করায় সেই মাটি গিয়ে খাল ভরাট হয়েছে। এ বিষয়ে শ্যামগ্রাম ইউনিয়ন (বর্তমানে শাহপুর ভূমি অফিস) ভূমি সহকারী কর্মকর্তা মো. হেলাল উদ্দিন বলেন, ধনু মেম্বার ও পল্টু মেম্বারের কাছ থেকে টাকার বিনিময়ে তাদের নাম বাদ দেয়া হয়েছে এমন অভিযোগ সঠিক না। খালের দুই পাশে মালিক যারা তাদের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দেয়া হয়েছে। নবীনগরের সহকারী কমিশনার (ভূমি) ওয়ালীউল হাসান বলেন, অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে মহল্লাবাসীকে নিয়ে বৈঠক করেছি এই খাল দিয়ে পানি নিষ্কাশনের জন্য আগামী ১৫ দিনের মধ্যে একটি ড্রেন নির্মাণ করার নির্দেশ দিয়েছি।
 

এ জাতীয় আরও খবর