মঙ্গলবার, ২৪শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিএনপিতে নব উদ্যম আনতে চাচ্ছেন খালেদা

news-image

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বিএনপিতে নব উদ্যম আনতে চাইছেন। আগামী দিনে সরকারের বিরুদ্ধে ও নিদর্লীয় সরকারের অধিনে সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য আন্দোলনে কাঙ্খিত পরিণতির জন্য দলের বিভিন্ন স্তরে পরিবর্তন আনতে চান। অতীতের সকল ভুল শুধরে সামনে এগুতে চান। আর এই কারণে দলের ভেতরে শুদ্ধি অভিযান চালানোর পাশাপাশি নতুন নেতৃত্বও সামনে আনতে চাইছেন। দলের আন্দোলনে যারা এতদিন ধরে কাজ করছেন তাদের মধ্যে যারা আগামি দিনে ভূমিকা রাখতে পারবেন তাদেরকে নতুন করে দায়িত্ব দেওয়ার কথাও ভাবছেন। পাশাপাশি যাদের ভূমিকা বিতর্কিত ও যারা কেবল আতঙ্ক ও হামলা মামলার কথা বলে যারা এতদিন সুবিধা নেওয়ার চেষ্টা করেছেন তাদের ব্যাপারেও সিদ্ধান্ত নিবেন। আর যে সব নেতারা সত্যিকারেই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তাদের ব্যাপারেও ইতিবাচক হিসাবে বিবেচনা করছে। তবে এই পুরো কাজটাই তিনি করতে চাইছেন কৌশলে। যাতে করে কোন কোন নেতা স্থানচ্যুত হওয়ার কারণে বিদ্রোহী হতে না পারেন। তিনি যেন বুঝতে পারেন কেন তার অবস্থান পরিবর্তন হলো। আর দল গোছাতে গিয়ে দলের ভেতরে যাতে নতুন করে কোন বিশৃঙ্খলা ও কোন্দল তৈরি না হয়, অসন্তোষও তৈরি না হয় এবং দল ছেড়ে ওই সব নেতারা বাইরে বের হয়ে গিয়ে বিএনপির বিরুদ্ধে কোন ষড়যন্ত্র করতে না পারে সেটাও দেখবেন।

বিএনপি চেয়ারপারসনের ঘনিষ্ট সূত্র জানায়, আন্দোলন স্থগিত করার পর থেকে বেগম খালেদা জিয়া নতুন করে দল গোছানোর কাজ শুরু করেন। তাকে সহায়তা করছেন বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান। এছাড়াও দলের বিশ্বস্ত বেশ কয়েকজন নেতা এ বিষয়ে কাজ করছেন। তাদের দিয়ে বিভিন্ন পর্যায় থেকে তথ্যও সংগ্রহ করাচ্ছেন। ইতোমধ্যে অনেক জেলার চিত্রও পেয়ে গেছেন। সেগুলো পর্যালোচনাও করছেন।

সূত্র জানায়, আগামী দিনের আন্দোলন সফল করার জন্য নতুন করে দল সাজাবেন বিএনপি চেয়ারপারসন  বেগম খালেদা জিয়া।  চেয়ারপারসনের নির্দেশে ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে  নেতৃত্ব নির্বাচনের প্রস্তুতি। তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে দলের ৭৫টি সাংগঠনিক  জেলা ও এর অধীন প্রতিটি ইউনিটের সক্রিয়,  যোগ্য ও ত্যাগী  নেতাদের সম্পর্কে। দলের বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতাদের সম্পর্কেও তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। দলের ভেতরে যে সব সমস্যা রয়েছে ওই সব সমস্যা কাটিয়েই তিনি চাইছেন দলের সাংগঠনিক  চেইন অব কমান্ড শক্তিশালী করতে। এই জন্য প্রয়োজনীয় সব উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট আহমেদ আযম খান বলেন, দলের ভেতরে অনেক বেশি সমস্যা নেই। তবে ছোট খাটো সমস্যাতো রয়েছে। এই সব সমস্যা সমাধানের জন্য কাজ করছেন । আর দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব যত দ্রুত  জামিনে মুক্তি লাভ করবেন ততো তাড়াতাড়ি দল গোছানোর প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে। তবে এখনও অনেক কাজ চলছে। এখন ম্যাডাম দল ঘোছানো নিয়ে ব্যস্ত সময় পাড় করছেন। এই জন্য তিনি এর বিভিন্ন দিক নিয়ে ব্যস্ত। এখন আর আন্দোলনের কোন কর্মসূচি দিচ্ছেন না। নিকটতম সময়েও কোন আন্দোলনের কর্মসূচি নেই। ম্যাডাম সিদ্ধান্ত নিয়েছেন আগে দল গোছাবেন এরপর আবার আন্দোলন শুরু করবেন।

তিনি বলেন, এবার  নেতৃত্ব নির্বাচনে চমক থাকতে পারে। যোগ্য, দক্ষ ও আগামী দিনে যার আন্দোলন এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবেন কাঙ্খিত পরিণতির দিকে তারাই প্রাধান্য পাবেন।  তরুণদেরও জায়গা হতে পারে। তবে এই সব বিষয় নিয়ে ম্যাডাম এখনও কথা বলছেন না। আরো সময় গেলে দলের স্থায়ী কমিটির ও অন্যান্য সংশ্লিষ্ট স্তরের নেতাদের সঙ্গে কথা বলবেন।

