সোমবার, ১৬ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আশুগঞ্জ প্রেসক্লাবের মামলায় অধ্যক্ষ সাজু‘কে একশত টাকা বন্ডে জামিন দিয়েছে আদালত

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদকব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ প্রেসক্লাবের দায়ের করা মামলায় শেকরের সন্ধানে গ্রন্থের লেখক অধ্যক্ষ শাহজাহান আলম সাজুকে শুধু একশত টাকা বন্ডে জামিন দিয়েছে আদালত। সোমবার বিকালে  ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সিরাজুম মুনিরার আদালতে এই জামিনের  আদেশ দেওয়া হয়। এর আগে সোমবার সকালে মামলার বিবাদী শেকরের সন্ধানে গ্রন্থের লেখক অধ্যক্ষ শাজাহান আলম সাজু ও প্রকাশক রোকসানা বেগম আদালতে হাজির হয়ে জামিনের আবেদন করেন।
বাদি পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন অ্যাডভোকেট একেএম সামসুল আলম,এডভোকেট মো. আবিদুল্লাহ, এডভোকেট ওসমান গনি-১, এডভোকেট মাহবুবুল আলম খোকন, এডভোকেট মোঃ আলী আজম, এডভোকেট কাজী মো. রাসেল, এডভোকেট সাদ্দাম হোসেন ও এডভোকেট সাইফুল ইসলাম  প্রমূখ। বিবাদী পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন অ্যাডভোকেট সৈয়দ তানভির হোসেন,জেলা আইনজীবি সমিতির সভাপতি  আব্দুল মান্নান,সাধারণ সম্পাদক  এডভোকেট তারিকুল ইসলাম রুমা,সাবেক সভাপতি এডভোকেট নাজমুল হোসেন, এডভোকেট সৈয়দ তারেক আলী ও এডভোকেট সুভাস দেবনাথ। 
বেসরকারী শিক্ষক কর্মচারী কল্যান ট্রাষ্টের সদস্য সচিব অধ্যক্ষ শাহজাহান আলম সাজুর তার লেখা শেকরের সন্ধানে গ্রন্থে আশুগঞ্জ প্রেসক্লাব প্রষ্ঠিতা নিয়ে মিথ্যা তথ্য দিয়ে ইতিহাস বিকৃত করার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে মামলা হয়।প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য সাদেকুল ইসলাম সাচ্চু বাদী হয়ে গত ৫ আগষ্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্যট  আদালতে গ্রন্থের লেখক ও প্রকাশকের বিরুদ্বে মামলাটি দায়ের করেন। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে বিবাদীদের বিরুদ্ধে সমন জারি করেন। 
 মামলার অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ প্রেসক্লাবকে নিয়ে মিথ্যা তথ্য ও ইতিহাস বিকৃত করে অধ্যক্ষ শাহজাহান সাজু ‘শেকড়ের সন্ধানে’ গ্রন্থে উল্লেখ করেন ১৯৮৫ সালে তিনি আশুগঞ্জ প্রেসক্লাব প্রতিষ্ঠা করেন। তিনি এই ক্লাবের প্রতিষ্টাতা সভাপতি ছিলেন। মূলত আশুগঞ্জ প্রেসক্লাব ১৯৯৩ সালে সর্ব প্রথম আহবায়ক কমিটি গঠন এবং ১৯৯৫ সালে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়। এতে সভাপতি ছিলেন প্রয়াত মিজানুর রহমান ও সাধারন সম্পাদক ছিলেন বর্তমান সভাপতি সেলিম পারভেজ।