মঙ্গলবার, ২৪শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

যুক্তরাষ্ট্রের চাঁদে অবতরণ ভুয়া

news-image

যুক্তরাষ্ট্রের চাঁদে অবতরণের খবরটি ভুয়া বলে সন্দেহ বাড়ছে। ১৯৬৯ সালের ২০ জুলাই মার্কিন নভোচারী নীল আর্মস্ট্রং পৃথিবীর প্রথম মানুষ হিসেবে চাঁদে অবতরণ করেন। ৪৬ বছর ধরে এ খবরটিকে ধ্রুবক মেনে নিয়েছে সবাই। কিন্তু মার্কিন মহাকাশ সংস্থা নাসার চাঁদে অবতরণের ওই ভিডিওটি ভুয়া বলে সন্দেহ করছেন বিশেষজ্ঞ অনেকেই। সম্প্রতি রাশিয়ার সরকারি তদন্ত কমিটির মুখপাত্র ভ­াদিমির মার্কিন ওই অভিযানের তদন্ত দাবি করেছেন। সঠিক তদন্ত হলেই সত্যিটা বেরিয়ে আসকে বলে মনে করছেন তিনি। বৃহস্পতিবার দ্য ইন্ডিপেনডেন্ট এক প্রতিবেদনে এসব কথা জানিয়েছে। রুশ পত্রিকা ইজেভিস্তিয়ায় প্রকাশিত এক সম্পাদকীয় কলামে দাবি করেছেন, ঐতিহাসিক ওই মহাকাশ অভিযানে আসলে কী ঘটেছিল তার সঠিক তদন্ত হওয়া দরকার। মস্কো টাইমসের অনুবাদে বলা হয়েছে, সেই চন্দ্রশীলা কোথায়? সেখান থেকে পৃথিবীতে কী আনা হয়েছিল- এই ধোঁয়াসা কাটানো দাবি করেছেন ভ­াদিমির মার্কিন। তিনি বলেন, ‘আমরা বলছি না, তারা চাঁদে যাননি। তারা পৃথিবীতে ভিডিওটি বানিয়েছেন, সেই দোষও দিচ্ছি না। কিন্তু সেই বৈজ্ঞানিক- সম্ভবত সাংস্কৃতিক-ধুরন্ধরতা মানবতার উত্তরাধিকার সম্পদ। তা হারিয়ে যেতে দেয়া যায় না। একটি তদন্ত হলেই জানা যাবে ঘটনা কী?’ এদিকে রাশিয়ার এ তদন্ত দাবিতে উদ্বেগে রয়েছে নাসা। ২০০৯ সালে নাসা স্বীকার করে, চাঁদে অবতরণের অরিজিনাল ভিডিও তাদের কাছে নেই। রয়টার্সের খবর অনুযায়ী নাসার দাবি হচ্ছে, খরচ বাঁচানোর জন্য ওই ভিডিওসহ দুই লাখ রেকর্ডিং বার্তা তারা ফেলে দিয়েছে। কোনো কোনো সূত্রে হারিয়ে গেছে বলে উল্লেখ করা হয়। পরে নাসা অন্যান্য রেকর্ডিং সূত্রের সাহায্যে চাঁদে অবতরণের ভিডিও কপি উদ্ধারের চেষ্টা করে। তবে চন্দ্রাভিযানের পরে যে ভিডিওটা তারা ছেড়েছিল তাতে অনেক অসঙ্গতি রয়েছে। সন্দেহবাদীদের মতে, যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় পর্বতসংকুল ও মরুময় নেভাদা অঙ্গরাজ্যে চন্দ্রাভিযানের দৃশ্য ধারণ করা হয়।