মঙ্গলবার বেগম খালেদা জিয়া নিজেই নোয়াখালী জেলা আইনজীবী সমিতির নেতাদের সঙ্গে দেখা করার সময়ে নতুনভাবে দল  গোছানোর কথা বলেছেন। ওই সময়ের উপস্থিত দলের সিনিয়র আইনজীবী নেতারাও তাকে কিছু পরামর্শ দিয়েছেন। দলের ঐক্য ধরে রাখতে সব কিছু নিজ হাতে নিয়ন্ত্রণ করার অনুরোধ করেছেন। সফলতা আসার স্বপ্নও দেখিয়েছেন।  সফলতা আসতে বাধ্য সেটাও জানানোর চেষ্টা করেছেন। দলের বিতর্কিত নেতাদের ব্যাপারেও কথা হয়েছে। দলের কিছু নেতা তাকে তৃণমূল  নেতাকর্মীদের কাছ  থেকে আড়াল করে  রেখেছে।  সেটাও বলেছেন। তারা ইচ্ছা থাকার পরও প্রয়োজনে তার সাথে আমরা দেখা করতে পারি না। অথচ আগে এমনটা ছিল না। এনিয়ে আফসোস করেন তৃণমূল আইনজীবী নেতারা। ওই সব হতাশ নেতাদের আশস্ত করার চেষ্টা করেছেন খালেদা জিয়া। বলেছেন, হতাশ হবেন না। আন্দোলন-সংগ্রামে যারা ত্যাগ স্বীকার করেছেন, যারা দলের সাথে  বেঈমানি করেননি তাদের এবার মূল্যায়ন করা হবে। যে যাই বলুক আর  লেখুক দলে ঐক্য আছে। দল সুসংগঠিত রয়েছে। আমরা দল  গোছানোর প্রক্রিয়াও শুরু করেছি।

বিএনপির একজন ভাইস  চেয়ারম্যান বলেন, দল পুনর্গঠনের কয়েকটি ধাপ রয়েছে। এখন চলছে প্রাথমিক পর্যায়। বিভিন্ন তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করা হচ্ছে। সম্ভাব্য  নেতাদের বিষয়ে  খোঁজ  নেয়া হচ্ছে। তারপর পুনর্গঠন প্রক্রিয়ায় হাত  দেয়া হবে। তারা মনে করছেন, ঈদের আগেই কারাবন্দী দলের শীর্ষ  নেতাদের প্রায় সবাই মুক্তি পাবেন। আগাম জামিনের চেষ্টা চলছে। সেটা হলে কারাগারের বাইরে মামলার জালে আটকে থাকা  নেতারাও প্রকাশ্যে আসবেন। এরপরই পুনর্গঠন প্রক্রিয়া পুরোদমে শুরু হবে।

সূত্র জানায়, খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান দলের  যোগ্য,  নেতা ও সৎ নেতৃত্ব বাছাই করতে দল পুনর্গঠনের আগে  জেলা, মহানগর ও উপজেলা বা থানা পর্যায়ের  নেতাদের সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করছে। এই জন্য বিএনপির একজন সহদফতর সম্পাদক, ঢাকা মহানগর বিএনপির এক  নেতাসহ দলের মাঝারি সারির একাধিক  নেতা তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করছেন। ইতোমধ্যে ঢাকার তালিকা তার হাতে পৌঁছেছে। সেখানে নিষ্ক্রিয় নেতাদের কথা তুলে ধরা হয়েছে। তাদের কোন্দলের কথাও উঠে এসেছে। আন্দোলনের সময়ও তারা মাঠে ছিলেন না। কোন ভূমিকা রাখতে পারেননি সেটাও বলেছেন। কউ  কেউ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর বিপক্ষে কাজ করেছেন এমনও কথা ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

বিএনপি চেয়ারপাসনের একজন উপদেষ্টা বলেন, রোজা, ঈদের সময়ে ও কোরবানী ঈদের আগ পর্যন্ত এই সব তথ্য সংগ্রহ করে দলের কাউন্সিল করার জন্য চেষ্টা করা হবে। শীত মৌসুমে হবে কাউন্সিল। সেখানে সব ঠিক করা হবে। তবে এবার যারা ২০১৩ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত আন্দোলনের অগ্রভাগে ছিলেন, মাঠে ছিলেন, সফল হয়েছেন নেতৃত্ব দিতে তাদেরকে প্রাধান্য দেওয়া হবে। যারা দায়িত্ব পাওয়ার পরও  দায়িত্ব পালন করেননি তাদের ব্যাপারেও সিদ্ধান্ত হবে। যেই সব নেতা এলাকায় ছিলেন না তাদের ব্যাপারেও ব্যবস্থা নেওয়ার কথা ভাবছেন।  যোগ্য ও ত্যাগী  নেতাদের বাছাই করে এবার কমিটির  নেতৃত্ব দিতে নেওয়া হবে। বিএনপি এবার নতুন করে আন্দোলন শুরু করলে আর ব্যর্থ হতে চাইছে না। এবার সফল আন্দোলন করতে চান খালেদা।

আমাদের সময়.কম