সোমবার, ১৬ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নিখোজ ২ ব্যবসায়ীর খোজ মিলেনি

news-image

আমিরজাদা চৌধুরী : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নিখোজ দু-ব্যবসায়ীর খোজ মিলেনি। এপ্রিলের শেষদিকে কাছাকাছি সময়ে উধাও হন মোবাইল ফোন ও এর খুচরা যন্ত্রাংশ বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান ‘অনিক টেলিকম’ এর মালিক জসিম উদ্দিন। আরেকজন রবি মোবাইলের ডিলার কাজী আরজু নিখোঁজ হন ঢাকা থেকে। গত ১৩/১৪ দিনেও তাদের কোন খোজ মিলেনি। কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে গা ঢাকা দেয়ার অভিযোগ উঠেছে এই ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে। তালাবদ্ধ তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। জসিমের নিখোজ হওয়ার ২/৩ দিন পর ২৭ শে এপ্রিল তার স্ত্রী করুনা বেগম ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন। আরজুর নিখোজের বিষয়ে ২৯ শে এপ্রিল তার স্ত্রী রাবেয়া বেগম ঢাকার বনানী থানায় সাধারণ ডায়েরী করেন। তবে এখনো তাদের কোন খোজ মিলেনি। তারা কি নিজে থেকে আত্বগোপনে রয়েছেন নাকি অপহ্নত হয়েছেন তাও নিশ্চিত করে বলতে পারছেননা কেউ।  এই দুই  ব্যবসায়ীর ্ঋনের পরিমান আনুমানিক ১৫/২০ কোটি টাকা। অনেকে তাদের ব্যবসায় মোটা অংকের টাকা লগ্নি করেছিলো। ব্যাংক ঋনও রয়েছে মোটা অংকের। রবির ডিলার পালিয়ে যাওয়ায় এর গ্রাহকরাও পড়েছে বিপাকে। ইজিলোড,স্ক্যাচকার্ড ও সিমকার্ড কোনটাই পাচ্ছেননা তারা। দু-ব্যবসায়ী নিখোজের বিষয়ে নানা আলোচনা রয়েছে। পাওনাদাররা ভীড় করছেন তাদের বাড়িতে। জসিম উধাও হওয়ার পর থেকেই বিদেশ পাড়ি জমিয়েছে বলে আলোচনা ছড়িয়ে পড়ে। আর আরজু ঋনের চাপে উধাও বলে জানিয়েছেন তার সঙ্গে জড়িত ব্যবসায়ীরা। জসিমের মসজিদ মার্কেটের ২ টি ও সদর মডেল থানার পাশের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে গিয়ে দেখা গেছে তালাবদ্ধ।

