বৃহস্পতিবার, ১৯শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রোগীর মৃত্যুর ঘটনা টাকায় রফা?

news-image

মেহেদী হাসান মিলন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া॥ শনিবার সকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার একটি প্রাইভেট ক্লিনিকে চিকিৎসকের ভুল অস্ত্রোপচারে নাসির হোসেন (৭৫) নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু ঘটনায় স্বজনরা হাসপাতালে ভাঙচুর চালায়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। দুপুরে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ স্থানীয় পৌর মেয়রের হস্তক্ষেপে বিষয়টি রফাদফা করা হয়। গত শুক্রবার রাত সাড়ে ১১টায় শহরের টেংকেরপাড় এলাকায় ‘দি ন্যাশনাল হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে’ এ ঘটনা ঘটে। পরে রাতেই হাসপাতাল থেকে চিকিৎসকসহ হাসপাতালের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা পালিয়ে যায়। নিহত নাসির ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের উত্তর পৈরতলা এলাকার মৃত রহিম উদ্দিনের ছেলে। পুলিশ, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও নিহতের ছেলে জাকির হোসেন জানান, কিডনির ডান পাশে পাথরজনিত ব্যথা নিয়ে গত বুধবার সন্ধ্যায় নাসিরকে ওই প্রাইভেট ক্লিনিকে ভর্তি করানো হয়। চিকিৎসকেরা পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে পাথর অপসারণের সিদ্ধান্ত নেন। সে অনুযায়ী গত শুক্রবার রাত পৌনে নয়টার দিকে অস্ত্রপচারের জন্য ওটি-তে নেওয়া হয়। অজ্ঞান করার পর ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালের সার্জারী বিভাগের বিশেষজ্ঞ এ কে এম নিজাম উদ্দিন অস্ত্রপচার করেন। জাকির অভিযোগ করে বলেন, অস্ত্রোপচার কক্ষে নেওয়ার আগে তার বাবা ভাল ছিল। কিন্তু চিকিৎসকের ভুল চিকিৎসার কারণে অস্ত্রোচারকক্ষেই তার বাবা মারা যান। এ ঘটনার পর রাতে চিকিৎসক একেএম নিজাম উদ্দিনসহ হাসপাতালের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীরা পালিয়ে যায়। শনিবার সকালে বিষয়টি জানাজানি হলে রোগীর স্বজনসহ এলাকার লোকজন এসে এ ভাঙচুর চালায়। দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালের কথা হলে অস্ত্রোপচারকারী চিকিৎসক একেএম নিজাম উদ্দিন অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, এক ঘন্টা ৫০ মিনিট অস্ত্রোপচার শেষে ওই রোগীকে রাত সাড়ে ১১টায় অস্ত্রোপচারকক্ষ থেকে বের করা হয়। রোগীটি দেখাশোনার ক্ষেত্রে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের অবহেলা ছিল। হাসপাতালের ব্যবস্থাপক পরিচালক মহসিন মিয়া জানান, রোগী মারা যাওয়ার পর পরিস্থিতি ঘোলাটে হয়ে গেলে সবাই ভয়ে হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যায়। ওই রোগীর লোকজনের সাথে বিষয়টি রফাদফা হয়েছে বলে জানান তিনি। তবে কত টাকার রফাদফা হয়েছে তার উত্তর এখন দিতে পারবেন না বলে জানান। ওই ক্লিনিকের আরেক পরিচালক আতিকুর রহমান জানান, এই ঘটনাটি পৌর মেয়র হেলাল উদ্দিনের মাধ্যমে আপোষ-মীমাংসা হয়ে গেছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আকুল চন্দ্র বিশ্বাস জানান, মৃত্যুর ঘটনায় রোগীর স্বজনরা এসে হাসপাতালে ভাঙচুর চালায়। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত আছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সিভিল সার্জন হাসিনা আক্তার বলেন, বিষয়টি শুনেছি। অভিযোগ পেলে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা  প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

 

এ জাতীয় আরও খবর

হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় বাড়লো

খালেদাকে পদ্মা সেতুতে তুলে নদীতে ফেলে দেওয়া উচিত: প্রধানমন্ত্রী

বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা, চারজনের যাবজ্জীবন

সিলেটে বন্যার্তদের পাশে পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ক্লাসরুমে ফ্যান খুলে পড়ে চার ছাত্রী আহত

ঘরে বসে খুব সহজেই করে ফেলুন পার্লারের মতো হেয়ার স্পা

সামরিক সহায়তা চাইলো মিয়ানমারের ছায়া সরকার

হত্যা মামলায় তিন ভাইসহ চারজনের যাবজ্জীবন

এমপির গাড়িবহরে ট্রাকচাপায় লাশ হলেন ছাত্রলীগ নেতা

কান উৎসবে বঙ্গবন্ধুর বায়োপিকের ট্রেইলার, ফ্রান্সের পথে তথ্যমন্ত্রী

শ্রমিকের তীব্র সঙ্কট, বৃষ্টিতে তলিয়ে যাচ্ছে ধান

পল্লবীর অনুপস্থিতিতে ফ্ল্যাটে কে আসতেন, মুখ খুললেন পরিচারিকা