onik-2মসজিদ মার্কেটের দোকানের সামনে ‘নিউ অনিক টেলিকম,অনিবার্য কারনবশ:ত সাময়িক সময়ের জন্যে বন্ধ’ লিখা  ছোট  একটি ডিজিটাল ব্যানার ঝুলিয়ে  রাখা হয়েছে। জসিমের ঋনের পরিমান ৮ থেকে ১০ কোটি টাকা হবে বলে ধারনা পাওয়া গেছে। তার রমরমা ব্যবসায় জেলা সদরে কর্মরত অনেক পুলিশ কর্মকর্তাও লাখলাখ টাকা অর্থ লগ্নি করেছিলেন। হঠাৎ উধাওয়ের পর পুলিশ কর্মকর্তাসহ সকল পাওনাদারদের মাথায় হাত পড়েছে।  জসিমের স্ত্রী করুনা বেগম বলেন- সে কোথায় আছে তা বলতে পারছিনা। দু-দিন ধরে তাদের সাথে যোগাযোগ বন্ধ থাকার পর তিনি থানায় জিডি করেন। জসিম বিদেশ যাননি দাবী করে তিনি বলেন তার বিদেশ যাওয়ার কোন প্লান ছিলোনা। বিদেশ গেলেতো আমাদের সাথে যোগাযোগ করতো। ব্যবসা পরিচালনার দায়িত্ব যার ওপর ছিলো সে ব্যবসা চালাতে পারছেনা বলেই দোকান বন্ধ রাখা হয়েছে । তিনি স্বীকার করেন জসিমের অনেক ঋন রয়েছে। নিখোজের পর অনেক পাওনাদার বাড়িতে এসে তার সঙ্গে দেখা করেছে। আবার জসিমও অনেকের কাছে পাওনা আছে বলে জানান করুনা। এদিকে পাওনাদাররা বাসায় ভীড় করতে শুরু করলে জসিম নিখোজের ৩ দিন পর কৌশল হিসেবে তার স্ত্রী থানায় ডায়েরী করেন বলে কথা উঠেছে। শহরের মসজিদ রোডের ভূইয়া ম্যানশনে রবি ডিলার কাজী আরজুর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। এটিও তালাবদ্ধ। আরজু রবি ডিষ্ট্রিবিউশন,রবি গ্রাহকসেবা ও ডাচবাংলা মোবাইল ব্যাকিং এর ব্রাহ্মণবাড়িয়্ াডিলার ছিলেন। তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের নাম টোটাল কমিউনিকেশন লিমিটেড। আরজু নিখোজ হন ঢাকার বনানীর একটি হোটেল থেকে। নিখোজের আগে তিনি ব্র্যাক ব্যাংকের মতিঝিল শাখা থেকে ২৭ লাখ টাকা উত্তোলন করেন। জানা যায়, গত ২৫ এপ্রিল আরজু ব্যক্তিগত কাজে ঢাকায় যান। পরদিন ২৬ এপ্রিল ব্র্যাক ব্যাংক থেকে ঐ টাকা উত্তোলন করেন। এদিন বিকেল থেকেই বেখবর হন এই ব্যবসায়ী । ঐদিন পৌনে ৫ টা পর্যন্ত ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ষ্টাফ ও পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ ছিলো তার। এব্যাপারে ২৯ শে এপ্রিল আরজুর স্ত্রী রাবেয়া বেগম ঢাকার বনানী থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন। এরপর পুলিশ বনানীস্থ পর্যটন কর্পোরেশনের ‘অবকাশ’ হোটেলে গিয়ে আরজুর কক্ষ থেকে ল্যাপটপ ও অন্যান্য জিনিসপত্র উদ্ধার করে। জানা গেছে আরজুর ঋনের পরিমান প্রায় ৭ কোটি টাকা। শহরের মেড্ডা তিতাসপাড়ার একটি বাড়ি,পাইকপাড়ার একটি ও ঘাটুরার আরেকটি বাড়ি ওয়ান ব্যাংকে বন্ধক রেখে ৩ কোটি টাকা ঋন নিয়েছিলেন তিনি। এছাড়া মানিক মিয়া নামের একজনের কাছ থেকে ৭৪ লাখ টাকা,মাহবুব নামের আরেকজন ৩৫ লাখ টাকা ও এসএম ইদ্রিস নামের আরেকজনের কাছ থেকে ৫৪ লাখ টাকা নিয়েছিলেন ব্যবসার জন্যে। তারা জানান-আরজু ঋনের চাপেই উধাও হয়েছে। তবে এবিষয়ে মুখ খুলতে নারাজ আরজুর পরিবার। তার স্ত্রী রাবেয়া বেগমের মোবাইলে ফোন করলে তার মেয়ে ফোন ধরে বলেন এনিয়ে আপনাদের খোজখবর নিতে কে বলেছে? প্রয়োজন হলে আমরা আপনাদের সাথে যোগাযোগ করবো। এদিকে আরজু নিখোজের পর থেকে বন্ধ রয়েছে রবির সকল ধরনের গ্রাহ্রক সেবা। পাওয়া যাচ্ছেনা রবির রিচার্জ  কার্ড ,ইজি লোড,সিমকার্ড। বন্ধ মোবাইল ব্যাকিং। এব্যপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আকুল চন্দ্র বিশ্বাস বলেন- আরজুর ব্যাপারে ঢাকায় জিডি হয়েছে। তার ব্যাপারে আমাদের কোন কিছু জানা নেই। আর জসিমের বিষয়ে আমাদের তদন্ত অনেক এগিয়েছে। আশাকরি ভালো ফলাফল পাওয়া যাবে।